kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

এর দায়দায়িত্ব ফুটবলারদেরই নিতে হবে

ভুটানের কাছে অজেয় থাকার সামান্য গৌরবটুকুও আর অবশিষ্ট নেই ফুটবলে। এই হারেই সর্বস্ব গেছে—এমনটাই এখন আলোচনা হচ্ছে সর্বত্র। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি সাবেক ফুটবলার মতিউর মুন্না এ প্রসঙ্গে ক্ষোভ আর হতাশাই প্রকাশ করেছেন

১৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



এর দায়দায়িত্ব ফুটবলারদেরই নিতে হবে

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : ভুটানের কাছে হারের চেয়ে লজ্জার তো আর কিছু হতে পারে না, সাবেক ফুটবলার হিসেবে আপনাদের কষ্টটা নিশ্চয় আরো বেশি?

মতিউর মুন্না : সত্যি এখন যেখানেই যাই, লোকে বলে—ফুটবল তো শেষ হয়ে গেছে। সাবেক একজন ফুটবলার হিসেবে এর চেয়ে খারাপ লাগার আর কী আছে।

আমি বলব এর দায়দায়িত্বটা এখনকার খেলোয়াড়দেরই নিতে হবে। যত যা-ই হোক, ভুটানের কাছে হার, তাও ৩ গোল হজম করে—এটা কিছুতেই মানা যায় না।

প্রশ্ন : সংগঠকদেরও সমালোচনা হচ্ছে তাঁদের পরিকল্পনাহীনতার কারণে—

মুন্না : সেটিও আছে। এখন পর্যন্ত আমাদের কোনো ক্যালেন্ডার নেই। কবে কী হবে, কী হচ্ছে তার কোনো কিছুরই কোনো ঠিক-ঠিকানা নেই। ম্যাচের আগে আগে জাতীয় দলের ১০-১৫ দিনের ক্যাম্প করিয়ে দিলেই যেন হলো!

প্রশ্ন : বারবার কোচ বদলও তো দলের ওপর প্রভাব ফেলে...

মুন্না : খেলা না থাকলেই আর কোচ নেই—এটা কেমন কথা হলো! এখন তো আর খেলাই নেই—এখন কী হবে? এই সময়ে ফেডারেশন জেলায় জেলায় স্থানীয় কোচদের পাঠাক। তারা একাডেমির মতো কার্যক্রম পরিচালনা করুক। খেলোয়াড় তুলে আনতে হবে। আমাদের তো খেলোয়াড়ের সংকট। লিগে বিদেশিরা খেলে গুরুত্বপূর্ণ পজিশনগুলোতে, এই তিন বছর বিদেশিহীনভাবে লিগ চলুক, দেখা যাক খেলোয়াড় বেরোয় কি না। এখন কী হচ্ছে, জেলায় জেলায় গিয়ে লিগের খেলা হচ্ছে অথচ দলগুলো কিন্তু সেই ঢাকারই। এর কোনো অর্থ আছে? এটা লোক দেখানো ছাড়া তো আর কিছুই না। এই করে তো ঢাকার বাইরে থেকে খেলোয়াড় উঠে আসবে না।

প্রশ্ন : লিগের ক্লাবগুলোকে নিয়েই অনূর্ধ্ব-১৮ বছর বয়সীদের টুর্নামেন্ট শুরু হয়েছিল, সেখান থেকে তো খেলোয়াড় উঠে আসার সুযোগ ছিল...

মুন্না : তাতো অবশ্যই, যুব ফুটবল নিয়ে এখন কোনো কাজই হচ্ছে না। আগে আমরা কত ধরনের টুর্নামেন্ট খেলতাম! সরাসরি এসেই প্রিমিয়ারে খেলেছি নাকি? সোহরাওয়ার্দী কাপ, শেরে বাংলা কাপের মতো টুর্নামেন্টগুলো ছিল খেলোয়াড়দের উঠে আসার প্ল্যাটফর্ম। আসলে যারা এখন ফুটবলটা চালাচ্ছে তাদের এসব কিছুর দায় নিয়ে এখন সরে যাওয়া উচিত। সেই ১৯৯৩ সাল থেকে তো দেখছি, ঘুরেফিরে এরাই আছে ফুটবলে—এটা পরিবর্তন হওয়া দরকার। এখন কিন্তু সেই আবাহনী-মোহামেডানের আধিপত্য আর নেই। লিগে অনেকগুলো দল শক্তিশালী হয়ে গেছে। তার মানে ফুটবলে এগিয়ে আসার মতো নতুন লোকজন আছে। তাদের সুযোগ করে দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি।


মন্তব্য