kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


‘মৃত’ ফুটবলের প্রতি সমবেদনা

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



‘মৃত’ ফুটবলের প্রতি সমবেদনা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিকেল থেকে গুঞ্জন ফুটবল ভবন ঘেরাও করতে আসছে ক্ষুব্ধ জনতা। ভুটান ম্যাচের হার মেনে না নিতে পেরে ফেডারেশন ভাঙচুরই করে কি না তারা, এমন শঙ্কা।

তবে অত কিছু হলো না। ২০-২৫ জনের একটা দল হাতে ‘ফুটবল মৃত, সমবেদনা জানাতে এলাম’—প্ল্যাকার্ড নিয়ে ভবনের সামনে জড়ো হলো। এ-ও অস্বাভাবিক না। ফুটবল অনেক দিন থেকেই আর আলোড়ন তোলে না মানুষের মনে। মতিঝিলপাড়ার ক্লাব ভবন আর দশটা ফেডারেশন অফিসের মতোই। ইতিহাসে কোনটা বেশি লজ্জার—ভুটানের কাছে প্রথমবারের হার, মালদ্বীপের কাছে ৫ গোল হজম, টানা তিন সাফে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নাকি ফিফা র্যাংকিংয়ে সর্বনিম্ন স্থানে পৌঁছে যাওয়া। ফুটবলের পতনের হিসাব কষতেই মানুষ ক্লান্ত হয়ে যাবে, যে জন্য ২০-২৫ জনের বেশি কেউ হয়তো পোছেই না ফুটবলের কী হলো না হলো তাতে!

সাবেক তারকা ফুটবলার ওয়াসিম ইকবাল ভেবে অবাক হয়ে যান, ‘এখনকার কর্মকর্তাদের চেয়ার বাঁচাতে নির্বাচনের সময় যত দৌড়ঝাঁপ দেখেছি, নাওয়া-খাওয়া হারাম করেছেন—ফুটবলের উন্নতির জন্য তার সিকিভাগ ভাবনাও কি তাঁদের ছিল!’ থাকলে এত বছরেও কেন একটা একাডেমি দাঁড়াল না, কেন যুব ফুটবল বলে দেশে এখনো কিছু নেই, কেন জাতীয় দল নিয়ে বারবার এমন অব্যস্থাপনা?’ একসময় সোনালি অতীত বলে যা ছিল, তা ধ্বংসের খেলায় মেতেছে যেন এ প্রজন্ম। ফুটবল এর পরেও আর কত তলানিতে যেতে পারে জানা নেই গোলাম সারোয়ার টিপুর, ‘এ পরিণতির শঙ্কাটা ছিলই। তার পরও যে কেন আমরা সজাগ হলাম না জানি না। ফুটবল আর কত নিচে নামলে আমাদের হুঁশ হবে। এখন যে অন্ধকূপে পড়ে গেছি, সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোও তো কঠিন। ’ আগামী তিন বছর বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক আর কোনো ম্যাচই নেই। বিশ্বকাপ বাছাই থেকে বাদ পড়ে এশিয়ান বাছাইয়ে জায়গা করে নেওয়ার জন্য দুটি প্লে-অফের সুযোগ ছিল। তাজিকিস্তানের কাছে প্রথম প্লে-অফ হারের পরই ভুটানের কাছে এই লজ্জা। প্রিমিয়ার লিগে রহমতগঞ্জকে শীর্ষে তোলা কোচ কামাল বাবু বাংলাদেশ দলের এই ম্যাচের পারফরম্যান্স নিয়ে বলছিলেন, ‘মাঝখানে ইতালিয়ান কোচ লোপেজের অধীনে যেমন অগোছালো দেখেছিলাম দলটাকে, কাল ভুটানের বিপক্ষেও সে রকমই মনে হলো। খেলোয়াড়রা তিনটা পাস একসঙ্গে খেলতে পারছে না, এলোমেলো বল বাড়াচ্ছে। ’

ম্যাচ শেষে কোচ সেইন্টফিট আবার খেলোয়াড়দের দায় দিয়েছেন এই বলে, ‘ওরা তিকিতাকা খেলতে চায়; কিন্তু বোঝে না, ওটা শুধু বার্সেলোনাই খেলতে পারে। ’ জাতীয় দলের এখনকার ফুটবলারদের তিকিতাকার ভক্ত বানিয়ে গেছেন লোডউইক ডি ক্রুইফ। সেইন্টফিট খেলাতে চাচ্ছেন ‘ডিরেক্ট ফুটবল। ’ বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মান এমনিই নিম্নমুখী, দফায় দফায় কোচ বদলে তাঁরা আরো দিশাহারা। দেশে একটা একাডেমিও নেই, যেখান থেকে ফুটবলাররা তৈরি হয়ে বেরোতে পারবেন। ওদিকে মালদ্বীপ, নেপাল, ভুটান এগিয়ে যাচ্ছে সেটিকেই ভিত্তি ধরে।


মন্তব্য