kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চমকের ছড়াছড়ি টেস্ট দলে

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



চমকের ছড়াছড়ি টেস্ট দলে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ইংল্যান্ড সিরিজ সামনে রেখে ৩০ জনের প্রাথমিক দলেও ছিলেন না তিনি, ছিলেন হাই পারফরম্যান্সের (এইচপি) শিবিরে। সেখান থেকে এনে মেহেদি হাসান মিরাজকে ২০ জনের দলে জায়গা দেওয়ার পেছনের ভাবনাটা স্পষ্ট হলো গতকাল ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২০ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া প্রথম টেস্টের দল ঘোষণার পর।

এই অফস্পিনিং অলরাউন্ডার ১৪ সদস্যের স্কোয়াডেই শুধু নেই, সুযোগ পেয়েই তাঁর টেস্ট অভিষেকেরও জোরালো সম্ভাবনা।

সেই সম্ভাবনার ছবিও স্পষ্ট হয়ে গেল কাল বিকেলে চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলনে বলা প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের কথায়। গত জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেওয়া মিরাজের সামর্থ্যে প্রবল আস্থাশীলতাই প্রকাশ করলেন তিনি, ‘অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে এবং ঘরোয়া ক্রিকেটে যথেষ্ট ভালো খেলেছে মিরাজ। আমাদের মনে হচ্ছে দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেটে ওর কাছ থেকে অনেক কিছু পাওয়ার আছে। ওরও দেওয়ার আছে অনেক কিছু। সে জন্যই ওকে দলে নেওয়া। দলে যখন নিয়েছি, তখন অবশ্যই ধরে নিতে হবে ও টেস্ট খেলার জন্য প্রস্তুত। ’

টেস্ট খেলার জন্য প্রস্তুত হতে পারেন ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি দলের অপরিহার্য সদস্য সাব্বির রহমানও। তাঁর সাদা পোশাকের ক্রিকেট খেলার দীর্ঘ লালিত স্বপ্নটা এবার পূরণ হওয়ার পথেই। সে আভাস সংবাদ সম্মেলনে মিনহাজুলের পাশেই বসা হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহে দিয়েছেন বলে ভরসাও করা যায়। সে জন্যই ২০ অক্টোবর সাব্বিরের মাথায়ও টেস্ট ক্যাপ ওঠার আগাম ছবি এঁকে রাখতে হচ্ছে, ‘এখন আমাদের হাতে অনেক বিকল্প। একটি জায়গার জন্য অনেক খেলোয়াড় থাকাও ভালো। সাব্বিরকে নিয়ে আমরা সিরিয়াসলি ভাবছি যে কিভাবে ওকে একাদশে জায়গা দেওয়া যায়। ’

সবাই তো আর একাদশে ঠাঁই পাবেন না, তবে ১৪ জনের স্কোয়াডে চমক আর পরিবর্তনের ছড়াছড়ি। গত বছর জুলাইতে দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলা সবশেষ টেস্ট দলে পরিবর্তন ছয়টি। কাঁধের অস্ত্রোপচারের পর পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় থাকা মুস্তাফিজুর রহমানের না থাকাটা স্বাভাবিকই। মিনহাজুল জানিয়েছেন ওই টেস্টে উইকেটকিপিং করা লিটন কুমার দাশের খেলার মতো ‘ফিটনেস’ এখনো আসেনি। লেগ স্পিনার জুবায়ের হোসেনের ওপর থেকে তাঁর ‘অভিভাবক’ হাতুরাসিংহের আস্থা হারানোর খবর তো আগেই শুনেছেন। দীর্ঘ বিরতির পর সবে ওয়ানডে খেলা নাসির হোসেনের টেস্টে সুযোগ পাওয়ার ব্যাপারটি আলোচনাতেই ছিল না। আর প্রোটিয়া সিরিজ খেলা পেসার মোহাম্মদ শহীদের ফিটনেস সন্দেহাতীত নয়। রুবেল হোসেনের কার্যকারিতায়ও আস্থা ফেরেনি টিম ম্যানেজমেন্টের। ওদিকে আবার মাশরাফি বিন মর্তুজাও টেস্ট খেলেন না বহুদিন। সব মিলিয়ে পেস আক্রমণ থেকে দৃষ্টি ঘুরিয়ে আবার স্পিনেই ফিরেছে বাংলাদেশ।

এই দলে তাই পেসার মাত্র দুজন। ফিরেছেন শফিউল ইসলাম আর তাঁর সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে বেশ কিছুদিন ধরেই জাতীয় দলের দরজায় কড়া নেড়ে যাওয়া কামরুল ইসলাম রাব্বিকে। তাঁর পুরনো বলে ভালো করার সামর্থ্যের প্রশংসাও ঝরেছে প্রধান নির্বাচকের কণ্ঠে। অলরাউন্ডার হলেও বোলিং সামর্থ্যের কারণেই সুযোগ পাওয়া মিরাজের সঙ্গে আরেক অফ স্পিনার শুভাগত হোমও দলে ফেরায় একাদশে তিনজন স্পিনার খেলানোর সম্ভাবনাও জোরালো হয়ে উঠছে। দুই বাঁহাতি স্পিনার সাকিব আল হাসান ও তাইজুল ইসলামের সঙ্গে অফ স্পিনারদের বাড়তি গুরুত্ব পাওয়ার কারণ ইংলিশ স্কোয়াডে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান বেশ কয়েকজন।

বেশ কিছুদিন ধরেই অনেকের চোখে দেশের সেরা উইকেটকিপারের স্বীকৃতি পেয়ে আসা নুরুল হাসানের অন্তর্ভুক্তিও নতুন জিজ্ঞাসা উসকে দিয়েছে। অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম কি তবে শুধুই ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলবেন? যেমনটি সবশেষ সিরিজেও হয়েছে, উইকেট আগলানোর দায়িত্ব পালন করেছিলেন লিটন। হাতুরাসিংহের কাছ থেকে সিদ্ধান্তে পৌঁছার মতো কিছু পাওয়া গেল না, ‘দলে দুজন কিপার রাখার কারণ ম্যাচের দিন সকালেও তো কারো কিছু হতে পারে। তখন তো কাউকে লাগবে। এই মুহূর্তে মুশফিকই আমাদের কিপার। সোহান (নুরুলের ডাকনাম) দেশের অন্যতম সেরা কিপার। লিটনও ভালো, তবে সে ইনজুরিতে। সে জন্য সোহান সুযোগ পেয়েছে। ’ প্রিয় শিষ্য জুবায়েরের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেললেও হাতুরাসিংহে তা হারাননি সৌম্য সরকারের ক্ষেত্রে, ‘গত টেস্ট স্কোয়াডেও সে ছিল। আমরাও ওর ফর্ম নিয়ে চিন্তিত। আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতেই ওকে বেশি সুযোগ দিচ্ছি। এখনো সে ভালো খেলোয়াড়। ফর্ম খারাপ হলেও সেটি সাময়িক। ’


মন্তব্য