kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

এবার টুর্নামেন্টটা অনেক প্রতিন্দ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে

দুয়ারে কড়া নাড়ছে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্ট। আয়োজক চট্টগ্রাম আবাহনীর জন্য এটা খুবই মর্যাদাপূর্ণ। আয়োজনগত দিক ছাড়াও তারা বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। শিরোপা ধরে রাখতে অন্যান্য দল থেকে নিয়েছে দেশি-বিদেশি অনেক ফুটবলার। নতুন কোচ সাইফুল বারী টিটুর অধীনে ট্রেনিং করা দলটি কী অবস্থায় আছে এবং কী তাদের লক্ষ্য সেসব জানতেই কালের কণ্ঠ স্পোর্টস মুখোমুখি হয়েছে দলের ডিফেন্ডার নাসির উদ্দিন চৌধুরীর

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এবার টুর্নামেন্টটা অনেক প্রতিন্দ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : শেখ কামাল টুর্নামেন্টের প্রস্তুতি কেমন হচ্ছে আপনাদের?

 

নাসির উদ্দিন চৌধুরী : আমরা আসলে এখনো দল হয়ে প্র্যাকটিস করতে পারিনি। প্র্যাকটিস আগে শুরু হলেও আমাদের বেশ কিছু খেলোয়াড় নৌবাহিনীতে আছে, তাদের খেলা ছিল মাগুরায়। তা ছাড়া জাতীয় দলে আমরা যারা খেলি, তাদের বিকেএসপিতে স্পেশাল ফিটনেস ট্রেনিং হয়েছে। তাই কোচ টিটু ভাই পুরো দলটাকে একসঙ্গে নিয়ে প্র্যাকটিস করাতে পারছেন না। স্ট্র্যাটেজিক কাজগুলো করতে পারছেন না।

প্রশ্ন : এবারের টুর্নামেন্টটা কেমন হবে?

নাসির : মনে হচ্ছে, গতবারের চেয়ে অনেক বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে এবার। আগেরবার সে রকম শক্তিশালী দল ছিল না। এবার যেমন কিরগিজস্তান ও কোরিয়া থেকে দল এসেছে। দুটি দলই খুব ভালো। বিশেষ করে আলগা এফসি খুবই শক্তিশালী, শেখ জামালের হয়ে তাদের সঙ্গে খেলেছিলাম। ওদের মাঠে ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হলেও ম্যাচে ওদেরই আধিপত্য ছিল।

মালদ্বীপের ক্লাবটিও ভালো, জাতীয় দলের অনেক খেলোয়াড় আছে ওই টিসি স্পোর্টস ক্লাবে। সুতরাং এবারের টুর্নামেন্টে কঠিন লড়াই হবে।

প্রশ্ন : কিন্তু আপনারা তো সহজ গ্রুপে পড়েছেন...

নাসির : এ গ্রুপের সঙ্গে তুলনা করলে আসলে সহজই বলতে হবে। স্বাগতিক দল এবং গতবারের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে আমাদের ওপর চাপও বেশি থাকবে। আমাদের প্রথম লক্ষ্য গ্রুপে সেরা দুইয়ের মধ্যে থেকে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা।

প্রশ্ন : আগের সঙ্গে তুলনা করলে এবারের চট্টগ্রাম আবাহনীও তো শক্তিশালী।

নাসির : গত মৌসুমে আমরা ভালো খেলেছি। তা ছাড়া এই দলের সঙ্গে নতুন অনেক খেলোয়াড় যোগ হয়েছে। মান্নাফ রাব্বি, জাফর ইকবাল, আবদুল্লাহ, সোহান, জামাল ভূঁইয়াসহ অনেককে নেওয়া হয়েছে। যোগ হয়েছে পাঁচজন বিদেশিও। যেমন লেফট উইংয়ে অগাস্টিন ওয়ালসন, ইব্রাহিম ও জাফর ইকবাল আছে, তাদের মধ্য থেকে নেওয়া হবে একজনকে। রাইট উইংয়ে মান্নাফ রাব্বি, জাহিদ হোসেন ও রুবেল মিয়ার মধ্যে সেরাজনকেই খেলাবেন কোচ। মাঝমাঠেও সে রকম প্রতিদ্বন্দ্বিতা। আমার মনে হচ্ছে, আগের দলের অনেকেই একাদশে থাকবে না।    

প্রশ্ন : চট্টগ্রাম আবাহনী কি শিরোপা ধরে রাখতে পারবে?

নাসির : লড়াইটা কঠিন হবে এবার। তবে এবার লিগের ফল দেখলে বোঝা যাবে, আমরা আগে গোল করে কখনো হারিনি। লিগে সবচেয়ে কম গোল খেয়েছি আমরা। ফরোয়ার্ডদের পারফরম্যান্সের ওপর আমাদের সাফল্য নির্ভর করছে। তারা গোল করতে পারলে ম্যাচ বেরিয়ে যাবে আশা করি।


মন্তব্য