kalerkantho


নাঈমের টানা তৃতীয় সেঞ্চুরি

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ক্রীড়া প্রতিবেদক : অঘোষিত এক লড়াই-ই যেন চলছে তুষার ইমরান আর নাঈম ইসলামের মধ্যে। ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটে কোনো বাংলাদেশির সর্বোচ্চ ২২টি সেঞ্চুরি প্রথমজনের। তবে পরেরজনও তুষারকে ধরতে ছুটছেন। চলতি বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগেরই (বিসিএল) পঞ্চম রাউন্ডের ম্যাচের দ্বিতীয় দিন ওয়ালটন মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে নাঈম করলেন তাঁর ২১তম সেঞ্চুরি। যেটি আবার এই আসরে বিসিবি উত্তরাঞ্চলের ব্যাটসম্যানের টানা তিন ম্যাচে তৃতীয় সেঞ্চুরিও। অভিজ্ঞ নাঈম ইসলামের হার না মানা ১৩৩ রানের ইনিংসের সঙ্গে তরুণ নাজমুল হোসেনের (শান্ত) সেঞ্চুরিও যোগ হওয়ায় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মধ্যাঞ্চলের ১৮১ রানের জবাবে উত্তরাঞ্চল দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে ৬ উইকেটে ৪২২ রান নিয়ে। ওদিকে চট্টগ্রামেও ব্যাটিং ঝলক আরেক তরুণের ব্যাটে। আফিফ হোসেনের সেঞ্চুরিতে দক্ষিণাঞ্চলের (২৯৬) বিপক্ষে লিড নেওয়ার পথে আছে পূর্বাঞ্চলও। তারা দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে স্কোরবোর্ডে ৪ উইকেটে ২৯০ রান জমা করে।

আফিফের ঝলক অবশ্য গত বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে। ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি বিপিএলের সবশেষ আসরে খেলতে নেমেই চমকে দিয়েছিলেন।

রাজশাহী কিংসের হয়ে অফস্পিনে ৫ উইকেট নিয়ে কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন চিটাগং ভাইকিংসকে। এর মধ্যে ছিল ক্রিস গেইলের উইকেটও। যদিও তখন থেকেই বলে আসছেন যে তিনি মূলত ব্যাটসম্যান। সেটি ফার্স্ট ক্লাস অভিষেকের পর থেকেই প্রমাণও করে আসছেন। এক ম্যাচ আগেই উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে ফার্স্ট ক্লাস অভিষেকে ১০৫ রানের ইনিংস খেলা আফিফ এবার করেছেন ১৩৭ রান। ২১ রানেই ওপেনিং পার্টনার ইমতিয়াজ হোসেনকে (১৩) হারানোর পর তাসামুল হককে (৯৮) নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে গড়েছেন ২২২ রানের পার্টনারশিপ। ওদিকে ১০৪ রানে চতুর্থ উইকেট হারানোর পর নাজমুলকে নিয়ে ১৯৭ রানের পার্টনারশিপ গড়া নাঈম সপ্তম উইকেটেও অবিচ্ছিন্ন থেকে যোগ করেছেন ১০৯ রান, সঙ্গী ধীমান ঘোষ (৬৪*)। তাঁর নিজের ২৭৫ বলের ইনিংসটিতে ১৯ বাউন্ডারির সঙ্গে ছক্কার মার একটি।   

দক্ষিণাঞ্চল-পূর্বাঞ্চল

দক্ষিণাঞ্চল : ২৯৬। পূর্বাঞ্চল : ৯৮ ওভারে ২৯০/৪ (আফিফ ১৩৭, তাসামুল ৯৮, অলক ২৬*; নাজমুল অপু ২/৬৯)।

মধ্যাঞ্চল-উত্তরাঞ্চল

মধ্যাঞ্চল : ১৮১। উত্তরাঞ্চল : ১০৯ ওভারে ৪২২/৬ (নাঈম ইসলাম ১৩৩*, নাজমুল শান্ত ১২৩, ধীমান ৬৪*, জুনায়েদ ৪১, জহুরুল ৩৫; শরীফুল্লাহ ২/৬৫, শাহাদাত ২/৯১)।


মন্তব্য