kalerkantho


বার্নাব্যুতে থাকবেন ম্যারাডোনাও

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বার্নাব্যুতে থাকবেন ম্যারাডোনাও

তিন দশক আগে, নাপোলির সঙ্গে রিয়াল মাদ্রিদের চ্যাম্পিয়নস লিগে শেষবারের দেখার সময় ডিয়েগো ম্যারাডোনা ছিলেন পুরোদস্তুর খেলোয়াড়। নাপোলির অধিনায়ক ছিলেন ১৯৮৬-র বিশ্বকাপজয়ী।

এ মৌসুমে আবার যখন এই দুই দল মুখোমুখি হতে যাচ্ছে, তত দিনে খেলোয়াড়ি জীবনের পাট চুকিয়ে ফেলেছেন আর্জেন্টাইন ফুটবল ঈশ্বর। ফিফার দূত হওয়াটাই বলা চলে ফুটবলের সঙ্গে তাঁর এখন একমাত্র যোগসূত্র। কোচিং বা ফুটবল প্রশাসন, এসবের কোনো সংশ্লেষ নেই তাঁর জীবনে। তবু দলটা যখন নাপোলি আর প্রতিপক্ষ রিয়াল মাদ্রিদ, তখন কী করে মাঠে না গিয়ে থাকেন ম্যারাডোনা! আজ রাতে রিয়ালের মাঠ বার্নাব্যুতে চ্যাম্পিয়নস লিগের নক আউট পর্বের খেলার প্রথম লেগে মাঠে থাকবেন ম্যারাডোনা, অংশ নেবেন বিশেষ ভোজসভায়ও। গতকাল বান্ধবীকে নিয়ে ঘুরেও দেখেছেন মাদ্রিদ শহরটা। দুজনের ভ্যালেন্টাইনস ডে উদ্যাপনের অন্তরঙ্গ কিছু ছবিও ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করেছেন বান্ধবী রোসিও অলিভা।

১৯৮৭-৮৮ মৌসুমে রিয়ালের মাঠে নাপোলি খেলেছিল দর্শকহীন গ্যালারিতে। নিষেধাজ্ঞার কারণেই সেবার ম্যারাডোনার খেলা দেখতে স্টেডিয়ামে আসা হয়নি দর্শকদের। ম্যাচটা অবশ্য ২-০ গোলে হারতে হয়েছিল ম্যারাডোনার দলকে।

আজকের ম্যাচেও ফেভারিট রিয়াল। লা লিগায় দুই ম্যাচ হাতে রেখে বার্সার চেয়ে তারা এগিয়ে ১ পয়েন্টে। তার পরও ম্যাচটা একতরফা হবে না বলেই বিশ্বাস ম্যারাডোনার, ‘আগে থেকে যদি ম্যাচের ফলের কথা বলতে পারতাম তাহলে ফুটবলার হতাম না নিশ্চয়ই! তবে এটুকু বলতে পারি, উপভোগ্য ম্যাচই হতে যাচ্ছে। দুটি দলই বেশ শক্তিশালী। ’

ঐতিহাসিকভাবে স্প্যানিশ উপদ্বীপের বাসিন্দাদের মধ্যে জুভেন্টাস ও নাপোলিপ্রীতি আছে। বিশ্বযুদ্ধ-পরবর্তী সময়ে স্পেনের অনেকেই অভিবাসন করেছে ইতালির শিল্পোন্নত অঞ্চলে। তাই সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতেও নাপোলি সমর্থক কম পড়বে না বলেই ধারণা নেপলসের মেয়রের। তিনি নিজেও আসছেন খেলা দেখতে। সফরকারী প্রতিপক্ষের জন্য তিন হাজার ৯১৭টি টিকিট বরাদ্দ রেখেছে বার্নাব্যু কর্তৃপক্ষ। গোল, মার্কা


মন্তব্য