kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আবার বিধ্বস্ত গার্দিওলা

২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



আবার বিধ্বস্ত গার্দিওলা

ন্যু ক্যাম্পের চেনা অলিন্দে পেপ গার্দিওলার ফেরা হলো প্রায় ১৬ মাস পর। আগমনের উপলক্ষটা অবশ্য একই, চ্যাম্পিয়নস লিগ।

ফলও এক, হার। তবে এবার ব্যবধানটা আরেকটু বেশি। গেল বছর ন্যু ক্যাম্পের প্রতিপক্ষ ডাগআউটে গার্দিওলা বসেছিলেন বায়ার্ন মিউনিখের কোচ হিসেবে, লিওনেল মেসির জোড়া গোলে দেখেছেন দলকে ৩-০ ব্যবধানে হারতে। বুধবার রাতে সেখানেই ‘পেপ’ বসেছিলেন ম্যানচেস্টার সিটির কোচের ভূমিকায়। এবারে মেসির হ্যাটট্রিক, হার ৪-০ গোলে আর বাড়তি পাওনা (!) ক্লাউদিও ব্রাভোর লাল কার্ড। মেসির গুরুমারা বিদ্যাতেই চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রতিপক্ষের মাঠে ব্যর্থতার পাল্লাটা আরেকটু ভারী হলো গার্দিওলার। ইংল্যান্ডের অন্য ক্লাব আর্সেনালের অবশ্য দারুণ কেটেছে রাতটা, দুর্বল প্রতিপক্ষ বুলগেরিয়ার লুদোগোরেৎসকে গোলবন্যায় ভাসিয়ে গানাররা জিতেছে ৬-০ গোলে। হ্যাটট্রিক করেছেন মেসুত ওয়েজিল। বায়ার্ন মিউনিখ ৪-১ গোলে হারিয়েছে পিএসভিকে, ৩-০ গোলে বাসেলকে হারিয়েছে প্যারিস সেন্ত জার্মেই আর নিজের মাঠে বেসিকতাসের কাছে ৩-২ গোলে হেরে গেছে নাপোলি।

টানেল থেকে যখন বের হচ্ছিলেন গার্দিওলা আর লুই এনরিকে, তখন ক্যামেরা ধরছিল দুজনকে। খানিকটা দুষ্টুমি, হাসি আর আলিঙ্গনে বোঝা গেল তাঁরা একে অন্যের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও প্রতিপক্ষ নন। সের্হিয়ো আগুয়েরোকে কেন প্রথম একাদশে রাখেননি ম্যানসিটি কোচ সেটা রহস্যই হয়ে থাকল। বার্সেলোনা শুরু থেকেই ‘এমএসএন’ ত্রিফলায় বলীয়ান হয়ে চেনা চেহারায়। শনিবার লা লিগার ম্যাচে না খেলা ইহোর্দি আলবা ম্যানসিটির সঙ্গে মাঠে নেমে টিকতে পারলেন মাত্র ৯ মিনিট, চোটের কারণে চলে গেলেন বেঞ্চে। ম্যাচের দশম মিনিটেই একাদশে বদল আনলে যেকোনো কোচের কপালে ভাঁজ পড়তে বাধ্য। এনরিকের অবশ্য সেই অভিজ্ঞতা হলো না, কারণ তাঁর দলে যে মেসি আছেন! ফের্নান্দিনিয়ো ও ব্র্যাভোর যৌথ ভুলে বলা চলে গোলরক্ষকের হাতের সামনে থেকে বল কেড়ে নিয়ে গোল করলেন এই আর্জেন্টাইন, চ্যাম্পিয়নস লিগে সপ্তম হ্যাটট্রিকের সেটা ছিল প্রথম গোল। প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে স্টার্লিংয়ের ক্রস বার্সেলোনার লুকা ডিনিয়ের হাতে লাগলেও পেনাল্টি দেননি রেফারি, তাই ১-০তে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে কাতালানরা। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকেই লাল কার্ড দেখেন ব্রাভো। বক্সের বাইরে এগিয়ে এসেছিলেন ব্যাকপাস ধরতে, ভুল পাস বাড়িয়ে দেন লুই সুয়ারেসের দিকে আর সেটা পেয়ে গোলে নেওয়া সুয়ারেসের শট ঠেকাতে সহজাত প্রতিক্রিয়ায় উঠে যায় হাত! অতঃপর লাল কার্ড দর্শন করে সাবেক বার্সেলোনা গোলরক্ষকের মাঠত্যাগ! একই সময়ে ডিনিয়ের সঙ্গে সংঘর্ষে চোট পেয়ে পাওলো সাবালেতাও মাঠে শুয়ে কাঁতরাচ্ছেন। অগত্যা দুটি পরিবর্তন করলেন গার্দিওলা, নলিতোকে তুলে গোলরক্ষক উইলি কাবায়েরো আর আহত সাবালেতার বদলে গায়েল ক্লিশি। ফের খেলা শুরু হতেই গোল মেসির, একই ম্যাচে দুই গোলরক্ষকের বিপক্ষেই গোল করার অভিজ্ঞতা তাঁর এবারই প্রথম। ৬১ মিনিটে দ্বিতীয় গোল আর ৬৯ মিনিটে ইকেই গুন্ডোয়ানের ভুল পাস থেকে সুয়ারেসের পেয়ে যাওয়া বলের উৎস থেকে তৃতীয় গোল করে বার্সেলোনার জার্সিতে ৩৭তম হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন মেসি। ৮৬ মিনিটে কোলারভের ফাউলে পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা, তাতে গোল করতে ব্যর্থ হলেও মিনিট খানেকের মধ্যেই দারুণ গোল করে প্রায়শ্চিত্ত করেন নেইমার।

