kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ডাবল সেঞ্চুরিতে কোহলির ইতিহাস

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ডাবল সেঞ্চুরিতে কোহলির ইতিহাস

ছন্দ হারিয়েছিলেন নর্থ সাউন্ডে ডাবল সেঞ্চুরির পর। মাঝের সাত ইনিংসে পাননি কোনো ফিফটি।

বিরাট কোহলি রানখরাটা কাটালেন সেই ডাবল সেঞ্চুরিতেই। গতকাল ইন্দোর টেস্টের দ্বিতীয় দিন ২১১ রানের ইনিংসে নতুন ইতিহাসও গড়েছেন কোহলি। প্রথম ভারতীয় অধিনায়ক হিসেবে টেস্টে দুটি ডাবল পেলেন তিনি। ১২ রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরি পাননি আবার আজিঙ্কা রাহানে। চতুর্থ উইকেটে রাহানেকে নিয়ে কোহলির ৩৬৫ রানের জুটিতে ৫ উইকেটে ৫৫৭ রানে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। জবাবে ৯ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ২৮ রানে দিন শেষ করেছে নিউজিল্যান্ড।

নর্থ সাউন্ডে ডাবল সেঞ্চুরির পর বিরাট কোহলির ইনিংসগুলো ৪৪, ৩, ৪, ৯, ১৮, ৯ ও ৪৫। ইডেনের ৪৫ রানের ইনিংসটিতে খুঁজে পেয়েছিলেন আত্মবিশ্বাস। ইন্দোরের ডাবল সেঞ্চুরির জ্বালানি সেটাই। ওয়ানডেতে অপ্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে ওঠা কোহলির টেস্ট ব্যাটিংটাও দুর্দান্ত। ২০ বাউন্ডারিতে সাজানো ইনিংসটিতে কেবল একবারই খেলেছিলেন ক্রস। উড়িয়ে শট নেননি কোনো। তাতেই প্রথম ভারতীয় অধিনায়ক হিসেবে করলেন টেস্টে দুটি ডাবল। দুটিই এ বছর। এর আগে ভারতীয়দের মধ্যে কেবল শচীন টেন্ডুলকার ২০১০ সালে করেছিলেন দুটি ডাবল।

চা বিরতির পর ভাঙে কোহলির প্রতিরোধ। জিতেন প্যাটেলের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে শেষ হয় ৩৬৬ বলে ২০ বাউন্ডারিতে ২১১ রানের ইনিংসটি। রাহানের সঙ্গে তাঁর ৩৬৫ রানের জুটি চতুর্থ উইকেটে ভারতের সর্বোচ্চ। ডাবল সেঞ্চুরির আশা জাগিয়েও রাহানে উইকেটের পেছনে বিজে ওয়াটলিংকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন ট্রেন্ট বোল্টের বলে। ৩৮১ বলে ১৮ বাউন্ডারি ৪ ছক্কায় ১৮৮ করেছিলেন তিনি। এরপর রোহিত শর্মার ৬৩ বলে ৫১* আর রবীন্দ্র জাদেজার ২৭ বলে ১৭*-তে ভারত ইনিংস ঘোষণা করে ৫ উইকেটে ৫৫৭ রানে।   ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ভারত : ১৬৯ ওভারে ৫৫৭/৫ ডি.  (কোহলি ২১১, রাহানে ১৮৮, রোহিত ৫১*, পূজারা ৪১; বোল্ট ২/১১৩, প্যাটেল ২/১২০)।

নিউজিল্যান্ড : ৯ ওভারে ২৮/০ (গাপটিল ১৭*, লাথাম ৬*; সামি ০/৫, অশ্বিন ০/৯)।


মন্তব্য