kalerkantho


বড় লক্ষ্য মুশফিকের

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বড় লক্ষ্য মুশফিকের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সেই কবে ভারত ঢাকায় এসে খেলে গিয়েছিল বাংলাদেশের অভিষেক টেস্ট। কিন্তু তাদের মাটিতে বাংলাদেশের টেস্ট খেলার ‘অভিষেক’ হতে চলেছে আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে।

এত দিন ধরে এত অপেক্ষার এই ম্যাচ তাই অবলীলায় ‘ঐতিহাসিক’ টেস্টের মর্যাদাও পেয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এই বিশেষণে যে বড্ড আপত্তি মুশফিকুর রহিমের। এ বিষয়ে বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়কের ভাষ্য, ‘আমি একটু অবাকই হই। আমার কাছে এটিকে ঐতিহাসিক ধরনের কিছু মনে হয় না। মনে হয় সাধারণ একটি টেস্ট ম্যাচই। ’

ভারতে গিয়ে টেস্ট খেলার আমন্ত্রণ এত বিলম্বে পাওয়ারও একটি ইতিবাচক দিক খুঁজে বের করেছেন মুশফিক, ‘পাঁচ বছর আগের চেয়ে এখন ভারতে যাওয়া মানে আমাদের ভালো কিছু করার আছে। ’ কারণ এখন যে বাংলাদেশ টেস্টে ইংল্যান্ডকে হারাতে জানে। শেষ পর্যন্ত হেরে গেলেও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিপক্ষে টেস্টে লম্বা সময় ধরে ছড়ি ঘোরাতেও জানে টাইগাররা। সেই সূত্রে এখন অন্য রকম আত্মবিশ্বাসের শক্তিও আছে মুশফিকদের মনে।

ভারত এত দিন পরে প্রথম আমন্ত্রণ জানালেও এখন থেকে যেন ঘন ঘন জানায়, একমাত্র টেস্টের পারফরম্যান্স দিয়ে সেটিও নিশ্চিত করে আসতে চান মুশফিক, ‘ভারতে আমাদের অনেক কিছু করার আছে। ওদের মাটিতে আমরা কেমন খেলি, প্রমাণ করার আছে সেটিও। তবে এমন পারফর্ম করতে চাই, যাতে ভারত আমাদের বারবার আমন্ত্রণ জানায়। ’ বারবার আমন্ত্রণ পাওয়ার মতো পারফরম্যান্সটা আসলে কী? সে বিষয়ে ধারণা স্পষ্ট করে দিতে পারে হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহের এ কথা, ‘অবশ্যই জিতলে ভালো লাগবে আমাদের। তবে ভারত সফরে গিয়ে খেলাটা খুব কঠিন। কারণ দেশের মাটিতে ওরা দারুণ দল। রেকর্ডও তা-ই বলছে। তবে আমাদেরও এই আত্মবিশ্বাস আছে যে ভালো লড়াই করতে পারব। কারণ টেস্টেও আমরা প্রতিনিয়ত উন্নতি করছি। ’ হাতুরাসিংহের আরেক কথায় সমানে-সমান লড়াইয়ের ঘোষণাও যেন থাকল, ‘ওদের অনেক ভালো সব স্পিনার আছে। অশ্বিন তো র‌্যাংকিংয়েরই এক নম্বর বোলার। আরো দুজন ভালো স্পিনারও আছে ওদের। তবে তার মানে এই নয় যে আমাদের স্পিনাররা ভালো নয়। ওরা যথেষ্ট দক্ষ। আমাদের সাকিব আল হাসান আছে, মিরাজ ও তাইজুল আছে, ওরা টেস্ট ক্রিকেটে দুর্দান্ত পারফর্মও করেছে। হ্যাঁ, ভারতীয় স্পিনাররা বেশি অভিজ্ঞ। তার মানে এই নয় আমরা পিছিয়ে আছি। ’ অধিনায়ক মুশফিক আবার একমাত্র টেস্টের সফরে দলীয় পারফরম্যান্সের বিশাল এক যোগফল দেখারই দাবি জানিয়ে রাখছেন সতীর্থদের, ‘ব্যক্তিগত নয়, দরকার হলো দলগত পারফরম্যান্স। যারা এত দিন ভালো খেলেছে, আশা করি তারা সেটা ধরে রাখবে। আর যারা ভালো খেলতে পারেনি, আশা করব তারাও এবার নিজেদের মেলে ধরবে। দলীয় প্রচেষ্টাটা দরকার। তাহলেই ভালো ফল হবে। ’


মন্তব্য