kalerkantho


শুরু হচ্ছে রোল বল বিশ্বকাপ

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



শুরু হচ্ছে রোল বল বিশ্বকাপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রোল বল বিশ্বকাপ হবে ঢাকায়! এ কথায় যুগপৎ বিস্ময় ও জিজ্ঞাসা আছে। প্রথমত, রোল বল নামের খেলাটা সম্পর্কেই তো দেশের নিরানব্বই ভাগ লোক জানে না।

এমন অজানা-অচেনা এক খেলার আবার বিশ্বকাপ, স্বাভাবিক কারণেই উৎসাহী লোকের সংখ্যা কম। তবে এটাকে ঠিক উল্টো করে ভাবেন আয়োজকরা, আগ্রহ-উৎসাহ বাড়ানো এবং খেলাটিকে জনপ্রিয় করার জন্য তারা ঢাকায় আয়োজন করছে রোল বল বিশ্বকাপ। ৪০টি দেশের অংশগ্রহণে আগামীকাল শুরু হয়ে বিশ্বকাপ শেষ হবে ২৩ তারিখ ফাইনাল দিয়ে।

পল্টন ময়দানের আশপাশের লোকজন অবশ্য মাস দুয়েক আগে থেকে টের পেয়েছিল নতুন স্থাপনা নির্মাণকাজের সুবাদে। ১১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স। এ ছাড়া মিরপুর ক্রীড়া পল্লী, সুইমিং কমপ্লেক্স, সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স এবং বাফুফে ভবনের আবাসন ব্যবস্থা উন্নত করতে খরচ হয়েছে অনেক। কমপ্লেক্সের ওপরে বসানো হয়েছে ২০০ কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সোলার প্ল্যান্ট। সব মিলিয়ে ২২ কোটি ২৫ লাখ টাকার এক বিশাল কমর্যজ্ঞ শেষে আগামীকাল থেকে শুরু হচ্ছে রোল বল বিশ্বকাপ। ক্রিকেটের পর এ দেশে হবে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ! সেদিক থেকে আয়োজকরা গর্ব করতেই পারেন।

সংবাদ সম্মেলনে রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেছেন সম্ভাবনার কথা, ‘এই খেলাটা নতুন। মাত্র ১২ বছর আগে এর জন্ম হয়েছে, জনপ্রিয় করতে পারলে আমাদের সম্ভাবনা আছে এই খেলায়। বলা যায়, ভলিবল ও হ্যান্ডবলের মিশেলে তৈরি খেলাটি স্কেটিং করে খেলতে হয়। সাত দিন ধরে এই টুর্নামেন্ট চলাকালীন আমরা দর্শকদের আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, বুঝতে শুরু করলে খেলাটা ভালো লাগবে। ’

বাংলাদেশে এই খেলার চর্চাটা সীমিত ছিল ধানমণ্ডি উডেন ফ্লোরে। সেখানেই খেলা এবং প্র্যাকটিস। এত দিন না হয় অলক্ষ্যে কেটেছে তাদের রোল বল নৈপুণ্য। এবার বিশ্বকাপে স্বাগতিক হওয়ার সুবাদে তাদের পারফরম্যান্সও তো বিচার্য বিষয়। ফেডারেশন সম্পাদক আহমেদ আসিফুল হাসানের জবাব, ‘আমরা আগের চেয়ে ভালো করতে চাই। এটা আমাদের জন্য দ্বিতীয় বিশ্বকাপ, এ উপলক্ষে দুই মাস ধরে প্র্যাকটিস চলছে দলের। ’ খেলাটির চতুর্থ বিশ্বকাপ আসর এটি, পুনেতে অনুষ্ঠিত তৃতীয় আসরে প্রথম অংশ নেয় বাংলাদেশ এবং সেখানে সপ্তম হয়েছিল। পুরুষ ও মহিলা দল মিলিয়ে মোট ৪০টি দেশ অংশ নিচ্ছে এবার। প্রত্যেক গ্রুপে পাঁচটি করে দল রেখে আটটি গ্রুপে খেলা হবে। এরপর প্রত্যেক গ্রুপের দুটি শীর্ষ দল যাবে শেষ ১৬ তে, তারপর কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনাল ও ফাইনাল। খেলা হবে নবনির্মিত শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স ছাড়াও মিরপুর ইনডোর এবং হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব আখতার উদ্দিন আহমেদ, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ সচিব অশোক কুমার বিশ্বাসসহ ফেডারেশনের অন্য কর্মকর্তারা।


মন্তব্য