kalerkantho


পগবা ভাইদের উপভোগের রাত

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পগবা ভাইদের উপভোগের রাত

দুই ভাইয়ের মিল কয়েক জায়গায়। ক্যারিয়ার গড়েছেন ফুটবলে। ভালোবাসেন নাচতে। এমনকি চুলের ছাঁটও একই রকম বিশ্রী! এ পর্যন্তই। খ্যাতিতে ছোট ভাই পল পগবার ধারেকাছেও নেই ফ্লোরেন্তিন পগবা। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পল পগবা বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। আর ফ্লোরেন্তিন পগবা ফরাসি দল সেন্ত এতিয়েঁর লেফট ব্যাক। ইউরোপা লিগের শেষ ৩২-এর প্রথম লেগে গত পরশু ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে মুখোমুখি হয়েছিলেন তাঁরা। তাতে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছিলেন তাঁদের মা ইয়েও পগবা ও আরেক ভাই ম্যাথাইয়াস পগবা। কাকে সমর্থন করবেন তাঁরা?

সমাধানটাও বের করেছিলেন বেশ। ভিআইপি গ্যালারিতে ম্যানইউর বিখ্যাত লাল আর এতিয়েঁর সবুজ মিলিয়ে বিশেষ জার্সি পরে এসেছিলেন তাঁরা।

লিখেছিলেন পল ও ফ্লোরেন্তিনের দুটি জার্সি নম্বরই।   জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের প্রথম গোলের পর ক্যামেরা চেষ্টা করেও ধরতে পারেনি তাঁদের। তবে মাঠে যখনই সামনাসামনি পড়েছেন হেসেছেন পল আর ফ্লোরেন্তিন। মাঠে নামার আগেও টানেলে মজা করে দুজন। ম্যাচ শেষে তাঁদের প্রাণখোলা হাসি দেখে বোঝার উপায় নেই কোন দল জিতেছে আর হেরেছেই বা কারা? ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ৩-০ গোলে জয়ের পর পুরো পরিবার নিয়ে ম্যানচেস্টার সিটি সেন্টারের একটি চায়নিজ রেস্টুরেন্টে যান পল পগবা। আর ম্যানইউ টিভিকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে জানান, ‘পুরো ব্যাপারটা ম্যাজিকের মতো ছিল আমার কাছে। বলে বোঝাতে পারব না কেমন লাগছিল। ওকে বিপক্ষ দলের জার্সিতে দেখে বিশ্বাসই হচ্ছিল না আমার! দুজনই শুধু হাসছিলাম আর বলছিলাম ম্যাচে যা-ই হোক উপভোগ করব আমরা। ’

আরেক ভাই ম্যাথাইয়াস পগবাও ফুটবলার। তিনি খেলেন ডাচ লিগের ছোট দল স্পার্তা রতারদামে। পল আর ফ্লোরেন্তিনের ম্যাচ দেখে আবেগী তিনিও, ‘কখনই ভাবিনি আমরা ভাইয়েরা একে অন্যের বিপক্ষে খেলব। ভাগ্যিস এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হয়নি আমাকে। ’ ক্লাবের মতো পগবা ভাইদের জাতীয় দলও আলাদা। পল পগবা ফ্রান্সের মধ্যমাঠের নয়নের মণি। ফ্লোরেন্তিন আর ম্যাথাইয়াস মা-বাবার জন্মভূমি গিনির খেলোয়াড়। ডেইলি মেইল


মন্তব্য