kalerkantho


কিপিং নিয়ে কথা হবে মুশফিকের সঙ্গে

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কিপিং নিয়ে কথা হবে মুশফিকের সঙ্গে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : তাঁর তিনটি দায়িত্বের একটিও আরেকটির চেয়ে কম গুরুত্ব পাওয়ার মতো নয়। একেই মুশফিকুর রহিম বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং নির্ভরতার প্রতীক। সেই সঙ্গে টেস্ট দলের অধিনায়ক হওয়ায় সারাক্ষণ দলীয় ভাবনার গভীরেও ডুবে থাকতে হয় তাঁকে। তার ওপর উইকেট আগলানোর দায়িত্বও কখনো কখনো খুব ক্লান্তিকর বলে মনে হয়। ভারতের বিপক্ষে হায়দরাবাদ টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে উইকেট ছুড়ে দিয়ে আসার ক্ষেত্রে লম্বা সময় উইকেটকিপিং করার ভূমিকাও আছে বলে মনে করে থাকেন অনেকে। এবং সেটি খুব অস্বাভাবিকও নয়। প্রথমে ১৬০ ওভার কিপিং করেছেন। এরপর লম্বা সময় ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরি করা মুশফিককে আরেকবার কিপিংয়েও নেমে পড়তে হয়েছে।

এই তিন দায়িত্ব সামলাতে গিয়ে কোনো একটির মান আবার পড়ে যাচ্ছে না তো? এই প্রশ্ন ক্রমেই উচ্চকিত হয়ে চলেছে। কারণ তাঁর উইকেটকিপিং নিয়ে প্রশ্ন আরো আগে থেকেই। এবার হায়দরাবাদ টেস্টে ঋদ্ধিমান সাহাকে সহজ স্টাম্পিংয়ের সুযোগ মিস করার পর থেকে তো তীব্র সমালোচনা হয়েই চলেছে।

দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিতে দলকে লড়াইয়ে রাখার পরেও যা নিয়ে আলোচনা থেমে নেই। অন্তত উইকেটকিপিংটা ছেড়ে দিয়ে নিশ্চিন্তে অন্য দায়িত্ব পালনের পক্ষে মতও আছে অনেকের। এমনকি খোদ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডেই (বিসিবি) এই মতের অনুসারীর সংখ্যা কম নয়। কারণ হায়দরাবাদ টেস্ট চলাকালীন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানই বলেছিলেন যে উইকেটকিপিংই শুধু নয়, তাঁদের আলোচনায় উঠবে মুশফিকের নেতৃত্বও। যদিও অধিনায়কোচিত ইনিংসে এ যাত্রায় নেতৃত্ব উতরে গেলেও যায়নি উইকেটকিপিংটা।

সেটি নিয়েই শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার আগে মুশফিকের সঙ্গে কথা বলা হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির প্রধান আকরাম খানও। বাংলাদেশ দলের সাবেক এ অধিনায়ক গতকাল বলেছেন, ‘সবশেষ টেস্টই যদি দেখেন, মুশফিককে প্রায় পুরো সময়ই মাঠে থাকতে হয়েছে। ১৬০ ওভার কিপিং করে আবার লম্বা সময় ব্যাটিং করে সেঞ্চুরিও করেছে। এরপর আবার ছুটতে হয়েছে কিপিংয়ে। সব মিলিয়ে কাজটা কঠিনই। ’ সেই কঠিন কাজটি কিছুটা হালকা করা যায় কি না, তা নিয়েই কথা বলতে চান আকরাম, ‘এখন মুশফিক ছুটিতে আছে। কয়েক দিন একটু রিল্যাক্স করুক। আমাদের হাতে তো এখনো সময় আছে (শ্রীলঙ্কা যাওয়ার আগে)। আমরা ওর সঙ্গে বসব, আলাপ করে দেখব কী হয়। যেটা ভালো হয়, আমরা সেটাই করব। ’ তবে মুশফিকের ওপর যে কোনো কিছু চাপিয়ে দেওয়া হবে না, সেটিও নিশ্চিত করতে চেয়েছেন আকরাম। মুশফিকের মতামতকে প্রাধান্য দেওয়ার কথা জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘ওর মতামতটা আমাদের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। ও নিজে যদি মনে করে যে তিনটি কাজ করলে ক্লান্তি আসে বা মনোযোগে ব্যাঘাত ঘটে, তাহলে তো আমরা যা করণীয় করবই। কিন্তু ও নিজে কী চাচ্ছে, সেটি দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ওর কথা না শুনে এখনই কিছু বলা আমাদের ঠিক হবে না। ’ মুশফিকের কথা শুনলে অবশ্য তিনটি দায়িত্বেই দেখা যাবে তাঁকে। কারণ ভারতেই মুশফিক বলে দিয়ে এসেছেন যে, ‘আমার কাজ হলো তিনটি দায়িত্বই ভালোভাবে পালন করা। আমি যদি ভালো করতে না পারি, তাহলে বোর্ড যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। তবে আমি তিনটি দায়িত্বই উপভোগ করছি। কারণ আমি মাঠে থাকতে ভালোবাসি। আমার মাঠে সময় কাটানোর উপায় হলো সেখানে দায়িত্ব পালন করা, ড্রেসিংরুমে বসে নয়। আমি আমার সব দায়িত্ব ভালোবাসি। তার পরও পছন্দ না হলে সিদ্ধান্ত নেওয়ার লোক আছে বাইরে। তবে আমাকে ব্যক্তিগতভাবে জিজ্ঞেস করলে বলব, আমি তিনটিই দারুণ পছন্দ করি। ’


মন্তব্য