kalerkantho


চ্যাম্পিয়ন

অদম্য সিংহের ফেরা

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



অদম্য সিংহের ফেরা

খাঁচাবন্দি হয়ে পড়েছিল ‘অদম্য সিংহ’। সুযোগই পায়নি ২০১২ ও ২০১৩ সালের নেশনস কাপে।

গতবার ফিরলেও ছিটকে গিয়েছিল প্রথম পর্বে। সেই ক্যামেরুন গর্জে উঠল আরেকবার। দ্বিতীয় সারির দল নিয়েও মিসরের বুক ভেঙে নেশনস কাপের শিরোপা জিতল ১৫ বছর পর। গতপরশুর ফাইনালে পিছিয়ে পড়ে হুগো ব্রুসের দল শেষ হাসি হাসে ২-১ গোলে জিতে। এর পরই বাঁধভাঙা উল্লাসে মাতে ক্যামেরুনের তরুণ তুর্কিরা। গ্যাবনের রাজধানী লিবরেভিল থেকে উচ্ছ্বাসটা ছড়িয়ে পড়ে ক্যামেরুনের প্রতিটি শহর ছাপিয়ে অলিগলিতে।

নেশনস কাপের ফাইনালে এর আগে দুইবার মিসরের কাছে হেরেছিল ক্যামেরুন। সবশেষ ২০০৮ সালের ফাইনালে পেরে ওঠেনি স্যামুয়েল এতো, রিগোবার্ত সংয়ের মতো তারকাদের নিয়েও। সেই এতো গতপরশুর ফাইনাল উপভোগ করেছেন গ্যালারিতে বসে।

প্রতিশোধ নিয়ে উত্তরসূরিদের শিরোপা জয়ের আনন্দে শামিল তিনিও, ‘আফ্রিকার চ্যাম্পিয়ন আমরা! এবার জিতলাম নেশনস কাপ। পরের লক্ষ্য কনফেডারেশনস কাপ!’ আফ্রিকান চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় কনফেডারেশনস কাপেও খেলবে ক্যামেরুন। সেখানে পাঁচবারের নেশনস কাপ জয়ীদের প্রতিদ্বন্দ্বী বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি, চিলি আর অস্ট্রেলিয়া। রাশিয়ায় অনুষ্ঠেয় ওই টুর্নামেন্ট নিয়ে না ভেবে দলের বেলজিয়ান কোচ হুগো ব্রুস আপাতত উপভোগ করতে চান নেশনস কাপের জয়টা, ‘সবারই জানা সেরা দলটা পাইনি আমরা। তার পরও যাদের পেয়েছি তাদের সবাই নিজেদের উজাড় করে খেলেছে বলেই শিরোপা জিততে পারলাম। এটা যতটা না ফুটবল খেলোয়াড়দের দল তার চেয়েও বেশি বন্ধুদের। ’

অবশ্য ফাইনালে মিসরই এগিয়ে গিয়েছিল ২২ মিনিটে। পোস্টের খুব কাছ থেকে বল জালে জড়িয়ে দলীয় দারুণ একটি আক্রমণের সফল সমাপ্তি দেন মোহামেদ এলনেনি। ক্যামেরুনের হয়ে ৫৯ মিনিটে জোরালো হেডে সমতা ফেরান বদলি খেলোয়াড় নিকোলাস এনকলু। ফাইনালের আগে এবারের টুর্নামেন্টে মাত্র একটিই ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন লিঁওর এই ডিফেন্ডার। অধিনায়ক বেঞ্জামিন মুকনজোর ক্রসে পোস্টের ছয় গজ সামনে থেকে নেওয়া জোরালো হেডারে সমতা ফেরান তিনি। ৮৭ মিনিট পর্যন্ত কোনো দল গোল না পাওয়ায় মনে হচ্ছিল অতিরিক্ত সময়ে গড়াবে ফাইনাল। তখনই বাজিমাত আরেক ‘সুপার সাব’ ভিনসেন্ট আবুবকরের। ম্যাচ শেষের দুই মিনিট আগে ডিফেন্ডার আলী গাবরের মাথার ওপর দিয়ে বল জালে পাঠান তিনি। তার পরও নিয়মিত একাদশের আটজনকে দেশে রেখে আসা ক্যামেরুন ২০০২ সালের পর  শিরোপার আনন্দে ভেসেছে।

২০০৬, ২০০৮, ২০১০—টানা তিনবার আফ্রিকান নেশনস কাপের শিরোপা জিতেছিল নীল নদের দেশ। এরপর সাতবারের চ্যাম্পিয়নদের সুযোগই হয়নি টানা তিন নেশনস কাপে। এবার দাপটে ফাইনালে পৌঁছেও রেকর্ড অষ্টম শিরোপা জিততে না পারার হতাশাটা লুকালেন না মিসরের আর্জেন্টাইন কোচ হেক্তর কুপার। এর আগে ২০০০ ও ২০০১ সালে ভ্যালেন্সিয়াকে টানা দুইবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে নিয়ে গেলেও শিরোপা পাওয়া হয়নি তাঁর। ২০০০ সালের ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদ আর ২০০১ সালে হেরেছিলেন বায়ার্ন মিউনিখের কাছে। তাঁর কষ্টটা তাই একটু বেশিই, ‘ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে পর পর দুইবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হেরেছি। শিরোপা পেলাম না এবারও। তবে এবার শুরুতে এগিয়ে যাওয়ায় প্রত্যাশাটা ছিল বেশি। দেশের সবাই ভরসা রেখেছিল আমাদের ওপর। তাদের কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। ’ এএফপি


মন্তব্য