kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সঙ্গী অজানা কুকের!

১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সঙ্গী অজানা কুকের!

দলে নতুন কারো আগমন সম্পর্কে আর কারো না হোক অন্তত অধিনায়কের তো জানার কথা! অথচ অ্যালিস্টার কুক বলছেন, চট্টগ্রাম টেস্টে স্ট্রাইক সেবার সময় অন্য প্রান্তে কে থাকবে, সেটা এখনো অজানা তাঁর।

ইংল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করে কম বয়সেই শিরোনাম হয়েছেন হাসিব হামিদ।

অন্যদিকে বাংলাদেশ সফরে এসে বেন ডাকেটও তো দারুণ ফর্মে। ফতুল্লায় ওয়ানডে শুরুর আগের প্রস্তুতি ম্যাচ থেকে চট্টগ্রাম টেস্টের আগে দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচ পর্যন্ত ৬ ইনিংসে চারটি হাফসেঞ্চুরি। নিরাপত্তার অজুহাতে বাংলাদেশে না আসা ওপেনার অ্যালেক্স হেলসের বদলে ইংল্যান্ডের হয়ে ইনিংসের সূচনায় কে নামবেন, তা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলেই জানিয়েছেন কুক, ‘শেষ পর্যন্ত যা হয়, এই পরিস্থিতিতে কে সবচেয়ে বেশি রান করবে সেটাই মুখ্য হয়ে দাঁড়ায়। তবে সবচেয়ে ভালো লাগছে যে ব্যাপারটা, তা হলো দুজনই দলে ঢোকার মতো পারফর্ম করছে। বেন ওয়ানডেতে ভালো করেছে আর হাসিবের সম্পর্কে যা শুনেছি, সবই দারুণ। ১৯ বছরের একজন আর ২২ বছরের একজন দলে আসার লড়াইতে, এটা তো ইংল্যান্ডের নির্বাচকদের জন্য ভালো খবর। ’ শুধু বাংলাদেশ সফরের দুটো টেস্টই নয়, ভারত সফরের পাঁচটি টেস্টের কথাও মাথায় রাখছেন কুক, ‘এ রকম কন্ডিশনে আমাদের ৭টা ম্যাচ খেলতে হবে। আট সপ্তাহে ৭ টেস্ট খেলতে হবে, উপমহাদেশে এমন অভিজ্ঞতা কখনো হয়নি আমার। ’

অ্যান্ড্রু স্টাউস খেলা ছাড়ার পর ২২ গজের অন্য প্রান্তে একের পর এক সঙ্গী বদলেছে কুকের। ইংল্যান্ডের হয়ে যৌথভাবে সর্বোচ্চ ১৩৩ টেস্ট খেলার রেকর্ড তাঁর। চট্টগ্রামে এককভাবেই রেকর্ডটা হতে যাচ্ছে কুকের। রেকর্ডের সেই টেস্টে সঙ্গী কে হবেন, হামিদ না ডাকেট—এ প্রশ্নের উত্তর কুক প্রকাশ্যে না দিলেও জোর খবর, টেস্ট অভিষেক হতে যাচ্ছে ডাকেটেরই। অফস্টাম্পের বাইরের বল ছাড়ার ধৈর্য দেখিয়ে হামিদ বুঝিয়েছেন, তাঁর মধ্যে নতুন কুক হয়ে ওঠার প্রতিভা আছে। তবে জো রুট, ট্রেভর বেলিস ও কুকের আলাপে উঠে এসেছে যে শুরুতে আরেকজন ‘কুক’ নয় বরং তাঁর একজন আগ্রাসী সঙ্গী দরকার, যেটা ছিলেন হেলস। তাই দিন দুই আগে ২২তম জন্মদিনের কেক কাটা ডাকেট উপহার হিসেবে পেয়ে যেতে পারেন টেস্ট ক্যাপ। তাঁর অভিষেক নিশ্চিত, নিশ্চিত নয় হামিদেরটা। যদি শেষ পর্যন্ত হামিদও টেস্ট ক্যাপ পান, তাহলে ডাকেট নেমে যাবেন মিডল অর্ডারে আর তাতে কপাল পুড়বে গ্যারি ব্যালেন্সের। সোমবার প্রস্তুতি ম্যাচে সাতে ব্যালেন্সকে ব্যাট করতে পাঠায় ইংল্যান্ড, তাঁর আগে পাঠায় বেন স্টোকস ও জনি বেয়ারস্টোকে। তাতেই আভাস পাওয়া যায়, চট্টগ্রামের একাদশে হয়তো থাকছেন না ব্যালেন্স।

ডাকেটও বোধ হয় আভাস পেয়ে গেছেন অভিষেকের, বললেন, ‘আত্মবিশ্বাসী লাগছে। আমাকে যদি বৃহস্পতিবারে খেলতেই হয়, আমি তৈরি। একটু নার্ভাস তো লাগবেই, তবে আমি খুব মুখিয়েও আছি। টেস্ট খেলা আমার স্বপ্ন। কোথায় ব্যাট করব, সেটা নিয়ে একদমই ভাবছি না। টপ অর্ডারে ব্যাট করলে ভালো লাগবে তবে যেকোনো সুযোগই আমি নেব। ’

মেয়ে অ্যালিসের জন্মের সময় স্ত্রীর পাশে থাকতে দেশে ফিরে গিয়েছিলেন কুক, ফিরেছেন সোমবার। সেদিনই প্রস্তুতি ম্যাচে মাঠে দুই রকম দুটো ফিফটি করেছেন কুকের সম্ভাব্য দুই সঙ্গী। ১০১ বলে সাবলীলভাবে ৬০ রান করার পর মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে তাঁকে ডেকে আনে টিম ম্যানেজমেন্ট, অবসর নিয়ে ডাকেট সুযোগ দেন অন্যদের। ধ্রুপদী ঢংয়ে দুই সেশন ব্যাট করার পর অবসর নেন হামিদও। এ দুজনের কাকে চট্টগ্রামের ড্রেসিংরুম থেকে বের হতে দেখা যাবে, সেটা ইংল্যান্ডের মধুর সমস্যা হলেও বাংলাদেশের জন্য কিন্তু শুধুই সমস্যা! টেলিগ্রাফ


মন্তব্য