kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

এ প্রজন্মকে নিয়ে আমি সব সময়ই আশাবাদী

অন্যান্য   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



এ প্রজন্মকে নিয়ে আমি সব সময়ই আশাবাদী

অভিষেক টেস্টের অধিনায়ক তিনি। আজ হায়দরাবাদে বাংলাদেশের জন্য ল্যান্ডমার্ক বলতে একটাই—ভারতের মাটিতে নিজেদের প্রথম টেস্ট। আরেকটি ‘প্রথম’ যখন তখন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমানের প্রতিক্রিয়ার বাড়তি গুরুত্ব আছে। কিন্তু কিসের কি, বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের মতো তাঁর কাছেও এটা আরেকটা টেস্ট ম্যাচই—বলেছেন কালের কণ্ঠকে

 

প্রশ্ন : এই প্রথম টেস্টে আতিথ্য দিচ্ছে ভারত। তাই এটাকে ঐতিহাসিক টেস্ট বলছেন অনেকে। আসলে কি তাই? ক্রিকেটাররাও কি সেরকম মনে করছেন?

নাঈমুর রহমান : আমার তা মনে হয় না। মুশফিক তো যাওয়ার আগেই বলে গেছে। হ্যাঁ, দলের বাইরে আমরা যারা আছি; যেমন বোর্ড কিংবা সাধারণ মানুষের কাছে এ টেস্টটা বাড়তি কিছু মনে হতে পারে। তবে দিনশেষে মুশফিকদের জন্য এটা আরেকটা টেস্ট। ইতিহাস, রোমাঞ্চ-টোমাঞ্চ বাদ দিয়ে এভাবে ভাবলেই বরং দলের ভালো হবে। মুশফিকের কথা শুনে অবশ্য আমি আশ্বস্ত যে দল বেশি কিছু ভাবছে না।

প্রশ্ন : কেমন করবে মুশফিকুর রহিমের দল?

নাঈমুর : নিউজিল্যান্ড সফরে কয়েকটি ব্যক্তিগত নৈপুণ্য ছাড়া দল সেভাবে ভালো করেনি। তবে ওটা ছিল ডিফারেন্ট কন্ডিশন। হায়দরাবাদের কন্ডিশন অনেকটা আমাদের মতোই। নিজেদের মাঠে আমরা ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি। তাই কন্ডিশন নিয়ে অন্তত কোনো শঙ্কা নেই। তবে হ্যাঁ, এটা তো মানতেই হবে যে ভারত এ মুহূর্তে এক নম্বর টেস্ট দল। লড়াইটা স্বভাবতই কঠিন হবে। আমার মনে হয় ব্যাটসম্যানদের দায়িত্বটা বেশি। মানুষের মনে দাগ কাটতে হলে হায়দরাবাদে ভালো ব্যাটিং করতে হবে।

প্রশ্ন : অভিষেক টেস্টের আগে কেউ সেঞ্চুরি করবেন কিংবা ইনিংসে ৫-এর বেশি উইকেট নেবেন—এ জাতীয় আলোচনা ছিল না। কিন্তু আমিনুল ইসলাম এবং আপনি সেটা করে দেখিয়েছেন। ভারতের মাটিতে বাংলাদেশের প্রথম টেস্টকে ঘিরে নিশ্চয় এমন অনেকের নাম মনে আসছে?

নাঈমুর : তা তো অবশ্যই। হায়দরাবাদের কন্ডিশনের কথা মাথায় রেখে আমি স্পিনারদের সম্ভাবনাই বেশি দেখছি। ইংল্যান্ড সিরিজে (মেহেদী হাসান) মিরাজ দারুণ বোলিং করেছে। তবে অভিজ্ঞতার কারণে এগিয়ে রাখব সাকিবকে। আর ব্যাটিংয়ে তামিমের সঙ্গে সাকিব, মমিনুল, মুশফিক—অনেকের কথা মনে আসছে। এদের সবারই বড় ইনিংস খেলার সামর্থ্য আছে। সেটা তারা প্রমাণও করেছে।

প্রশ্ন : অভিষেক টেস্টের আগে কারো নাম মনেই আসছিল না আর এখন কিনা হুড়মুড়িয়ে অনেকগুলো নাম বলে দিচ্ছেন! তা, এ পরিবর্তন একজন সাবেক অধিনায়ককে কতটা তৃপ্তি দেয়?

নাঈমুর : অনেক দিন ধরেই বলে আসছি, এ প্রজন্মকে নিয়ে আমি সব সময়ই আশাবাদী। আমাদের সময়ের চেয়ে এখনকার দল অনেক ভালো। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এ উন্নতিটা হওয়া জরুরি ছিল। একজন সাবেক অধিনায়ক বলেই নয়, যে খেলাটা খেলেছি সে খেলায় এখন দেশ বিশ্বকে নাড়া দিচ্ছে—গর্ববোধ হয় খুব।

প্রশ্ন : সবশেষ প্রশ্ন, কোনো পরামর্শ মুশফিকদের?

নাঈমুর : জাস্ট এনজয় দ্য গেম!


মন্তব্য