kalerkantho


রুদ্ধশ্বাস ম্যাচের পর ফাইনালে বার্সা

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রুদ্ধশ্বাস ম্যাচের পর ফাইনালে বার্সা

তিন তিনটি লাল কার্ড। গোল।

পাল্টা গোলে সমতা। দুদলের একটি করে গোল বাতিল। মেসির ফ্রিকিক ক্রসবারে লেগে ফেরা। পেনাল্টি মিস! পরতে পরতে শিহরণ জাগানিয়া ম্যাচে এর চেয়ে বেশি রোমাঞ্চ কি হতে পারত আর? অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে রুদ্ধশ্বাস সেই ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র করে কোপা দেল রে’র ফাইনালে ৯ জন নিয়ে খেলা বার্সেলোনা। প্রথম লেগ ২-১ গোলে জেতায় গতপরশু নিজেদের মাঠে ড্রর পরও ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে টানা চতুর্থ ফাইনালে কাতালানরা। বাদ পড়লেও ন্যু ক্যাম্পে দাপটে খেলে প্রশংসায় ভাসছে অ্যাতলেতিকো। খোদ বার্সা কোচ লুই এনরিকেই ভাগ্যবান ভাবছেন নিজেদের, ‘সত্যি ভাগ্যবান ছিলাম আমরা। যেভাবে খেলেছে তাতে ফাইনালে যেতেই পারত অ্যাতলেতিকো। ’

ন্যু ক্যাম্পে ২০০৬ সালের পর জেতেনি অ্যাতলেতিকো।

প্রথম লেগে পিছিয়ে পড়ায় তাদের অসাধ্য কিছু করতে হতো পরশু। হাল না ছাড়া ডিয়েগো সিমিওনের দল করেছে সেটাই। প্রথম ২০ মিনিট চড়াও বার্সার ওপর। গোলরক্ষক ইয়াসপার সিলিসেন ত্রাতা হয়ে অন্তত দুবার রক্ষা করেন তখন।   এরপর গুছিয়ে নিয়ে মেসি জাদুতে ৪৩ মিনিটে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। দারুণ স্কিলে তিনজনের মধ্য দিয়ে নেওয়া মেসির নিচু শট ঠেকিয়েছিলেন অ্যাতলেতিকো গোলরক্ষক। কিন্তু ফিরতি বল ফাঁকায় পেয়ে জালে জড়াতে ভুল করেননি লুই সুয়ারেস।

ম্যাচের আসল নাটক শুরু বিরতির পর। ৫৭ মিনিটে সের্হি রবার্তো দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়লে ১০ জনের দলে পরিণত বার্সা। ৬০ মিনিটে আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান বল জালে পাঠালেও অফসাইডের কারণে গোল বাতিল করেন রেফারি। কিন্তু টিভি রিপ্লে দেখিয়েছে অফসাইড ছিলেন না গ্রিয়েজমান। অফসাইডের জন্য একটি গোল বাতিল হয়েছে সুয়ারেসেরও। ৬৯ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন অ্যাতলেতিকোর ইয়ানিক কারাসকো। ৭৭ মিনিটে মেসির অসাধারণ ফ্রিকিক ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে। দুই মিনিট পর জেরার্দ পিকে বক্সে কেভিন গামেইরোকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় অ্যাতলেতিকো। সেটা পোস্টের ওপর দিয়ে মেরে সমতা ফেরানোর সুযোগ নষ্ট করেন গামেইরো। ৮৩ মিনিটে গ্রিয়েজমানের নিঃস্বার্থ পাস পেয়ে সেই গামেইরোর গোলে সমতা ফেরায় অ্যাতলেকিকো।

 ম্যাচ শেষের এক মিনিট আগে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে সুয়ারেস মাঠ ছাড়লে ৯ জনে পরিণত হয় বার্সা। রিপ্লেতে অবশ্য দেখা গেছে সুয়ারেস কনুই দিয়ে কোকেকে আঘাত করেননি, তাঁর হাতটা কেবল পৌঁছেছিল কাঁধ পর্যন্ত। আপিলের পরও শাস্তি না উঠলে ফাইনালটা সুয়ারেসকে ছাড়া খেলতে হবে তাদের। ফাইনালে সেল্তা ভিগো কিংবা আলাভেসের অপেক্ষায় এখন বার্সা। এএফপি


মন্তব্য