kalerkantho


‘ফিক্সিং’ সন্দেহে নিষিদ্ধ শারজিল-লতিফ

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



তিনটি মাত্র ম্যাচ হয়েছে পাকিস্তান সুপার লিগে। তাতেই উঠেছে দুর্নীতির অভিযোগ।

গতকাল সাময়িক নিষিদ্ধও করা হয়েছে ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের দুই ক্রিকেটার শারজিল খান ও খালিদ লতিফকে। দুবাই থেকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে তাঁদের। তবে দুর্নীতির ধরনটা কী, ম্যাচ পাতানো, স্পট ফিক্সিং নাকি অন্য কিছু, নিশ্চিত নয় এখনো। উদ্বোধনী ম্যাচে অভিযুক্ত এই দুই ক্রিকেটারের দল জিতেছিল পেশোয়ার জালমির বিপক্ষে। গতকাল তাঁদের দেশে পাঠানোর খবর নিশ্চিত করে পিসিবি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘দুর্নীতির বিপক্ষে কঠোর অবস্থানে আমরা। পিসিবি কাজ করছে আকসুর সঙ্গে। খেলাটাকে দুর্নীতিমুক্ত রাখতে বদ্ধপরিকর সবাই। ’

এবারের পিএসএলকে ঘিরে আন্তর্জাতিক চক্রের দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের আভাস পেয়েছে পিসিবি। সেটা স্পট ফিক্সিং সংক্রান্ত কিছু একটা বলেই অনুমান পাকিস্তানি মিডিয়ার।

আইসিসির দুর্নীতি দমন ইউনিটকে সঙ্গে নিয়ে এর তদন্তেও নেমেছে পিসিবি। তদন্তের স্বার্থে শারজিল আর লতিফকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে পিসিবি, ‘ক্রিকেটের সততা রক্ষার জন্য আইসিসির সাহায্য নিয়ে পিসিবি বড় পরিসরে যে তদন্ত শুরু করেছে সেটা চলতে থাকবে। দুই ক্রিকেটারকে সাময়িক নিষিদ্ধ করা হয়েছে এজন্যই। ’ পিসিবি প্রধান নাজাম শেঠীও কঠোর এ নিয়ে, ‘এর খুঁটিনাটি নিয়ে এখনই মন্তব্য করা ঠিক হবে না। তদন্ত করার সময় কোন ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন মনে হলে বিন্দুমাত্র সময় না নিয়ে সেটা নেব আমরা। ’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সবশেষ খেলা পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে খেলেছিলেন শারজিল। পাঁচ ম্যাচে তিনটি ফিফটিও ছিল এই ব্যাটসম্যানের। জাতীয় দলের হয়ে ১ টেস্ট,২৫ ওয়ানডে আর ১৫টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন ২৭ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। আর খালিদ লতিফ ২০০৪ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অধিনায়ক ছিলেন পাকিস্তানের। দেশের হয়ে খেলেছেন ৫ ওয়ানডে আর ১৩টি টি-টোয়েন্টি। পাকিস্তানের জার্সিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গত বছরের সেপ্টেম্বরে খেলেছিলেন সবশেষ টি-টোয়েন্টি। দূরন্ত রাজশাহীর হয়ে খেলেছেন বিপিএলও। সত্যি সত্যি স্পট ফিক্সিংয়ে জড়ালে হুমকিতে পড়বে প্রতিভাবান এই দুই ক্রিকেটারের ক্যারিয়ার। পিটিআই


মন্তব্য