kalerkantho


পারবেন তাঁরা?

বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ দ্বিতীয় ইনিংস

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ দ্বিতীয় ইনিংস

ক্রীড়া প্রতিবেদক : প্রচণ্ড চাপে পুরো দল। চাপের ভারী সে বোঝা কাঁধে বয়ে হতাশার সমুদ্র অনেকটাই পাড়ি দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। ৩ উইকেটে ১০২ রান নিয়ে বাংলাদেশ আজ আবার ব্যাটিংয়ে নামছে হারের আশঙ্কার মেঘ মাথায় করেই। তবু তৃতীয় দিন পর্যন্ত যে পরিস্থিতি ছিল, সে তুলনায় হায়দরাবাদ টেস্টের পঞ্চম দিন মুশফিকদের জন্য অনেক স্বস্তির, তা হার যতই চোখ রাঙাক না কেন। তবে বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং কোচ থিলান সামারাবীরার ভয় দ্বিতীয় ইনিংস। অনেকটা নিয়ম করেই যেন হুড়মুড়িয়ে ভাঙছে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংস।

জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে আরো ৩৫৬ রান। ৭ উইকেট নিয়ে ম্যাচের পঞ্চম দিনে অতটা পথ পাড়ি দেওয়ার স্বপ্ন ডানা মেলে ওড়ার কথা নয় বাংলাদেশ দলে। থিলান সামারাবীরার মূল চিন্তা, ‘দ্বিতীয় ইনিংসের ব্যাটিং। প্রায়ই দেখা গেছে আমরা দ্রুত গুটিয়ে গেছি। নিউজিল্যান্ডে যেমনটা হয়েছে।

প্রথম টেস্ট নিয়ে আমার কোনো আক্ষেপ নেই, ইনজুরির কারণে পাঁচ ব্যাটসম্যান নিয়ে খেলতে হয়েছিল। তবে দ্বিতীয় টেস্টে অমনটা হবে, আশা করিনি। আমাদের আরো ভালো ব্যাটিং করা উচিত ছিল। আশা করি ছেলেরা ওই ভুল থেকে শিখেছে। ’

পুরনো ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে ব্যাটসম্যানদের কেউ হাত তুলে দলের দায়িত্ব যদি নেন, তাহলে ম্যাচ বাঁচানো সম্ভব বলে মনে করছেন বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং কোচ, ‘শীর্ষ সাত ব্যাটসম্যানের কোনো একজন যদি হাল ধরে, জানি না সেটা কে হতে পারে। মিনি (মমিনুল হক) হতে পারত। কিন্তু ও আউট হয়ে গেছে। তবে আরো চার-পাঁচজন ব্যাটসম্যান আছে। ৬০-৭০ রানের একাধিক পার্টনারশিপ গড়তে হবে। ’

এ তো গেল হায়দরাবাদ টেস্টের শেষ দিনের গেমপ্ল্যান। ব্যাটিং কোচ যখন, তখন কোচের খেরো খাতায় নিশ্চয় আরো কিছু লিপিবদ্ধও আছে। যেমন, কেন বারবার ওভাবে উইকেট ছুড়ে দিয়ে আসছেন সাকিব আল হাসান? সামারাবীরার ব্যাখ্যায় আগের দিন বলা সাকিবের কথারই যেন প্রতিধ্বনি, ‘শটটা ঠিক হলে আমরা সবাই বলতাম, দারুণ! আমরা মেনে নিলেই ভালো যে ও এভাবেই খেলে। এভাবে খেলেই অনেক সময় ও সফল হয়েছে। কখনো কখনো চাপে ভুল করে থাকতে পারে। আমি মনে করি এভাবেই ও শিখবে। ’

সেই সাকিব এখন ক্রিজে আছেন ম্যাচ বাঁচানোর লড়াইয়ে অন্যতম ভরসা হয়ে, সঙ্গী মাহমুদ উল্লাহ। শেষেরজন আবার নিউজিল্যান্ড সফর থেকে রানে নেই। সামারাবীরা অবশ্য আশার কথা শুনিয়েছেন, ‘বলতে দ্বিধা নেই এ মুহূর্তে ও কিছুটা চাপে আছে। আশা করি কাল (আজ) প্রথম আধা ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে নিজের সহজাত খেলাটা ও খেলতে পারবে। ’

কিন্তু পঞ্চম দিনের উইকেট, তা-ও উপমহাদেশে মানে তো মাইনফিল্ড! সামারাবীরা অবশ্য উইকেট-জুজুতে আক্রান্ত নন, ‘সৌভাগ্যক্রমে উইকেট যেমনটা ভেবেছিলাম, অতটা বিপজ্জনক মনে হচ্ছে না। আমার অন্তত তা-ই মনে হচ্ছে। এ অবস্থায় শেষ দিনের প্রথম ঘণ্টাটা নির্বিঘ্নে পার করে দেওয়া খুব জরুরি। কিন্তু শুরুতেই যদি মোমেন্টাম ভারতের হাতে তুলে দেই, তাহলে আমাদের বিপদ আছে। ’

সে বিপদটা কী, তা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার নয় কারোরই!


মন্তব্য