kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পর্তুগাল, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডসের গোল উৎসব

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পর্তুগাল, ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডসের গোল উৎসব

ব্যবধান স্পষ্ট র্যাংকিংয়েই। ইউরো চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল যেখানে ফিফা র্যাংকিংয়ের সাতে, সেখানে অ্যান্ডোরা ২০৩ নম্বরে।

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে তারই প্রতিফলন। নিজেদের মাঠে অ্যান্ডোরাকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে ত্রিস্তিয়ানো রোনালদোর দল। ইউরোর পর ফেরাটা রোনালদো স্মরণীয় করেছেন ৪ গোল করে। গ্রুপ ‘বি’র অপর ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে হাঙ্গেরিকে ৩-২ গোলে হারিয়ে শীর্ষেই সুইজারল্যান্ড। গ্রুপ ‘এ’তে ইউরো রানার্স-আপ ফ্রান্স শুরুতে পিছিয়েও ৪-১ গোলে হারিয়েছে বুলগেরিয়াকে। ইউরোয় সুযোগ না পাওয়া নেদারল্যান্ডসও একই ব্যবধানে হারায় বেলারুশকে। গ্রুপ ‘এইচ’-এ গ্রিস ২-০ গোলে সাইপ্রাসকে, বেলজিয়াম ৪-০ ব্যবধানে বসনিয়া অ্যান্ড হার্জেগোভিনাকে আর এস্তোনিয়া ৪-০ গোলে হারায় জিব্রাল্টারকে।

বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে ইউরোপিয়ান অঞ্চলে গত পরশু রাতে সবার নজর ছিল ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর ওপর। দ্বিতীয় ও চতুর্থ মিনিটে ২ গোল করে ইউরো ফাইনালের পর ফেরাটা উদ্যাপন করেন তিনি। ৪৭ মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণের পর ৬৮ মিনিটে করেন চতুর্থ গোল। জাতীয় দলের হয়ে এটা রোনালদোর চতুর্থ হ্যাটট্রিক, তবে ৪ গোল করলেন এবারই প্রথম। সব মিলিয়ে করলেন ৪২তম হ্যাটট্রিক। এর ৩৭টি রিয়াল মাদ্রিদ, চারটি জাতীয় দল আর একটি ম্যানইউর হয়ে। অন্য দুটি গোল কানসেলো (৪৪ মিনিট) ও আন্দ্রে সিলভার (৮৬ মিনিট)। রোনালদোকে ফাউল করেই লাল কার্ড দেখেন অ্যান্ডোরার জর্দি রুবিও (৬৭ মিনিট) আর মার্ক রেবেস (৭০ মিনিট)। ৯ জনের অ্যান্ডোরাকে পেয়েও শেষ ২০ মিনিটে মাত্র একটি গোল পেয়েছে ইউরো চ্যাম্পিয়নরা। হাঙ্গেরি, সুইজারল্যান্ডের গ্রুপ ‘বি’র অপর ম্যাচে ৮৮ মিনিট পর্যন্ত সমতা ছিল ২-২ গোলে। ম্যাচ শেষের এক মিনিট আগে স্তোকেরের গোলে নাটকীয় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সুইসরা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে পর্তুগালকেও হারিয়েছিল তারা। এ ছাড়া প্রতিপক্ষের মাঠে ফ্যারো আইল্যান্ড ২-০ গোলে হারিয়েছে লাটভিয়াকে। ২ ম্যাচ শেষে এই গ্রুপে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে সুইজারল্যান্ড, ৪ পয়েন্ট পাওয়া ফ্যারো আইল্যান্ড দুইয়ে আর ৩ পয়েন্ট নিয়ে তিনে পর্তুগাল।

গ্রুপ ‘এ’তে দুই ম্যাচ শেষে সমান ৪ পয়েন্ট হলেও গোল ব্যবধানে শীর্ষে নেদারল্যান্ডস, দুইয়ে ফ্রান্স আর তিন নম্বরে সুইডেন। ৩ পয়েন্ট নিয়ে বুলগেরিয়া চারে ও ১ পয়েন্ট পাওয়া বেলারুশের অবস্থান পাঁচ। ইউরো ফাইনালের পর গত পরশুই প্রথম প্যারিসের স্তাদে দ্য ফ্রান্সে ফিরেছিলেন আন্তোয়ান গ্রিয়েজমানরা। নিজেদের মাঠে বুলগেরিয়ার বিপক্ষে ষষ্ঠ মিনিটেই তারা পিছিয়ে যায় মিহাইল আলেক্সান্দ্রোভের পেনাল্টিতে। তবে কেভিন গামেইরোর জোড়া গোল আর আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান, দিমিত্রি পায়েতের একটি করে গোলে ৪-১ ব্যবধানের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ১৯৯৮ বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়নরা। প্রায় পাঁচ বছর পর জাতীয় দলে ফেরাটা কেভিন গামেইরো স্মরণীয় করেছেন জোড়া গোলে। রোতারদামে বেলারুশের বিপক্ষে ডাচদের জয়টাও একই ব্যবধানে। নেদারল্যান্ডসের হয়ে ১৫ ও ৩১ মিনিটে কুইন্সি প্রোমেস, ৫৫ মিনিটে দেভি ক্লাসেন আর ৬৪ মিনিটে অপর গোলটি ভিনসেন্ট জেনসেনের। ৪৭ মিনিটে বেলারুশের হয়ে সান্ত্বনার গোলটি রিওসের। এএফপি


মন্তব্য