kalerkantho


রিয়ালের মাঠে নাপোলি

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রিয়ালের মাঠে নাপোলি

সেল্তাভিগোর কাছে হেরে বিদায় হয়েছে কোপা দেল রে থেকে। লা লিগার শীর্ষে এখনো রয়েছে বটে; কিন্তু হারতে হয়েছে সেভিয়ার কাছে। ২০১৭ সালের শুরুটা আক্ষরিক অর্থেই সুবিধার হয়নি রিয়াল মাদ্রিদের। কিন্তু স্প্যানিশ লিগ, কাপের চেয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ যে তাদের কাছে একেবারে ভিন্ন প্রতিযোগিতা! এখানকার সর্বকালের সফলতম দল তারা, বর্তমান চ্যাম্পিয়নও। আজ নাপোলির বিপক্ষে শেষ ষোলোর প্রথম লেগের আগে রিয়াল মাদ্রিদের তাই আত্মবিশ্বাসীই থাকার কথা।

ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর আত্মবিশ্বাসেও ঘাটতি থাকার কথা নয়। ফিফা বর্ষসেরার ‘দ্য বেস্ট’ এবং ব্যালন ডি অর জিতে গ্রহের শ্রেষ্ঠ ফুটবলারের মুকুট এখন তাঁর। কিন্তু রিয়ালের মতো রোনালদোরও তো নতুন বছরের শুরুটা খুব ভালো হয়নি! আর চ্যাম্পিয়নস লিগের এ মৌসুমের ফর্মেও নেই সামর্থ্যের প্রতিফলন। ৬ ম্যাচে করেছেন মোটে ২ গোল, লিওনেল মেসির যেখানে ৫ ম্যাচে ১০ লক্ষ্যভেদ। তবু লড়াইটা শেষ ষোলোর বলে ইতিহাস থেকে রোনালদোর প্রেরণা নেওয়ার আছে অনেক। রিয়াল মাদ্রিদের জার্সিতে টুর্নামেন্টের এই পর্যায়ে ১৫ গোল রয়েছে যে তাঁর।

আর মেসির আগে চ্যাম্পিয়নস লিগে গোলের সেঞ্চুরি পূরণের হাতছানিও তো রয়েছে। ৯৫ গোল নিয়ে সবার ওপরে এখনো তিনি, বার্সেলোনার প্রতিদ্বন্দ্বী মোটে ২ গোল পেছনে। নাপোলির বিপক্ষে বার্নাব্যুতে আজ জ্বলে ওঠার মঞ্চটা প্রস্তুত রোনালদোর জন্য।

ইতালিয়ান ক্লাবটি নিজেদের খানিকটা দুর্ভাগা ভাবতে পারে। চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম পর্বে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েও রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে বলে। কারণ ‘লস ব্লাঙ্কো’রা আবার বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের পেছনে থেকে হয়েছে গ্রুপ রানার্স আপ। যে কারণে নক আউট পর্বের শুরুতেই সামনাসামনি রিয়াল-নাপোলি। প্রথম লেগের খেলাটিও হচ্ছে বার্নাব্যুতে। মহাদেশীয় প্রতিযোগিতায় এর আগে একবারই মুখোমুখি হয় দল দুটি। ১৯৮৭-৮৮ ইউরোপিয়ান কাপের দ্বৈরথে ইতালিয়ান ক্লাবকে ছিটকে দেয় স্প্যানিশ দলটি। সর্বশেষ ছয় মৌসুমে অন্তত সেমিফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছানো রিয়াল এবারও নিঃসন্দেহে ফেভারিট। যদিও ইতালিয়ান ক্লাবগুলোর বিপক্ষে নক আউট পর্বের সর্বশেষ আট দ্বৈরথের মধ্যে সাতবারই বিদায়ঘণ্টা বেজেছে রিয়ালের।

আশির দশকে ইতালিয়ান ক্লাব উদিনেসেতে খেলা জিকোর মাথায় হয়তো এ পরিসংখ্যান রয়েছে প্রচ্ছন্নে। এই ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি তাই রিয়াল-নাপোলি ম্যাচে চমকের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না, ‘এমন ম্যাচে যেকোনো কিছু হতে পারে। নাপোলির কিছু ম্যাচ আমি দেখেছি। ওরা ভালো দল, খেলেও ভালো। গতি দিয়ে চাপ তৈরি করে ওরা রিয়ালকে চমকে দিতে পারে। এ জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ভয়ডরহীন খেলা। যদিও বার্নাব্যুতে খেলা প্রতিপক্ষের জন্য সব সময় ভীতিকর। ’ স্প্যানিশ ক্লাবটির সবচেয়ে ভয়ংকর খেলোয়াড়কে বেছে নিতে অবশ্য দুইবার ভাবতে হয়নি জিকোকে, ‘নাপোলির কিছুতেই উচিত হবে না রোনালদোকে কোনো জায়গা দেওয়া। মুহূর্তের জন্য যদি ওর ওপর থেকে চোখ সরিয়ে নেওয়া হয়, তাহলে এর জন্য ও ভুগিয়ে ছাড়বে। ’

বিবর্ণ ২০১৭-তে ইনজুরিও বড্ড ভোগাচ্ছে রিয়ালকে। যদিও এ ম্যাচের আগে জিনেদিন জিদান রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে। এক গ্যারেথ বেল ছাড়া অন্য সবাই যে ফিট! সেরা একাদশ নিয়েই আজ তাই নাপোলির মুখোমুখি হচ্ছে চ্যাম্পিয়নস লিগের সফলতম দলটি।

সফলতম বলেই রিয়াল মাদ্রিদের ম্যাচে মনোযোগ বেশি। তবে আজকের ‘বড় ম্যাচ’ কিন্তু অন্যটি, বায়ার্ন মিউনিখ-আর্সেনালের। এখানে ইংলিশ ক্লাবটির দুঃখ নাপোলির মতো। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েও যে বায়ার্নের মতো পরাশক্তির সামনে পড়তে হচ্ছে তাদের! চ্যাম্পিয়নস লিগে ঘরের মাঠ আলিয়াঞ্জ আরেনায় সর্বশেষ ১৫ ম্যাচেই জেতে জার্মান ক্লাবটি। এই একটি পরিসংখ্যানই তো আজকের প্রথম লেগে বায়ার্নকে এগিয়ে রাখার জন্য যথেষ্ট। সঙ্গে যোগ করুন দুই দলের সর্বশেষ লড়াইটির ফল। গত বছর গ্রুপ পর্বের খেলায় ৫-১ গোলে জিতেছিল বায়ার্ন। আজকের লড়াইয়ে স্পষ্ট ফেভারিট কে, বুঝতেই পারছেন।

ফর্মেও এগিয়ে কার্লো আনচেলত্তির দল। জার্মান লিগের শীর্ষে রয়েছে তারা। অন্যদিকে ইংলিশ লিগে ৪ নম্বরে পড়ে রয়েছে আর্সেনাল। সর্বশেষ তিন ম্যাচের মধ্যে দুটিতে হেরে শিরোপা লড়াই থেকে একরকম ছিটকে পড়েছে। চ্যাম্পিয়নস লিগেও পড়ল বায়ার্নের সামনে। ইনজুরির কারণে ফ্রাঙ্ক রিবেরি ও জেরোম বোয়াটেং খেলতে পারছেন না আজ। তবু আলিয়াঞ্জ আরেনা থেকে আজ ‘গানার’রা জয় নিয়ে ফিরলে সেটিকে অঘটনের ব্রাকেটবন্দি করতেই হবে। এএফপি, গোল ডটকম


মন্তব্য