kalerkantho


স্বপ্ন দেখেন আজমীরও

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



স্বপ্ন দেখেন আজমীরও

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ১২ ম্যাচে ৫০০-এর ওপরে রানও সব শেষ ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের একটি দলে ঠাঁই করে নেওয়ার পক্ষে যথেষ্ট ছিল না। হতাশ আজমীর আহমেদের তখন মনে হচ্ছিল, ‘ভালো পারফরম করেও দল না পাওয়ার মানেই হলো নজর কাড়তে হলে আমাকে বিশেষ কিছু করতেই হবে। ’ প্রথম বিভাগে নিজের পুরনো দল অগ্রণী ব্যাংকের হয়ে গতকাল ‘স্পেশাল’ কিছু করাও হয়ে গেল তাঁর। সাভারে বিকেএসপি ৪ নম্বর মাঠে উদয়াচল ক্লাবের বিপক্ষে ডানহাতি এ ওপেনার যে করে ফেলেছেন ডাবল সেঞ্চুরিই! ১৬৮ বলে ১৬টি করে ছক্কা আর বাউন্ডারিতে ২২২ রানের হার না মানা ইনিংসে দলকে নির্ধারিত ৫০ ওভারে পৌঁছে দিয়েছিলেন ৫ উইকেটে ৩৮৩ রানের চূড়ায়ও। এরপর ৬ ওভার বোলিং করে মাত্র ১০ রান খরচায় ১ উইকেট নিয়ে অগ্রণী ব্যাংকের ১৮৬ রানের বিশাল জয়ে অবদান রেখেছেন অফস্পিনার আজমীরও।

বাংলাদেশের ঘরোয়া সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অবশ্য আজমীরই প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান নন। ১৯৭৯-৮০ মৌসুমে প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগে ইলেভেন স্টারসের বিপক্ষে ২০১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন আজাদ বয়েজের সৈয়দ আশরাফুল হক। তবে বাংলাদেশের টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পেছনে অগ্রণী ভূমিকা রাখা এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সাবেক এই প্রধান নির্বাহী সেই ডাবল সেঞ্চুরিটি করেছিলেন ৬০ ওভারের ম্যাচে। এবার ৫০ ওভারের ম্যাচেই তা করে ফেলা আজমীর অনুভূতি প্রকাশ করছিলেন এভাবে, ‘ভালো লাগার যে উচ্চ স্তর আছে, আমি এখন অবস্থান করছি সেখানেই। ’ বাংলাদেশের প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরিয়ান মেহরাব হোসেন এবং সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদদের স্কুল উইলস লিটল ফ্লাওয়ারেই ক্রিকেটে হাতেখড়ি আজমীরের। বাংলাদেশের আর দশজন তরুণ ক্রিকেটারের চেয়ে তাঁর স্বপ্নও ব্যতিক্রমী নয়, ‘আমিও স্বপ্ন দেখি জাতীয় দলে খেলার।

এটাকে আমার কাছে খুব দূরের স্বপ্নও মনে হয় না। কারণ বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে ঢাকা মেট্রোর হয়ে আমার সঙ্গে খেলত তাসকিন। খুলনার হয়ে খেলতে আসত মুস্তাফিজ। সবাই তো আর একসঙ্গে খেলবে না। আর আমার ক্ষেত্রে সব কিছু একটু দেরিতেই ঘটে। যেমন সতীর্থদের মধ্যে আমি সবার শেষে ঢাকার লিগ খেলেছি। ’

ডাবল সেঞ্চুরিয়ান তো স্বপ্ন দেখবেনই!


মন্তব্য