kalerkantho


বোলিং নৈপুণ্যে সন্তুষ্ট ভারত

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বোলিং নৈপুণ্যে সন্তুষ্ট ভারত

সুযোগ এসেছিল তৃতীয় দিনেই বাংলাদেশকে ফলোঅনে বাধ্য করার। কিন্তু মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান আর মেহেদি হাসান মিরাজের ব্যাট সে সুযোগ থেকে বঞ্চিত করেছে স্বাগতিকদের।

তবে এতে হতাশ নন ভারতের ব্যাটিং কোচ সঞ্জয় বাঙ্গার।

খেলোয়াড়ি জীবনে তিনি ছিলেন গড়পড়তা অলরাউন্ডার। তবে ব্যাটিং কোচ হিসেবে যথেষ্ট সুনাম কুড়িয়েছেন সঞ্জয় বাঙ্গার। এমনকি হালের বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলিও নিজ দলের ব্যাটিং কোচের প্রশংসায় পঞ্চমুখ, যা শুনে কিছুটা বিব্রতই বাঙ্গার, ‘আমার তো মনে হয় কৃতিত্বটা ব্যাটসম্যানদের। তারা অনেক চিন্তাভাবনা করে। ওরা সব সময় সামর্থ্যের চূড়ায় ওঠার চেষ্টা করে। আমাদের কাজ হলো ছোটখাটো কিছু পরামর্শ দেওয়া। ’

কাল অবশ্য দিনভর বোলিংই করেছে ভারত। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয়, এদিন পতন ঘটা বাংলাদেশের পাঁচ উইকেটের মাত্র দুটি স্পিনারদের।

তার চেয়েও উল্লেখযোগ্য, রবিচন্দ্রন অশ্বিনের শিকার মাত্র একটি। তবে কি সহায়ক উইকেট না পেলে নিজের সেরাটা দিতে পারেন না এ অফ স্পিনার? প্রত্যাশিতভাবে এর পাল্টা ব্যাখ্যাই দিয়েছেন ভারতের ব্যাটিং কোচ, ‘আমি তো মনে করি আমাদের বোলাররা বোলিং খুব ভালো করছে। সবশেষ পাঁচ টেস্টের সিরিজের চারটিতেই আমরা প্রথমে বোলিং করেছিলাম। প্রতিবারই প্রতিপক্ষকে বেশি রান করতে দেইনি। প্রথম ইনিংসের উইকেট সব সময়ই ভালো থাকে। সেখানেও বোলাররা ভালো করেছে। তাই এ প্রশ্নের কোনো মেরিট আছে বলে মনে করছি না। ’

কিন্তু সম্ভাব্য বিপর্যয়ের মুখেও মুশফিক আর সাকিব মিলে শতরানের জুটি গড়েছেন, অনায়াসে স্ট্রোক খেলেছেন। এতে অশ্বিন-জাদেজাদের ব্যর্থতার চেয়ে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের সাফল্যই বেশি দেখছেন সঞ্জয় বাঙ্গার, ‘সাকিব ও মুশফিকের প্রশংসা করতে হবে ওরা যেভাবে ব্যাটিং করেছে। আমাদের বোলারদের চাপ সৃষ্টি করার সুযোগই ওরা দেয়নি। অনেক বাউন্ডারি মেরেছে। টেস্ট ম্যাচে এমন সেশন আসতেই পারে। আর এসব সময়ে ধৈর্য ধরতে হবে আপনাকে, পরিকল্পনা অনুযায়ী বোলিং করে যেতে হবে। ’ তার সুফলও ভারত পেয়েছে সাকিবকে শট খেলায় প্রলুব্ধ করে।

তবে অশ্বিন কিংবা জাদেজা নন, তৃতীয় দিনে ভারতীয় ফাস্ট বোলার উমেশ যাদবের আগুন ঝরানো স্পেলটাই বোলিংয়ের হাইলাইট। মানছেন বাঙ্গারও, ‘আমাদের তিন পেসারই রিভার্সসুইং পেয়েছে। তবে গতি এবং লেন্থের কারণে উমেশকে বেশি বিপজ্জনক মনে হয়েছে। কবজির পজিশন নিয়ে ও অনেক কাজ করেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টেও উমেশ আমাদের ব্রেক থ্রু দিয়েছে। আমার মনে হয় সবচেয়ে বেশি উন্নতি করেছে উমেশই। ’ ক্রিকইনফো

 


মন্তব্য