kalerkantho


তামিমের সঙ্গী সৌম্য

রানবন্যায় উদ্বেগ বাংলাদেশের

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রানবন্যায় উদ্বেগ বাংলাদেশের

ক্রিকেট আড্ডায় চালু একটা উপমা আছে—মেরে বলের সুতা খুলে ফেলা! সেকান্দারাবাদে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে বলের সে পরিণতি হয়নি ঠিকই, তবে বলের ওপর বেজায় অত্যাচার করেছে ব্যাট। কার্যত সে নিপীড়নের নির্মমতম শিকার বাংলাদেশি বোলাররা। ৯০ ওভারে প্রতিপক্ষ ৪৬১ রান তুলে ফেললে যা হয় আর কি। জবাবে অবশ্য আংশিক বদলা নিয়েছে বাংলাদেশও।

দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচে ফল হওয়ার সে যুগে আর পড়ে নেই বাংলাদেশের ক্রিকেট। যথারীতি ড্র-ই হয়েছে ভারত ‘এ’ দলের বিপক্ষে মুশফিকুর রহিমদের প্রস্তুতি ম্যাচটি। আর প্রস্তুতি ম্যাচের ফল নিয়ে উদ্বেগেরও কিছু নেই। তবু উদ্বেগের বুদবুদ কি আর চাপা থাকছে, বিশেষ করে বিরাট কোহলিদের মুখোমুখি হওয়ার আগে জনৈক প্রিয়াঙ্ক কিরিট পাঞ্চাল, শ্রেয়াস আয়ার এবং বিজয় শঙ্করের ব্যাটে তুলাধোনা হওয়ার পর! এ তিনজনই সেঞ্চুরি করেছেন কাল, এর মধ্যে দুজন আবার রিটায়ার্ড আউট। মানে, সেঞ্চুরির পর অন্যদের সুযোগ করে দিতে আউট না হয়েও সাজঘরে ফিরেছেন পাঞ্চাল ও আয়ার। ৯ নম্বরে নামা সাইনি সেঞ্চুরির পথে হাঁটলে রান রেটটা আরো দুর্ধর্ষ দেখাতে পারত স্থানীয় দলটির।

তবে যা হয়েছে, সেটাও হায়দরাবাদ টেস্টের আগে বাংলাদেশের বোলিং ইউনিটের রক্তচাপ বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট।

সাকিব আল হাসান খেলেননি, বিশ্রামে তাসকিন আহমেদ এবং কামরুল ইসলাম রাব্বিও। কিন্তু মেহেদী হাসান তো ছিলেন, উপমহাদেশের কন্ডিশনে যাঁর কাছে বিপুল প্রত্যাশা বাংলাদেশ দলের। সেই অফস্পিনারের ওপর দিয়েই বয়েছে সবচেয়ে প্রলয়ঙ্করী ঝড়। ১৬ ওভারে উইকেটহীন মেহেদী মিরাজ গুনেছেন ৯২ রান। একমাত্র শুভাশীষ রায় ছাড়া স্বীকৃত বাকি বোলারদের অবস্থাও একই।

ঢাকা ডায়নামাইটসের শিরোপা জয়ে ভূমিকা রাখার পুরস্কার হিসেবে প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য হায়দরাবাদে উড়ে যাওয়া আবু জায়েদের ইকোনমি রেট টি-টোয়েন্টি ঘরানারই, ১৩ ওভারে দিয়েছেন ৭২ রান। শফিউল ইসলাম রান বিলিয়েছেন ওভারপিছু ৫ করে। এদিন সবচেয়ে বেশি বোলিং করা তাইজুল ইসলাম ৩ উইকেট পেয়েছেন ঠিকই, তবে সেগুলো বাঁহাতি এ স্পিনারকে কিনতে হয়েছে চড়া মূল্যে। হতশ্রী বোলিংয়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়েছে বাংলাদেশের ফিল্ডিংও। দুটি ক্যাচ পড়েছে বাংলাদেশি ফিল্ডারদের হাত গলে। গত দেড় মাসে নিউজিল্যান্ড সফরসহ এ নিয়ে ২২টি ক্যাচ ছাড়ল বাংলাদেশ! বোলিং উদ্বেগ আর ফিল্ডিং উৎকণ্ঠা নিয়েই ভারতের বিপক্ষে সফরের একমাত্র ম্যাচে নামতে হবে মুশফিকুর রহিমদের।

আশার কথা, ইটের জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে পাটকেল ছুড়েছেন ব্যাটসম্যানরা। তবে তখন ২৩৭ রানে এগিয়ে ভারতের ‘এ’ দল, খেলাও বাকি মোটে ঘণ্টাখানেকের। বোধগম্য কারণেই ম্যাচের ফল নির্ধারণে ব্যাটিং-বোলিংটা নিরর্থক। তবে প্রস্তুতির দায়টা অন্তত মিটিয়েছে বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকারের উদ্বোধনী জুটিতে উঠেছে ৭১ রান, মাত্র ১২.১ ওভারে। সৌম্য আউট হওয়ার পরের বলেই মমিনুল হক ফিরে গেছেন, তবে আর কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বাংলাদেশের। ৫৪ বলে ৩ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৪২ রানে অপরাজিত থাকেন তামিম। এখান থেকেই তিনি টেস্টের ইনিংসটা শুরু করলে হয়! ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর : বাংলাদেশ : ২২৪/৮ ও ১৫ ওভারে ৭৩/২ (তামিম ৪২*, সৌম্য ২৫, মাহমুদ ১*, কুলদীপ ২/২)। ভারত ‘এ’ : ৯০ ওভারে ৪৬১/৮ ডিক্লে. (পাঞ্চাল ১০৩, আয়ার ১০০, শঙ্কর ১০৩*, শুভাশীষ ৩/৫৭, তাইজুল ৩/১৪১)। ফল : ড্র।


মন্তব্য