kalerkantho


আবারও উজ্জ্বল আবু জায়েদ

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ক্রীড়া প্রতিবেদক : দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচটিই খেলতে শুধু ভারত সফরে যাওয়ার আগে নিজের সবশেষ চারটি ফার্স্ট ক্লাস ম্যাচে ২৮ উইকেট নিয়েছিলেন আবু জায়েদ রাহি। ফিরে এক ম্যাচ পরেই আবার চেনা ছন্দে এই পেসার।

এবার ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চলের হয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট, যা ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ফার্স্ট ক্লাস আসর বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচে কোণঠাসা করেছে কোণঠাসা করেছে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চলকেও। আবু জায়েদের বোলিংয়ে ৭৫ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে বসা দলটি অবশ্য শুভাগত হোম (৪৬) এবং নুরুল হাসানের (৬৫) বিপর্যয় সামলে উঠেও দিনের শেষে ভালো অবস্থায় নেই। ফতুল্লায় বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা প্রথম দিন শেষ করেছে ৭ উইকেটে ২৩২ রান নিয়ে।

তুলনায় বিকেএসপিতে তুষার ইমরানের হার না মানা সেঞ্চুরি এবং শাহরিয়ার নাফীসের অপরাজিত ফিফটিতে প্রথম দিনের শেষে ভালো অবস্থায়ই আছে প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল। বিসিবি উত্তরাঞ্চলের বিপক্ষে তাঁরা ৩ উইকেটে ২৯২ রান নিয়ে দিন শেষ করেছে। এই ম্যাচে অবশ্য দক্ষিনাঞ্চলের শক্তি বেড়ে গিয়েছিল বহুলাংশে। কারণ এই ম্যাচে যে তাঁদের হয়ে নেমেছিলেন জাতীয় দলের ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারও। এই দু’জনের ব্যাট থেকে অবশ্য বড় ইনিংস আসেনি। ইমরুল ৭৮ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৩১ রান করে বিদায় নেন।

সৌম্য ৫৮ বলে ৪ বাউন্ডারিতে করে যান ২৬ রান। এর আগে অন্য ওপেনার এনামুল হকও (৩৯) শুরু পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি। দলকে ১৩৪ রানে রেখে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ইমরুলের বিদায়ের পর অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে ১৫৮ রান যোগ করেছে তুষার-নাফীস জুটি। ২৩৪ বলে ১৪ বাউন্ডারি ও দুই ছক্কায় ১২৭ রানে অপরাজিত তুষারের সঙ্গী নাফীসও দিনশেষে ৫০ রানে অপরাজিত। ১২৭ বলের ইনিংসে তিনটি বাউন্ডারির সঙ্গে আছে একটি ছক্কার মারও। কাল এঁরা ব্যাট হাতে উজ্জ্বল হয়ে থাকলে বোলিংয়ে সেটি ছিলেন আবু জায়েদ, ৪ উইকেট নিতে যাঁর খরচ ৫২ রান।


মন্তব্য