kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পিটারসেনের সতর্কবার্তা ইংল্যান্ডকে

২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পিটারসেনের সতর্কবার্তা ইংল্যান্ডকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশে দুই টেস্টের সিরিজ শেষ হতে না হতেই ইংলিশদের ছুটতে হবে ভারতে, যেখানে পাঁচ টেস্টের সিরিজের সূচিও ঠিক হয়ে আছে। মনে হতে পারে দীর্ঘ ও ক্লান্তিকর।

কিন্তু ইংল্যান্ডের টেস্ট অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুকের মনে হচ্ছে একটানা বেশ কিছু টেস্ট থাকলে ছন্দটা ধরতে সুবিধাই হয়। সুবিধা হয় জয়ের অভ্যাস গড়ে তুলতেও। এটি অবশ্য মুদ্রার এক পিঠ। নিজের লেখা কলামে কুককে মুদ্রার অন্য পিঠের কথাও মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেন। তাঁর কথা, ‘একই সময়ে কিন্তু আপনি খুব দ্রুত হারের ঘূর্ণাবর্তেও আটকা পড়ে যেতে পারেন। ’

অর্থাৎ আজ থেকে চট্টগ্রামে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে কুকদের সতর্কও করে দিচ্ছেন কেপি। নিজের সময়ে ব্যাটিং বিনোদনের প্রতীক হয়ে যাওয়া এ ক্রিকেটার আসন্ন ভারত সিরিজের ‘এক্স ফ্যাক্টর’ কোনটি হবে, আগাম লিখে দিয়েছেন তাও, ‘কোন দল স্পিন ভালো খেলবে, তার ওপরই আসলে নির্ভর করছে এই শীতে ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজের ভাগ্য। ভারত অবশ্য ইংলিশদের ৫-০তে হোয়াইটওয়াশ করার আশাতেই থাকবে। যে কারণে ওরা বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজে ইংলিশদের খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করবে। যদি এমন হয় যে ইংল্যান্ড সিরিজটি ১-১ এ ড্র করেছে এবং ব্যাটসম্যানদের ভুগিয়ে স্পিনাররা চড়ে বসেছে, তাহলে পরের মাসে ইংলিশরা নিজেদের প্রবল চাপের মধ্যে আবিষ্কার করে ভারতে পৌঁছাবে। ’

সে জন্যই দক্ষিণ আফ্রিকায় জন্ম নেওয়া এই ইংলিশ ক্রিকেটার বাংলাদেশের স্পিনারদের খেলার ক্ষেত্রে বাড়তি সতর্কতারই দাবি জানিয়ে রাখছেন, ‘সামনে ভারত সিরিজ আছে বলেই বাংলাদেশ সিরিজটি ইংল্যান্ডের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। ওরা স্বাগতিকদের সমীহও করবে কারণ নিজেদের মাটিতে বাংলাদেশ বেশ লড়াকু দল। প্রাণহীন উইকেটে ওরা ইংল্যান্ডকে চেপে ধরতে চাইবে। ওরা এটাও জানে যে স্পিনারদের বিপক্ষে এক সেশনেই চারটি উইকেট খুইয়ে বসতে পারে ইংল্যান্ড। এরকম কিছু হলে ম্যাচটি হয়ে যেতে পারে যে কারো। তাই আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোনো সুযোগই এখানে নেই। এই টেস্ট দুটি ভারত সিরিজের আদর্শ প্রস্তুতির মঞ্চও। আমি বলি প্রতিপক্ষকে সমীহ করে নেমে ওদের ভালোভাবেই হারাও। স্পিনাররা উপমহাদেশের উইকেটে ভালো বোলিংয়ের উপায়টা খুঁজে নাও আর ব্যাটসম্যানরা স্পিনের বিপক্ষে রান করার পদ্ধতিটা বের করো। ’

ব্যাটসম্যানদের কিছু উপায় অবশ্য নিজেও বাতলে দিয়েছেন কেপি, ‘ভারতীয় উপমহাদেশে স্পিন ভালো খেলার পূর্বশর্তই হলো লেন্থ এবং কোন জায়গায় রান করা যাবে, সেসব বুঝতে পারা। সেই সঙ্গে স্ট্রাইক রোটেট করাও জানতে হবে। ’ একজনের ব্যাটে প্রচুর রানও দেখতে পাচ্ছেন কেপি, “জো রুট স্পিন খেলায় দুর্দান্ত এক ব্যাটসম্যান। ওর এখন এভাবেই ভাবা উচিত যে, ‘আমি এখন ভারতে। কাজেই চেক ইন করে প্রচুর রান করতে চলেছি আমি। ’ আমি যতবারই ভারতে গিয়েছি, প্রতিবারই মনে হয়েছে প্রচুর রান করার এই তো সময়। আমার টেকনিক ভারতে রান করার ক্ষেত্রে অনুকূল ছিল, রুটেরও তাই। কাজেই এ সফরটি ওর জন্য প্রচুর রান করে নেওয়ার সুযোগও। ’’


মন্তব্য