kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মিলার ঝড়ে সিরিজও দক্ষিণ আফ্রিকার

৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



মিলার ঝড়ে সিরিজও দক্ষিণ আফ্রিকার

ব্যাটে-বলে দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়ে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তৃতীয় ওয়ানডেতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করার রেকর্ড গড়ে তারা ম্যাচ জিতে নিয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারের সেঞ্চুরি আড়ালে পড়ে গেছে ডেভিড মিলারের ম্যাচ জেতানো সেঞ্চুরিতে। ৬ নম্বরে নেমে ৭৯ বলে ১১৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছেন কিলার মিলার খ্যাত এই ব্যাটসম্যান। অস্ট্রেলিয়ার ৩৭১ রান পেরিয়ে গেছে প্রোটিয়ারা ৪ উইকেট হাতে রেখে। ওয়ানডে ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে ম্যাচ জেতার রেকর্ডটাও তাদের দখলে। ২০০৬ সালে অস্ট্রেলিয়ারই ৪৩৪ পেরিয়ে গিয়েছিল হার্শেল গিবসের দক্ষিণ আফ্রিকা।

পরশু মিলার যখন ২৬ রানে ব্যাট করছেন, দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে তখন ওভারে ৮-এর বেশি রান তোলার টার্গেট। ওভার বাকি ১৯টি। সেসময় পঞ্চম উইকেটও হারায় তারা। মিডল অর্ডারের অন্যতম ভরসা জেপি দুমিনি বিদায় নেন ২০ রান করে। লোয়ার অর্ডারদের নিয়ে মিলারের লড়াইটা শুরু হয় এর পর থেকেই। ডোয়াইনো প্রিটোরিয়াসের পর তাঁকে গুরুত্বপূর্ণ সঙ্গটা দেন এন্ডিলে ফেহলুকাইয়ো। বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যানও ৩৯ বলে ৪২ রান করে অপরাজিত। মিলারের সঙ্গে তাঁর অবিচ্ছিন্ন জুটি ১০৭ রানের। মিলার ১০ চার ও ৬ ছয়ে নায়কোচিত এক ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার প্রায় মুঠো থেকে ম্যাচটি বের করে নেন। যা দেখে এবি ডি ভিলিয়ার্সও টুইট করেছেন, ‘আমার চোখের সামনেই ঘটছে এটা! বিশ্বাস করতে পারছি না। কি অসাধারণ এক ম্যাচ, কি অসাধারণ চেস। ’ অধিনায়ক ফাফ দু প্লেসিসও বাকরুদ্ধ, ‘আমার আসলে কিছু বলার ভাষা নেই। কারণ কখনোই ভাবিনি এই অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে ৩-০তে সিরিজ জেতা সম্ভব। ’

সেঞ্চুরিয়ানে প্রথম ম্যাচেও ব্যাটিং বীরত্ব দেখিয়েছে প্রোটিয়ারা। কুইন্টন ডি ককের আরেকটি অবিশ্বাস্য ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার ২৯৪ রান পেরিয়ে গিয়েছিল তারা। দ্বিতীয় ম্যাচে জোহানেসবার্গে ফাফ দু প্লেসিসের সেঞ্চুরিতে ৩৬১ রানের সংগ্রহের পর বল হাতে সফরকারীদের থামিয়ে দেয় তারা মাত্র ২১৯ রানে। ৫ ম্যাচের সিরিজ ৩-০ করে ফেলাটাও তাদের যেনতেনভাবে না। র‍্যাংকিংয়ের এক নম্বর দলের বিপক্ষে রীতিমতো ছড়ি ঘুরিয়েছে তারা।

স্টিভেন স্মিথের হতাশা তাই সব দিক থেকেই, ‘চেয়েছিলাম শীর্ষ চার ব্যাটসম্যান যেন রান পায়, তাদের মধ্যে দুজনের সেঞ্চুরি হলো। বোর্ডে ৩৭০ যোগ করার পরও জিততে না পারাটা হতাশারই। ’ এই ম্যাচে তাই আবারও বোলারদেরই দায় দিয়েছেন তিনি, ‘ওদের ব্যাটিং লাইন আপে বেশ কয়েকজন অসাধারণ ব্যাটসম্যান আছে। এমন সেরা ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে কিভাবে বল করতে হয়, এটা জানতেই হবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে হলে। ’ ক্রিকইনফো

সংক্ষিপ্ত স্কোর

অস্ট্রেলিয়া : ৩৭১/৬ (ওয়ার্নার ১১৭, স্মিথ ১০৮; তাহির ২/৫৪, স্টেইন ২/৯৬)। দক্ষিণ আফ্রিকা : ৪৯.২ ওভারে ৩৭২/৬ (মিলার ১১৮*, ডি কক ৭০, আমলা ৪৫, ফেহলুকাইয়ো ৪২; হেস্টিংস ২/৭৯। ফল : দক্ষিণ আফ্রিকা ৪ উইকেটে জয়ী।


মন্তব্য