kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সেল্তার কাছে আবার হার বার্সার

৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সেল্তার কাছে আবার হার বার্সার

গত মৌসুমেও সেল্তা ভিগোর মাঠে ৪-১ গোলে হেরে এসেছিল বার্সা। ভাগ্য বদলাল না এবারও।

গত পরশু মেসিহীন বার্সা সেল্তার মাঠে হেরে গেছে ৪-৩ গোলে। বিরতির আগেই ৩-০ গোলে পিছিয়ে পড়েছিল বার্সেলোনা! গত এক দশকে এবারই প্রথম পড়তে হলো এমন লজ্জায়। ২২ থেকে ৩৩—এই ১১ মিনিটের ঝড়ে ৩ গোল হজম করে হতভম্ভ হয়ে পড়েন নেইমার-সুয়ারেসরা। বিরতির পর লড়াই করলেও গোলরক্ষক তের স্তেগেনের অমার্জনীয় ভুলে পূর্ণ হয় ভাগ্য বিপর্যয়ের ষোলোকলা। লা লিগার অপর ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদ ১-১ গোলে ড্র করেছে এইবারের সঙ্গে। ষষ্ঠ মিনিটে ফ্রান রিকোর গোলে এইবার এগিয়ে গেলেও ১৭ মিনিটে সমতা ফেরান গ্যারেথ বেল। এ নিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগসহ টানা চার ম্যাচ ড্র করল জিনেদিন জিদানের দল। সর্বশেষ ২০০৬ সালে টানা চার ড্র করেছিল তারা, জিদান ছিলেন তখন রিয়ালের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। রিয়াল মাদ্রিদের ড্রতে শীর্ষে পৌঁছানোর সুযোগ ছিল বার্সার। উল্টো হেরে বসায় তারা এখন চার নম্বরে!

ইতালিয়ান সিরি ‘এ’তে এম্পোলিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে শীর্ষেই জুভেন্টাস। এ ছাড়া আটলান্টা ১-০ গোলে নাপোলিকে, এসি মিলান ৪-৩ গোলে সাসুউলোকে আর রোমা ২-১ গোলে হারিয়েছে ইন্টার মিলানকে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ম্যানসিটির প্রথম হার আর ম্যানইউর ড্রর রাতে টানা পঞ্চম জয় পেয়েছে আর্সেনাল। অতিরিক্ত সময়ে লরা কসিয়েনির গোলে গানাররা ১-০ ব্যবধানে হারিয়েছে বার্নলিকে। এই জয়ে ৭ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে উঠে এসেছে আর্সেন ওয়েঙ্গারের দল।

সেল্তার মাঠে মেসিহীন বার্সেলোনা নেমেছিল আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ও হাভিয়ের মাসচেরানোকে বেঞ্চে বসিয়ে। দুঃস্বপ্নের শুরু ২২ মিনিটে। গোলরক্ষক তের স্তেগেনের বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিতে পারেননি সের্হিও বুশকেৎস। ইয়াগো আসপাস বলের দখল নিয়ে বাড়ান ডি বক্সে। বাঁ পায়ের ছোঁয়ায় নিয়ন্ত্রণ নিয়ে

কঠিন কোণ থেকে নেওয়া শটে লক্ষ্য ভেদ করেন ডেনমার্কের উইঙ্গার পিয়োনে সিসতো।

দুই মিনিট পর আসপাসের দূরপাল্লার শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান স্তেগেন। তবে ৩১ মিনিটে আর ঠেকিয়ে রাখা যায়নি স্প্যানিশ এই ফরোয়ার্ডকে। প্রতিআক্রমণ থেকে মাঝমাঠে বল পেয়ে এগিয়ে ডি বক্সের ডান প্রান্ত থেকে নেওয়া কোনাকুনি শটে ব্যবধান ২-০ করেন তিনি। দুই মিনিট পর আবারও ভেঙে পড়ে বার্সার রক্ষণ। আসপাসের একটি বল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালে জড়িয়ে দেন জেরেমি ম্যাথিউ। ২০০৭ সালের পর লা লিগায় এবারই প্রথম বিরতির আগে তিন গোল হজম করে বসে বার্সা। বদলি হয়ে নামা আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার ক্রসে নেওয়া হেড জালে জড়িয়ে ৫৮ মিনিটে এক গোল ফেরান জেরার্দ পিকে। ৬৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে নেইমার ব্যবধান ৩-২ করলে উত্তেজনা ফেরে ম্যাচে। পাবলো এর্নান্দেস জার্সি টেনে বক্সে আন্দ্রে গোমেসকে ফেলে দেওয়ায় পেনাল্টি পেয়েছিল বার্সা।

কিন্তু সব উত্তেজনায় জল ঢেলে দেয় ৭৭ মিনিটে গোলরক্ষক তের স্তেগেনের ভুল। একটি ব্যাক পাস কোনো চাপ ছাড়াই বিপদমুক্ত করতে পারতেন তিনি। কিন্তু তাঁর শট লাগে এগিয়ে আসা পাবলো এর্নান্দেসের মাথায়। বার্সার খেলোয়াড়দের হতবাক করে মাথায় লাগা বলটা জড়িয়ে যায় জালে! ৮৭ মিনিটে পিকের ডাবল হারের ব্যবধানই শুধু কমিয়েছে বার্সার। রিয়াল মাদ্রিদের ড্রতে শীর্ষে পৌঁছানোর সুযোগ হাতছাড়া করে তারা এখন চার নম্বরে! সমান ১৫ পয়েন্টের পরও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় শীর্ষে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ, দুইয়ে রিয়াল। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে সেভিয়া তিনে আর ১৩ পয়েন্ট পাওয়া বার্সা এখন চারে।

সিরি ‘এ’তে এম্পোলির মাঠে বিরতির আগে গোল পায়নি জুভেন্টাস। ৬৫ মিনিটে পাওলো দিবালার গোলে এগিয়ে যায় টানা পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। ৬৭ ও ৭০ মিনিটে গনসালো হিগুয়েইনের ডাবলে মাঠ ছাড়ে বড় জয়েই। একই রাতে আতালান্তার কাছে ১-০ গোলে হেরে গেছে নাপোলি। রোমার কাছে ২-১ গোলে হেরেছে ইন্টার মিলানও। সবচেয়ে জমজমাট ম্যাচটি অবশ্য এসি মিলান, সাসুউলোর। ৬৮ মিনিট পর্যন্ত সাসুউলো এগিয়ে ছিল ৩-১ গোলে। এরপর মিলানের ম্যাচে ফেরা। ৬৯ মিনিটে বাক্কা, ৭৩ মিনিটে লোকাতেল্লি আর ৭৭ মিনিটে পালেত্তার গোলে ৪-৩ ব্যবধানের জয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। সিরি ‘এ’তে ৭ ম্যাচ শেষে জুভেন্টাসের পয়েন্ট ১৮, নাপোলির ১৪ আর রোমা, লািসও, শিয়েভো, এসি মিলানের সমান ১৩। এএফপি


মন্তব্য