kalerkantho

25th march banner

আর খেলবেন না ল্যাম্পার্ড

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



আর খেলবেন না ল্যাম্পার্ড

নিউ ইয়র্ক সিটি ফুটবল ক্লাবের সঙ্গে চুক্তি শেষ। খুব আশায় ছিলেন তাই চেলসির সমর্থকরা। আবার হয়তো চেনা সেই নীল জার্সি গায়ে উঠবে ক্লাবের সর্বকালের সেরা ফুটবলারের। ক্যারিয়ারের গোধূলিবেলায় সমর্থকদের নস্টালজিয়ায় ডুবিয়ে দেবেন আরেকবার। কিন্তু ফ্রাংক ল্যাম্পার্ড সে সুযোগটা নিলেন না। ৩৮ বছর বয়সে কাল পেশাদার ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা দেন এই মিডফিল্ডার।

‘অবিশ্বাস্য ২১ বছর শেষে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, পেশাদার ফুটবলার হিসেবে ক্যারিয়ার শেষ করার এটি সঠিক সময়। অনেক ক্লাব থেকে খেলা চালিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু ৩৮ বছর বয়সে এসে মনে হলো, জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু করার এটিই সময়’—নিজের ইন্সটাগ্রাম পোস্টে এমনটাই জানান ল্যাম্পার্ড।

ফুটবলার পিতার সন্তান তিনি। ১৯৯৬ সালে ওয়েস্ট হামের হয়ে শুরু পেশাদার ক্যারিয়ার। তবে ২০০১ সালে চেলসিতে নাম লেখানোর পরই কেবল শুরু হয় অমরত্বের পথে ল্যাম্পার্ডের যাত্রা। পরের ১৩ বছরে ওই ক্লাবের হয়ে তিনটি প্রিমিয়ার লিগ, চারটি এফএ কাপ, একটি চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতেন তিনি। ২০১৪ সালে চেলসি ছাড়ার সময় নামের পাশে ক্লাবের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ২১১ গোল। আর ১০২ গোলে অ্যাসিস্টের রেকর্ডে প্রিমিয়ার লিগ জমানায় শুধু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের রায়ান গিগসের পেছনে ল্যাম্পার্ড। জাতীয় দলের হয়ে ১০৬ ম্যাচে করেন ২৯ গোল। সব মিলিয়ে ১০১ পেশাদার ম্যাচে ঠিক ৩০০ গোল—একজন মিডফিল্ডারের জন্য যা ঈর্ষণীয়। ম্যানচেস্টার সিটি ও নিউ ইয়র্ক সিটি ফুটবল ক্লাবে ক্যারিয়ারের শেষ সময়টা কাটিয়ে কাল থেম যাওয়ার ঘোষণা দেন ল্যাম্পার্ড। সেখানে ক্যারিয়ারের সব ক্লাব, সতীর্থ, কোচ, ম্যানেজার, স্ত্রী-কন্যা, বন্ধু-স্বজনদের ধন্যবাদ জানান। পাশাপাশি তাঁর হৃদয়ের সবচেয়ে কাছে থাকা ক্লাবটির কথা উল্লেখ করতেও ভোলেন না ইংল্যান্ডের সোনালি প্রজন্মের এই প্রতিনিধি, ‘আমার হৃদয়ের সবচেয়ে বড় অংশজুড়ে চেলসি। ওই ক্লাব আমাকে অনেক আনন্দের স্মৃতি উপহার দিয়েছে। একসঙ্গে মিলে যে সাফল্য পেয়েছি, তা আমি কখনো ভুলব না। ’

চেলসিও কি ভুলবে ফ্রাংক ল্যাম্পার্ডকে? তাদের ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ফুটবলার যে তিনি! মেইল


মন্তব্য