kalerkantho


এভাবেই ব্যাটিং করবেন সাকিব

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এভাবেই ব্যাটিং করবেন সাকিব

সবশেষ কবে ভালো বলে আউট হয়েছেন, কারোর মনে নেই। গতকাল হায়দরাবাদ টেস্টের প্রথম ইনিংসেও বেমক্কা শটে নিজের সেঞ্চুরি সম্ভাবনার সঙ্গে সঙ্গে দলের সুসময়ও হাওয়ায় মিলিয়ে দিয়েছেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু দিন শেষের সংবাদ সম্মেলনে নিজের স্ট্যান্সে অটল তিনি—

প্রশ্ন : উমেশ যাদবের প্রথম স্পেলেই কেমন নড়ে গেল বাংলাদেশের ফোকাস...

সাকিব আল হাসান : অবশ্যই সে দারুণ বোলিং করেছে। সম্ভবত আমার ক্যারিয়ারের সেরা স্পেল খেললাম। দুই দিকেই সে যেভাবে বল মুভ করিয়েছে, তা সত্যিই অসাধারণ। ওই সময় আমার ইতিবাচক থাকা দরকার ছিল। ভালো বল সাবধানে খেলা দরকার ছিল।

প্রশ্ন : নিজে ৮২ রানে আউট হওয়া নিয়ে কী বলবেন?

সাকিব : আপনি যদি আমার ইনিংস দেখেন, তাহলে দেখবেন আমি শটস খেলেছি। ওইটা (আউট হওয়া শট) আমি ভালোভাবে করতে পারিনি। এটাই বলতে পারি। এ ছাড়া আমি ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে ব্যাটিং করেছি।

আমি যেভাবে শেষ পাঁচ-ছয় বছর খেলেছি, সেটার থেকে আমি আমার ব্যাটিংয়ে পরিবর্তন করতে চাই না।

প্রশ্ন : তবু ওভাবে আউট হওয়া নিয়ে কোনো আক্ষেপ কি নেই?

সাকিব : আসলে আমি অত কিছু চিন্তা করে ব্যাটিং করি না। শটস খেলতে ভালো লাগে, ওটাই খেলতে থাকি। কখনো সফল হই, কখনো হই না। এগুলো নিয়ে খুব চিন্তা করার আছে বলে আমার মনে হয় না। কারণ এটা একটা ন্যাচারাল খেলা, আমি এভাবে খেলতেই পছন্দ করি। তবে আউট না হলে ওই সময় আমার সেঞ্চুরিটা হয়ে যেত। কিংবা দলের জন্য বেশিক্ষণ ব্যাটিং করতে পারতাম। সেটা অবশ্যই ভালো হতো।

প্রশ্ন : তার মানে কি আপনার কাছে সবার প্রত্যাশা বেশি? চুন থেকে পান খসলেই সমালোচকরা হুমড়ি খেয়ে পড়ে!

সাকিব : আমি ওভাবে ভাবি না। আমি চাই দলের জন্য অবদান রাখতে। ২১৭ রান করেও আমি খুশি ছিলাম না। দলের জন্য আমি আরো বড় রান করতে চেয়েছিলাম। আমি জানি তেমনটা হচ্ছে না। আবার এটাও জানি ব্যাটিংয়ের স্টাইল বদলালে আমি আর সাকিব থাকব না।

প্রশ্ন : রবিচন্দ্রন অশ্বিন তো সারাক্ষণই অ্যাটাক করে গেছেন। উইকেটে কি তাঁকে খেলা কঠিন মনে হয়েছে?

সাকিব : তেমন নয়। স্পিন খেলার সময় উইকেট ভালোই মনে হয়েছে। যতটুকু সম্ভব আমি ইতিবাচক থাকার চেষ্টা করেছি এবং রান করতে চেয়েছি।

প্রশ্ন : মুশফিকুর রহিম ও মেহেদি হাসানের জুটি কতটা আশাবাদী করছে দলকে?

সাকিব : তারা দারুণ ব্যাটিং করেছে। মুশফিক ভাই খুব ভালো ব্যাটিং করেছেন। কোনো বাজে শট খেলেননি। আবার বাজে বল পেলে ছাড়েননি। প্রথম ফিফটি অবশ্যই (মেহেদি হাসান) মিরাজের জন্য স্পেশাল। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ওর এমন একটা ইনিংস দলকে খুব সাহায্য করবে। কাল (আজ) যদি ওরা প্রথম সেশন কাটিয়ে দিতে পারে, তাহলে আরো ১০০-১২০ রানের মতো যোগ হবে। তাতে ফলো অন বাঁচানোর খুব কাছে চলে যাব। এটাই আমাদের লক্ষ্য।

প্রশ্ন : কিন্তু মুশফিকের উইকেটরক্ষণ সামর্থ্য নিয়ে কথা উঠেছে। আপনার কী মনে হয়?

সাকিব : আমার মনে হয় এ মুহূর্তে তিনি দুটিই পছন্দ করেন। সে চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করে। আমি আগেও বলেছি যে সে এমন কেউ নয় যাকে ওপরে ব্যাটিং করতে বললে সরে দাঁড়াবে। ওর ক্যারিয়ারের পেছনে এমন অনেক ইতিবাচক ঘটনা রয়েছে। আমার মনে হয় না গ্লাভস খুলে শুধু ব্যাটসম্যান হিসেবে খেললে এটা তার এবং দলের জন্য ভালো কিছু হবে। একইসঙ্গে ব্যাটিং ও অধিনায়কত্ব কঠিন, কিন্তু সে এটা করতে পছন্দ করে।

প্রশ্ন : ভারতই নিশ্চয় এ মুহূর্তে এগিয়ে?

সাকিব : অবশ্যই। ওদের সঙ্গে ব্যবধান কমাতে হলে আমাদের দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলতে হবে।

প্রশ্ন : দলের বিপর্যয়ের সময়ই রান করেন মুশফিক। এর কারণটা কী?

সাকিব : সত্যি বলতে কি, আমি কারণটা জানি না। হতে পারে কঠিন সময়ই তার পছন্দ। সে এগিয়ে এসে দলের জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে ভালোবাসে। এই চরিত্র তাকে বাংলাদেশের হয়ে দীর্ঘদিন খেলতে সাহায্য করবে।

প্রশ্ন : উইকেটে কি বল ওঠানামা করছে? পরের দুই দিনে তো তাহলে বিপদ আছে ব্যাটসম্যানদের!

সাকিব : না, আমি যত দূর জানি ভারতের উইকেট স্পিনারদের সহায়ক হয়। তেমনটা এখানে দেখা যাচ্ছে না। পেস বোলিংও আমার মনে হয় না ওই একটা স্পেল (উমেশ যাদবের) ছাড়া ভালো হয়েছে। অবশ্যই তারা (ভারত) ভালো বোলিং করেছে। তবে ওই একটা স্পেল ছাড়া বাকি সময়টা আমি ভালোভাবেই কাটিয়ে দিতে পেরেছি। এখনো উইকেট ভালো আছে। তবে কালকে নতুন একটা দিন, উইকেট কেমন থাকে, সেটা অন্য ব্যাপার।

প্রশ্ন : সবশেষ প্রশ্ন। সাম্প্রতিক সময়ে ভালো বলে আউট হতে দেখাই যাচ্ছে না আপনাকে। প্রতিটা আউট নিয়ে বিস্তর সমালোচনা হচ্ছে। বিরাট কোহলিকে দেখে কি মনে হয় পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে ব্যাটিং করলে আপনারই ভালো হবে?

সাকিব : (দুদিকে মাথা নাড়িয়ে) না।


মন্তব্য