kalerkantho


এক ভারতীয়কেই কৃতিত্ব দিচ্ছেন ও’কিফি

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এক ভারতীয়কেই কৃতিত্ব দিচ্ছেন ও’কিফি

পুনের আগে চারটি টেস্ট খেলেছিলেন স্টিভ ও’কিফি। বাঁ-হাতি এই স্পিনার কোনো সিরিজেই একটির বেশি টেস্ট খেলার সুযোগ পাননি।

১৪ উইকেট নিয়ে পুনে টেস্ট খেলতে নামা সেই ও’কিফিই গড়লেন নতুন ইতিহাস। ৭০ রানে ১২ উইকেট নিয়ে গুঁড়িয়ে দিয়েছেন দেশের মাটিতে ভারতের গত চার বছর ধরে অপরাজিত থাকার গৌরবের মিনার। তাঁর এই পারফরম্যান্স সফরকারী দলের স্পিনারদের মধ্যে ভারতের মাটিতে সেরা। আর সফরকারী বোলারদের মধ্যে দ্বিতীয় সেরা। ১৯৭৯-৮০ মৌসুমে ওয়াংখেড়ে ইয়ান বোথামের ১০৬ রানে ১৩ উইকেটই কেবল ও’কিফির চেয়ে এগিয়ে।

পুনের ঘূর্ণি পিচ নিঃসন্দেহে সাহায্য করেছে ৩২ বছর বয়সী এই স্পিনারকে। তবে তিনি কৃতিত্বটা দিচ্ছেন এক ভারতীয়কেই! এই সিরিজের জন্য শ্রীধরন শ্রীরামকে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ৮ ওয়ানডে খেলা ৪১ বছর বয়সী ভারতীয় এই বাঁ-হাতি স্পিনার টেস্ট খেলেননি কখনো। প্রথম শ্রেণির ১৩৩ ম্যাচেও উইকেট মাত্র ৮৫টি।

সেই শ্রীরামের সঙ্গে দ্বিতীয় দিনের লাঞ্চ বিরতির সময় নেটে কাটানো আধাঘণ্টা বদলে দিয়েছে ও’কিফিকে। লাঞ্চ না করে নেটে শ্রীরামের সঙ্গে কাটানো সময়টার বর্ণনা দিলেন এভাবে, ‘‘জোরে বল করার চেষ্টা করলে বেশি ফুল লেন্থে পড়ছিল। বৈচিত্র্য আনতে নেটে সিম আর আর্ম অ্যাঙ্গেল বদল করে বল করে যাচ্ছিলাম। আপনারা হয়তো খেয়াল করেননি কিন্তু আমার কাছে সব কিছু দ্রুত বদলে যাওয়ার আসল কারণ এটাই। শ্রীরাম উৎসাহ দিয়ে বলতে থাকে ‘যতক্ষণ না স্বাচ্ছন্দ্য পাচ্ছ বল করে যাও। ’ ওর সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাটা অসাধারণ। ’’ ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের কোচ ছিলেন শ্রীরাম। এরপর ছিলেন অস্ট্রেলিয়ান দলের কোচিং স্টাফেও। তখনই তাঁকে পেয়ে বদলে যান একটা সময় ‘পাই চাকার’ পরিচয় পাওয়া ও’কিফি। চোট প্রবণতা থাকা এই স্পিনারের একটা সময় ছিল  বলের উপর নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পারার বদনামও। শ্রীরামের পরামর্শ আর ভারতে আসার আগে দুবাইয়ে ইংল্যান্ডের সাবেক স্পিনার মন্টি পানেসারের অধীনে অনুশীলন করে ভারতকে কাঁপিয়ে দিলেন তিনিই।

দুই ইনিংসেই কাকতালীয়ভাবে ৩৫ রান খরচায় নিয়েছেন ৬টি করে উইকেট। এ জন্য ফিল্ডার আর অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালেন তিনি, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানদের ব্যাটের কানাতেও বল লেগেছিল অনেক। ওরা ক্যাচগুলো নিতে পারেনি যা পেরেছে আমাদের ফিল্ডাররা। প্রথম ইনিংসে স্পিনের চেয়ে বল স্কিড করেছে বেশি। প্রথম ৬ উইকেটকে তাই সাধারণই বলব। এরপর আবারও দ্রুত বদলেছি নিজেকে। ’ ভারতীয় সাবেক তারকা রবি শাস্ত্রীও প্রশংসায় ভাসালেন এই স্পিনারকে, ‘শেন ওয়ার্নের পর কম স্পিনার আসেনি অস্ট্রেলিয়ায়। পুনের সাফল্যে তাদের চেয়ে অনেক এগিয়ে থাকবে ও’কিফি। ও ঘূর্ণি দিয়ে যতটা সমস্যায় ফেলেছে , তার চেয়ে বেশি সমস্যায় ফেলেছে বোলিংয়ের ওপর নিয়ন্ত্রণ রেখে। ’ পিটিআই


মন্তব্য