kalerkantho

26th march banner

জমজমাট লড়াইয়ে শুরু

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



জমজমাট লড়াইয়ে শুরু

ক্রীড়া প্রতিবেদক : দুপুর ১২টার দিকে নিজের রাউন্ড শেষ করে ফেললেন পানুফল পিতায়ারাত। ছোটখাটো গড়নের, চশমা পরা গোলগাল মুখের এই থাই গলফার প্রায় সারা বেলা আলোচনায় থাকলেন। মার্দান মাম্মাত, সাখাওয়াত হোসেনের গ্রুপ থেকে ৫ আন্ডার পার খেলেছেন, যেখানে আগের দুজনই খেলেছেন ওভার পার। কিন্তু দিন শেষে পানুফলও ম্লান, সমান ৭ আন্ডার খেলে বসুন্ধরা বাংলাদেশ ওপেনের প্রথম দিনে শীর্ষে জায়গা নিয়েছেন আরেক থাই গলফার জ্যাজ ইয়ানুয়াতানন ও ভারতীয় তরুণ শুভঙ্কর শর্মা।

বাংলাদেশের গলফারদের মধ্যে শীর্ষ দশে নেই কেউ। আগের দুই আসরের সেরা পারফর্মার সাখাওয়াত খেলেছেন ৫ ওভার! তাঁরই এই হাল, বাকিদের অবস্থা অনুমান করাই যাচ্ছিল। সিদ্দিকুর রহমান খেলা শুরু করে ৪ নম্বর হোলেই করেছেন ট্রিপল বোগি। টি থেকে বল নির্ধারিত সীমানার মধ্যেই রাখতে পারেননি তিনি। ফলে আবার নতুন করে শট নিতে হয়েছে। ওভার বাউন্ডারির জন্য গুনতে হয় মোট ২ শট পেনাল্টি। সেই হোল শেষ করতে আবার খেলেছেন বোগি। সব মিলিয়ে গেমের শুরুতেই রীতিমতো বিপর্যয়ের মধ্যে দেশসেরা গলফার। সেখান থেকে সমান পারে দিন শেষ করাটা তাঁর জন্য স্বস্তিরই। বাংলাদেশিদের মধ্যে জামাল হোসেন, রবিন মিয়া ও মোহাম্মদ নাজিম টেনেটুনে ১ আন্ডার পারে রাউন্ড শেষ করেছেন। সেটিই স্বাগতিকদের সেরা স্কোর প্রথম দিনে।

প্রথম দিনের পারফরম্যান্সে শিরোপা লড়াইয়ের ছবিটা আঁকা সম্ভব নয়। ইয়ানুতানন ও শুভঙ্করের পর পানুফল, তাঁর পরে ৪ আন্ডার পার খেলে চতুর্থ স্থানে আছেন সিঙ্গাপুরের কোহ দেং সান। ৩ আন্ডার পার খেলেছেন ভারতের চিরাগ কুমার ও যুক্তরাষ্ট্রের মিকা লরেন। শেষ পর্যন্ত তাঁদের সবাই হয়তো বা লড়াইয়ে থাকবেন না। অন্য যাঁরা এর চেয়ে কম স্কোর করেছেন বা বাংলাদেশের গলফারদের কাল একটা সময় মূল লক্ষ্যই দাঁড়ায় কাট বাঁচানো। প্রথম দিনের পারফরম্যান্সে স্বাগতিকদের মধ্যে জনা পনেরো আছেন সেই সেফ জোনে। আজ ৩ কি ৪ আন্ডার পার খেলতে না পারলে সাখাওয়াতের জন্যও পরের দুই রাউন্ডে সুযোগ পাওয়া কঠিন হয়ে যাবে। সিদ্দিকের সঙ্গে শীর্ষ গলফারের ব্যবধান ৭ শটের। পরের তিন রাউন্ডে এই ব্যবধান কাটিয়ে শীর্ষে ফেরা তাঁর জন্য অসম্ভব নয় বলে দিনশেষে একইসঙ্গে স্বস্তি ও আত্মবিশ্বাস নিয়ে তিনি বাড়ি ফিরেছেন, ‘শুরুতে যা হলো, এটা স্রেফ বিপর্যয়’। সেখান থেকে আমি খুব ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। পরের ১৪ হোলে আর একটাও বোগি খেলিনি, উল্টো ৩টি বোগি খেলে এই পারে শেষ করলাম। তো আমার জন্য এই রাউন্ডটা একটা ভালো অভিজ্ঞতা ছিল। পরের রাউন্ডগুলোতে আমি ৪-৫ আন্ডার পার করে খেলতে পারলে লড়াইয়ে ফেরা সম্ভব। আজ যারা ৭ আন্ডার খেলেছে, পরের রাউন্ডগুলোতেও তারা এই অবস্থান ধরে রাখবে এমন নিশ্চয়তা নেই। তাই আমারও সুযোগ আছে। ’

সিদ্দুিকুরের চেয়ে ১ শটে এগিয়ে থেকেও জামালের চিন্তা ঘুরে দাঁড়ানোর। আগের আসরে ৭ম হওয়া এই গলফারও যে শিরোপার লক্ষ্যেই খেলছেন। তবে প্রথম দিনের পারফরম্যান্সে তিনি দারুণ হতাশ, ‘এমন পারফরম্যান্স একেবারেই আশা করিনি। খুব ভালো প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। কিন্তু আজ মনে হয়েছে অতিরিক্ত পরিশ্রম করে ফেলেছি। বরং শক্তি সঞ্চয় করার দরকার ছিল এই আসরের জন্য। ’ ৫ ওভার খেলা সাখাওয়াতেরও মনে হয়েছে তাঁর পরিকল্পনায় ভুল ছিল। এই টুর্নামেন্টের আগে আগে টানা আরো তিনটি টুর্নামেন্ট খেলায় চাপ পড়ছে এখন তাঁর শরীরের ওপর। ৫ আন্ডার খেলা পানুফল বা শীর্ষে থাকা ইয়ানুয়াতানন, শুভঙ্করদের প্রতিক্রিয়া প্রত্যাশিতভাবেই এর বিপরীত। শুভঙ্কর গত সপ্তাহেই মিয়ানমারে খেলে এই সপ্তাহে আবার ঢাকায় খেলছেন, তাঁর মধ্যে কোনো ক্লান্তির ছাপ নেই, ‘দারুণ একটা রাউন্ড গেছে আমার। যা করতে চেয়েছি তা-ই হয়েছে। যে কয়টা বার্ডি পেয়েছি তার প্রত্যেকটিতেই আমার ড্রাইভ খুব ভালো ছিল। পাটিংয়ের সুযোগগুলো খুব ভালোভাবেই কাজে লাগাতে পেরেছি। ’ ভারতের ২০ বছর বয়সী গলফার এখনো তাঁর প্রথম এশিয়ান ট্যুর শিরোপার অপেক্ষায়। ইয়ানয়াতাননও এখনো কোনো শিরোপা জেতেননি। তিনি পেশাদার গলফে খেলা শুরুই করেছেন ২০১২ সাল থেকে। গত টুর্নামেন্ট জিতে নিয়েছিলেন তাঁরই স্বদেশি গলফার থিটিফুন। এবার কি ইয়ানুয়াতাননের সুযোগ? নাকি শুভঙ্কর বাধা হয়ে দাঁড়াবেন তাঁর? বাংলাদেশের জামাল, সিদ্দিক সত্যিই কি ঘুরে দাঁড়াবেন? আজ দ্বিতীয় দিনে সেই আভাস অন্তত মিলবে।


মন্তব্য