৪-০ গোলের হারের কারণ হিসেবে গার্দিওলা রক্ষণের ভুলকেই সামনে আনলেন, ‘এই পর্যায়ে লড়ে যাওয়াটাই কঠিন, তবু ১০ জনে নেমে যাওয়ার আগে আমরা ভালোই পাল্লা দিচ্ছিলাম। লাল কার্ডের পর খেলা ওখানেই শেষ। সেই সেল্টিকের সঙ্গে ম্যাচ থেকে সব একই রকম হচ্ছে। আত্মঘাতী গোল, দুটি পেনাল্টি মিস...আমাদের এই অভ্যাস বদলাতে হবে। ’ ব্রাভোর লাল কার্ডের জন্য গোলরক্ষককেও কোনো দোষ দিচ্ছেন না পেপ, ‘তার সঙ্গে কথা হয়েছে, সেও খুব হতাশ। এসব খেলারই অংশ। ’ আর শিষ্য মেসির প্রশংসায় এনরিকে বললেন, ‘সে ছিল একদমই চাপমুক্ত, মনে হচ্ছিল স্কুলের মাঠে বন্ধুদের সঙ্গে খেলছে। ’ অথবা বলা যায়, প্রতিপক্ষকে স্কুল ছাত্রের পর্যায়েই নামিয়ে আনলেন মেসি, যে স্কুলের হেডমাস্টার তারই সাবেক ‘শিক্ষক’ গার্দিওলা!

প্রতিপক্ষের জালে ৪ গোল দিয়ে জিতেছে বায়ার্নও, গোল করেছেন; মুলার, কিমিখ, লেভানদোস্কি, রবেন। যদিও বাভারিয়ানরা ১ গোল হজমও করেছে, যেটা করেছেন পিএসভির লুসিয়ানো নারসিং। আরেক জার্মান দল বরুশিয়া মুনশেনগ্ল্যাডবাখ ২-০ গোলে জিতেছে সেল্টিকের মাঠে। রোস্তভের সঙ্গে ইয়ানিক কারাস্কোর একমাত্র গোলে জিতেছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ, এতে করে নিজের মাঠে ২৬ ম্যাচ অপরাজিত থাকার চক্রব্যূহ ভাঙল রুশ ক্লাবটির।

গ্রুপ পর্বে ৩ রাউন্ড খেলা শেষে, নিজেদের ‘সি’ গ্রুপে ৫ পয়েন্টে এগিয়ে থেকে ৩ খেলার সবগুলোতে জিতে ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। বুধবার রাতে হেরেও ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘বি’ গ্রুপে শীর্ষে নাপোলি তবে ১ পয়েন্ট পেছনেই আছে বেসিকতাস, বায়ার্ন ও অ্যাতলেতিকো দুই দলই জেতায় ‘ডি’ গ্রুপে কোনো পরিবর্তন নেই, বায়ার্নের সঙ্গে জেতায় এগিয়েই আছে অ্যাতলেতিকো। গোলডটকম


মন্তব্য