kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

শুরু ভালো হওয়ায় আত্মবিশ্বাস বেড়েছে

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোসাদ্দেক হোসেনের শুরুটা হলো দারুণ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে নজর কেড়েছেন সবার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের আগে তাই আত্মবিশ্বাসী ২০ বছরের এই তরুণ। কাল শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তেমনটাই জানান তিনি।

৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



শুরু ভালো হওয়ায় আত্মবিশ্বাস বেড়েছে

প্রশ্ন : আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের শুরুতে বল হাতে নিয়েই উইকেট পাচ্ছেন...

মোসাদ্দেক হোসেন : আসলে অলরাউন্ডার হিসেবে দলে সুযোগ পেয়েছি। ব্যাটিং ছিল প্রথম অংশ।

ব্যাটিংয়ে কী করেছি, তা ফিল্ডিংয়ে নামার পর ভুলে গেছি। তখন আমার কাজ বোলিং ও ফিল্ডিং।

প্রশ্ন : বল হাতে দিয়ে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা কিছু বলেছেন?

মোসাদ্দেক : মাশরাফি ভাই আমাকে বলেছিলেন জায়গায় বল করতে। আমিও চেষ্টা করেছি রান আটকানোর মতো বল করতে।   তাতে ওই সময়টায় সফল হয়েছি।

প্রশ্ন : ঘরোয়া ক্রিকেটের ফর্মই টেনে আনলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। এখানে এত দ্রুত মানিয়ে নিলেন কিভাবে?

মোসাদ্দেক : প্রথম ম্যাচের আগে কোচ বলে দেন, ‘এটি যে প্রথম ম্যাচ কিংবা পারফরম্যান্স নিয়ে চিন্তা করো না। তোমার স্বাভাবিক খেলাটা খেলো, উপভোগ করো। আবাহনীতে যেভাবে খেলেছ, সেভাবেই খেলার চেষ্টা করো। এখানে তোমার পরফরম্যান্স গুরুত্বপূর্ণ নয়, আজকের ম্যাচটা উপভোগ করো। ’ আমিও উপভোগ করার চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন : অভিষেক ভালো হওয়ার আত্মবিশ্বাস এখন নিশ্চয়ই অনেক বেশি?

মোসাদ্দেক : প্রিমিয়ার লিগ শেষ করার পর থেকেই মনে হচ্ছিল আমি আত্মবিশ্বাসী। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য প্রস্তুত আছি। এটা খুব ভালো হয়েছে যে আফগানিস্তানের সঙ্গে সুযোগ পেয়েছি। এবং শুরুটা ভালো হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক ম্যাচের জন্য আত্মবিশ্বাস আগের চেয়ে বেড়েছে।

প্রশ্ন : ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার জন্য মানসিক প্রস্তুতি কেমন?

মোসাদ্দেক : আজকে থেকে প্রস্তুতি নিচ্ছি। খেলার আগের দিন ঠিক করব যে কিভাবে কী করব। ইংল্যান্ড আফগানিস্তানের চেয়ে অনেক ভালো দল। আমাদের সঙ্গে অনেক প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা হবে। আশা করছি, যেহেতু ছয়টি সিরিজ টানা জিতেছি, ইংল্যান্ডের বিপক্ষেও আমরা সিরিজ জয়ের লক্ষ্যেই নামব।

প্রশ্ন : ইংল্যান্ডের বোলারদের কিভাবে দেখছেন?

মোসাদ্দেক : টিভিতে খেলা দেখে যতটুকু বোঝা যায়, ততটুকুই বুঝেছি। আমাদের কন্ডিশনে আমরা অনেক ফেভারিট। আমি বিশ্বাস করি আমাদের কন্ডিশনে আমরা ভালো করব।

প্রশ্ন : ছয় দিনের বিরতিতে নিজেদের গুছিয়ে নেওয়ার কতটা সুযোগ পাচ্ছেন?

মোসাদ্দেক : দুই-তিন দিনের বিরতি হলে তা চাপ হয়ে যেত। ছয়-সাত দিন বিরতি পাওয়ায় খুব ভালো হয়েছে। বাড়তি অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছি। আমাদের কয়েকজন প্রস্তুতি ম্যাচও খেলবে। প্রতিপক্ষকে জানার ভালো সুযোগ হবে এটা। ভিডিও ক্লিপসগুলো পেলে তাদের দুর্বল জায়গা বুঝতে পারব এবং বুঝব দেশের মাটিতে তাদের বিপক্ষে কিভাবে খেলব।


মন্তব্য