kalerkantho


বার্সাকে অভয় দিচ্ছেন সুয়ারেস

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বার্সাকে অভয় দিচ্ছেন সুয়ারেস

ইতিহাসে প্রথমবারের মতো লা লিগায় উঠে আসা একটি দল, যারা পয়েন্ট টেবিলের ১৭ নম্বরে; তাদের বিপক্ষে নিজের মাঠে খেলতে নামার আগে বার্সেলোনার অন্তত দুশ্চিন্তা হওয়ার কথা নয়। ধারে কিংবা ভারে, কোনোভাবেই তো বার্সেলোনার আশপাশেও পড়ে না লেগানেস। তবে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লেগানেস তো ছায়া সৈনিক! মঙ্গলবার প্যারিসের হরর শো যে এখনো তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে কাতালানদের। সেই দুঃস্বপ্ন কাটিয়ে ওঠার ঝড়-ঝাপটায় কী হয় লেগানেসের, সেটাই দেখার অপেক্ষা।

শুক্রবার ছিল ‘লিব্রে সলিডারি’র ১২তম সংস্করণের প্রকাশনা অনুষ্ঠান। স্পেনের ক্রীড়া সাংবাদিকদের নির্বাচিত লেখা নিয়ে প্রতিবছর প্রকাশিত হয় এই বই, যার আয় অনুদান হিসেবে যায় শিশুদের চিকিৎসায়। সেই অনুষ্ঠানেই অতিথি হিসেবে যাওয়া লুই সুয়ারেসকে অনেক প্রশ্নেরই উত্তর দিতে হয়েছে প্যারিস সেন্ত জার্মেইর কাছে ৪-০ গোলের হার নিয়ে। সুয়ারেস বলছেন, এখনো আশা হারাননি তারা, ‘মনের অবস্থা জটিল, যেকোনো হারেই তো কষ্ট লাগে। তবে বার্সা এমন একটা দল যারা যেকোনো সময় যেকোনো পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়াতে পারে। ’ কোচ লুই এনরিকে দায়টা নিজের মনে করলেও খেলোয়াড়দের সবার পক্ষে সুয়ারেস দায়টা নিজেদের কাঁধেই নিলেন, ‘আমরা সবাই-ই এর জন্য দায়ী, জিতলে যেমন কৃতিত্ব আমাদেরই তেমনি হারেও দায় আমাদের। ’ দুই সপ্তাহ পর পিএসজি আসবে ন্যু ক্যাম্পে খেলতে।

তার আগে উরুগুয়ের এই ফরোয়ার্ড জাতীয় দলে তাঁর স্ট্রাইকিং পার্টনার এদিনসন কাভানির দলকে একটা স্পষ্ট বার্তাই দিয়ে রাখতে চান, ‘বার্তাটা খুব স্পষ্ট। আমাদের নিজেদের ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে। ইতিহাসের পাশা পালটে দিয়ে খেলার ফল আমাদের দিকে নিয়ে আসতে হবে। জানি সেটা খুবই কঠিন, তবে ফুটবলে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়। ’ তাঁর কণ্ঠে পার্ক দ্য প্রিন্সেসে যা হয়ে গেছে সেটাই অতিথিদের ফিরিয়ে দেওয়ার দৃঢ়তা, ‘অবস্থাটা যে কী দলের সবাই সেটা ভালোভাবেই জানে। আমরা জানি ঠিক কী করতে হবে আমাদের। এখন চারদিকে প্রশংসা বা সমালোচনা যা-ই হচ্ছে না কেন এসবে খুব বেশি কান দেওয়া যাবে না। এখন আমাদের একতাবদ্ধ থাকতে হবে। ’ লেগানেসের ম্যাচকে সামনে রেখে শনিবার স্থানীয় সময় সকালে নিজেদের সবশেষ অনুশীলন সেশন শেষ করেছে বার্সেলোনা। পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে মাঠে ছিলেন হাভিয়ের মাসচেরানো। সের্হিয়ো বুশকেত্জ এই ম্যাচে খেলছেন না নিষেধাজ্ঞার কারণে।

বার্সেলোনার কোচের চেয়ারে লুই এনরিকের উত্তরসূরি কে, এই নিয়ে ফিসফাস শোনা যাচ্ছে বেশ কদিন ধরেই। বেশ কিছু পত্রপত্রিকার রিপোর্ট, ৪-০তে হারের পর মেসি নিজেই নাকি পেপ গার্দিওলাকে ফোন করে ফের এসে হাল ধরতে অনুরোধ করেছেন। মেসি বলেছেন কি বলেননি, সেটা অবশ্য খোলাসা করেননি গার্দিওলা তবে জানিয়েছেন ফেরার আশা নেই, ‘না, কখনোই না। কোচ হিসেবে আমি আর কখনোই বার্সেলোনায় ফিরে যাব না। সেখানে আমার সময় শেষ। ’ প্যারিসের ম্যাচের ফল অবশ্য জানা আছে গার্দিওলার, হাডারসফিল্ডের সঙ্গে এফএ কাপের ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনেও উঠে আসল সেই প্রসঙ্গ, ‘বার্সেলোনা এখনো বিশ্বের সেরা দল। তারা সব সময়ই চমক দেখাবে কারণ দলে অনেক অনেক ভালো ফুটবলার। যেকোনো কিছুই হতে পারে। প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা কঠিন, প্রতিপক্ষও শক্তিশালী। এমন অবস্থায় হয় বড় জয় আসবে অথবা বড় ব্যবধানে হার কপালে জুটবে। এমনটা হতেই পারে এবং আমার সঙ্গেও হয়েছে। তবে এখনো ৯০ মিনিটের খেলা বাকি আর যেকোনো কিছুই হতে পারে। এফসিবি, ডেইলি মেইল


মন্তব্য