kalerkantho


মুস্তাফিজের সঙ্গে ফিরলেন রুবেলও

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মুস্তাফিজের সঙ্গে ফিরলেন রুবেলও

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সপ্তাহখানেক আগে মুস্তাফিজুর রহমানের বোলিং নিয়েই শুধু নয়, ফতুল্লায় বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) তৃতীয় রাউন্ডের দক্ষিণাঞ্চল-মধ্যাঞ্চলের ম্যাচ দেখতে যাওয়া প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের মুগ্ধতা ছিল আরেক ফাস্ট বোলারকে নিয়েও। ওই ম্যাচের বোলিং দেখেই তিনি নিশ্চিত করেছিলেন যে মুস্তাফিজের শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়া নিয়ে কোনো সংশয় নেই।

একই সঙ্গে শ্রীলঙ্কা সফরের টেস্ট দলে আরেকজনের ঢুকে পড়ার আভাসও ছিল তাঁর কথায়, ‘মুস্তাফিজ ভালো বোলিং করেছে। তবে এই ম্যাচে আমার কাছে ওর চেয়েও বেশি দুর্দান্ত মনে হয়েছে রুবেল হোসেনকে। ’

মিনহাজুলের সেই মুগ্ধতা থেকে এই ফাস্ট বোলার শ্রীলঙ্কা সফরের জন্য বাংলাদেশের টেস্ট দলে ঢুকে পড়েছেনও। এক সিরিজ পরই টেস্ট দলে ফিরলেন তিনি। নিউজিল্যান্ড সফরের পর ভারতে একমাত্র টেস্টের দলে না থাকা রুবেল ঘরোয়া ক্রিকেটে আগুনঝরা বোলিং দিয়েই আবার জায়গা করে নিলেন। আর পুরো ফিট হলে যে মুস্তাফিজ দলে থাকবেনই, সেটি তো জানা ছিলই। ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁর আবির্ভাবের বছরই চট্টগ্রামে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক। অভিষেকেই ম্যাচসেরা হওয়া মুস্তাফিজের টেস্ট ক্যারিয়ার প্রোটিয়াদের বিপক্ষে বৃষ্টিবিঘ্নিত পরের টেস্ট থেকেই থমকে ছিল। অবশ্য এরপর অনেক দিন বাংলাদেশও টেস্ট খেলেনি।

গত অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দেশের মাটিতে দুই টেস্টের সিরিজ দিয়ে আবার টেস্ট খেলা শুরুর সময় মুস্তাফিজ কাঁধের অস্ত্রোপচারের পর ছিলেন পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যে। নিউজিল্যান্ডে দলের সঙ্গে থাকলেও চোটের অভিযোগ করায় খেলানো হয়নি। ফিটনেস ফিরে পাওয়ার জন্য ভারতে সফরের দলেও না রেখে তাঁকে পাঠানো হয়েছিল বিসিএলে খেলতে। সেখানে দুটি চার দিনের ম্যাচ খেলে ফিটনেসের প্রমাণ দিয়েই তিনি আবার ফিরতে চলেছেন সাদা পোশাক আর লাল বলের ক্রিকেটে।

তবে ফিটনেস নিয়ে নির্বাচকরা এখনো পুরোপুরি সন্তুষ্ট না হওয়ায় এখনই দলে ফেরা হয়নি ইমরুল কায়েসের। ৭ মার্চ থেকে গলে শুরু হতে যাওয়া সিরিজের প্রথম টেস্টের জন্য তিনি বিবেচিত না হলেও সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি এই বাঁহাতি ওপেনারের। মিনহাজুল জানিয়েছেন নিজেকে ফিট প্রমাণ করতে পারলে ১৫ মার্চ থেকে কলম্বোর পি সারা ওভালে শুরু হতে যাওয়া বাংলাদেশের শততম টেস্টের দরজা ইমরুলের জন্য খোলাই থাকবে, ‘ইমরুল আমাদের অভিজ্ঞ একজন খেলোয়াড়। দুর্ভাগ্যবশত হায়দরাবাদ গিয়ে ও চোট পেয়েছে। ফিটনেসের জন্য ওকে আমরা দুটি রাউন্ডে (বিসিএলের) দেখব। ১ মার্চ ওর দ্বিতীয় রাউন্ড শেষ হবে। দুই দিন বিশ্রাম নেওয়ার পর ৪ মার্চ ফিটনেস পরীক্ষা দেবে। ওর অবস্থা যদি ভালো থাকে সে ক্ষেত্রে দ্বিতীয় টেস্টের জন্য ওকে আমরা দলে নেব। ’ তাতে গতকাল দুপুরে ঘোষিত ১৬ জনের দলটি ১৭ জনের হয়ে গেলেও কোনো সমস্যা দেখছেন না প্রধান নির্বাচক, ‘সে ক্ষেত্রে স্কোয়াডটা দাঁড়াবে ১৭ জনের। লম্বা সফর বলে নিউজিল্যান্ডেও আমরা বাড়তি কিছু খেলোয়াড় নিয়ে গিয়েছিলাম। আর ইমরুল তো ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টিতেও আমাদের বিবেচনায় আছে। কাজেই ওকে যোগ করতে কোনো অসুবিধা হবে না আমাদের। ’

ইমরুল নেই বলেই আপাতত ব্যাকআপ ওপেনার বলেও ভাবা হচ্ছে দলের দ্বিতীয় উইকেটরক্ষক লিটন কুমার দাশকে। তাঁর মতোই ভারতে একমাত্র টেস্টের দলে থাকা পেসার শফিউল ইসলাম বাদ পড়েছেন কোনো ম্যাচ না খেলেই। তাঁকে বাদ দেওয়া এবং রুবেলকে নেওয়ার ব্যাখ্যা মিনহাজুল দিয়েছেন এক সঙ্গেই, ‘হায়দরাবাদে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সময় শফিউলের পেটের পেশিতে একটু সমস্যা হয়েছে। আমরা ওর ফিটনেস নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট নই। আর রুবেল বিসিএলে তিন ম্যাচ খেলেছে এবং সেখানে খুব ভালো বোলিংও করেছে। ’ তাতে মুস্তাফিজের পাশাপাশি দলে ফিরেছেন রুবেলও। আর আগে থেকেই দলে আছেন তাসকিন আহমেদ, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও শুভাশীষ রায়। শ্রীলঙ্কার গরম ও উইকেটের পাশাপাশি বাংলাদেশের পেসারদের ফিটনেস নিয়ে অনিশ্চয়তাও দলে পাঁচ পেসার রাখার সিদ্ধান্তে ভূমিকা রেখেছে বলে জানিয়েছেন মিনহাজুল, ‘পাঁচজন পেসার নেওয়ার পেছনে যুক্তিও আছে। আমাদের দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচও আছে। আমাদের রবিউলকে (ইসলাম) নিয়ে বাজে একটি অভিজ্ঞতা ছিল। প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার পর টেস্টের প্রথম দিন থেকেই ওর সমস্যা হচ্ছিল। তা ছাড়া শ্রীলঙ্কার গলে ঘাসের উইকেটও থাকতে পারে। ওরা স্পোর্টিং উইকেট দিলে হয়তো তিন পেসার নিয়েও খেলতে হতে পারে। এখানে বসে বলা সম্ভব নয় যে আমরা কোন ধরনের উইকেট পাচ্ছি। আমরা চেষ্টা করেছি সব কিছু বিবেচনা করেই দলটি বানাতে। ’


মন্তব্য