kalerkantho


অপেক্ষা শেষে মাঠের লড়াইয়ে

কোনো দলই অজেয় নয়

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কোনো দলই অজেয় নয়

ভারতে প্রথম টেস্ট

বাংলাদেশ যে ভারত সফরে খুব একটা আসেনি সেটা আমি ইদানীংই জেনেছি। আমরা বাংলাদেশে বেশ কয়েকবার গিয়েছি, কিন্তু ওরা এবারই প্রথম দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলতে এলো।

তাই বলা যায় দুই দেশের জন্যই একটা ঐতিহাসিক মুহূর্ত। আশা করবি এমনটা যেন আরো হয়। আমরা বাংলাদেশে অনেকবার গিয়েছি, ওরাও যেন প্রায়ই এখানে আসে। ঘটনাচক্রে এমন ঐতিহাসিক সময়ে আমিই অধিনায়ক, দিনটা আমার জন্যও স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

বাংলাদেশ কেমন প্রতিপক্ষ

আমরা আমাদের প্রক্রিয়াটা ধরে রেখে ভালো ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করব। কোনো দলই অজেয় নয়, কোনো দলই অপ্রতিরোধ্য নয়। একটা খেলায়, একেকটা সময়ে দুই দলের সামনেই জয়ের সুযোগ আসে। টেস্টে তো আরো বেশি। একটা সেশন, এক ঘণ্টার খেলাতেই ম্যাচের মোড় ঘুরে যেতে পারে।

আমরাও নিজেদের অজেয় মনে করি না। আমরা মনে করি যেকোনো দলকেই হারানোর সামর্থ্য আমাদের আছে, তবে তার মানে এই নয় যে কেউই আমাদের হারাতে পারবে না।

বাংলাদেশের ব্যাটিং

বাংলাদেশের ব্যাটিংটা খাটো করে দেখার উপায় নেই। নিউজিল্যান্ডে তারা খুব ভালো করেছে। সেখানে এক দিনে সাড়ে তিন শ রান তোলা সহজ কথা নয়। গোটা দিন ধরে সাড়ে চারের ওপর রানরেট ধরে রেখে ব্যাট করাটা বিশাল ব্যাপার। তাদেরও ভালো খেলোয়াড় আছে, তাই হালকাভাবে নেওয়ার সুযোগ নেই।

র‌্যাংকিংয়ের পার্থক্য

প্রতিটি আন্তর্জাতিক ম্যাচই চ্যালেঞ্জের। এমন নয় যে অন্য দলগুলোর সঙ্গে খেলা সহজ বা বাংলাদেশের সঙ্গে খেলাটা সহজ হবে; মনোভাব কিন্তু প্রতিপক্ষ নির্বিশেষে সব সময় একই থাকে। আমরা প্রস্তুতিও একইভাবে নেই। মাঠে গিয়েও সেই একইভাবে পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের চেষ্টা করি। আমরা কোনো নামের বিপক্ষে খেলি না, আমরা খেলি ব্যাট-বলে এবং সেটা কখনো বদলায় না।

অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বড় শিক্ষা

যখন প্রতিপক্ষের একটা জুটি গড়ে ওঠে তখন ধৈর্য ধরে রাখা। গত চারটি টেস্ট ম্যাচ ধরে এই ব্যাপারটা করার চেষ্টা করছি। মনে আছে, জ্যামাইকায় আমরা ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে শুরু করলেও সেটা ধরে রাখতে পারিনি, তাই শেষটায় ওদের ২০ উইকেটও নিতে পারিনি। বোলাররাও ক্লান্ত হয়ে পড়েছিল। আমার ধারণা নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি সিরিজে আমরা ধৈর্যেরও একটা বড় পরীক্ষা দিয়েছি।

বাংলাদেশের উন্নতি

বাংলাদেশের দক্ষতাটা আছে কিন্তু খুব বেশি খেলার সুযোগ না থাকায় দল হিসেবে সেই আত্মবিশ্বাসের জায়গাটা নেই। এটা খুবই মৌলিক একটা ব্যাপার। তারা ভালো ওয়ানডে দল হয়ে উঠেছে কারণ তারা অনেক ওয়ানডে খেলেছে এবং সেখানে তাদের দলীয় সমন্বয়টা ঠিক করা। টেস্ট বেশি না খেললে এর মেজাজটা ধরা কঠিন। তারা ওয়ানডেতে সব দলকে হারিয়েছে কারণ তারা জানে কী করে নিজেদের সেরাটা খেলতে হয়। আমি নিশ্চিত, তারা যদি বেশি বেশি খেলার সুযোগ পায় তাহলে টেস্টেও তারা শক্ত দল হিসেবে দাঁড়িয়ে যাবে।


মন্তব্য