kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অন্য রকম প্রস্তুতি বাংলাদেশের

মাসুদ পারভেজ   

৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



অন্য রকম প্রস্তুতি বাংলাদেশের

অতঃপর ব্যাটিং... : আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে হুমড়ি খেয়ে পড়ায় আপাতত বোলিং থেকে বিশ্রামে আছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। তাই কাল অনুশীলনে ব্যাটিংয়ে মনোযোগী অধিনায়ককে ‘সাজিয়ে’ দিচ্ছিলেন মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য সরকার। ছবি : মীর ফরিদ

মাত্র মাস ছয়েক হলো খেলা ছেড়ে দিয়েছেন তিনি। চাকরিও নিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডে (বিসিবি)।

গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগের প্রোগ্রাম অফিসার শাফাক আল জাবিরকে গতকাল দুপুরেও কেতাদুরস্ত পোশাকে অফিস করতে দেখা গেছে। কিন্তু বিকেলেই অন্য চেহারায় দীর্ঘদেহী সাবেক এই বাঁহাতি ফাস্ট বোলার। ট্রাউজার আর জার্সি পরে তিনি মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ইনডোর-সংলগ্ন মাঠে বাংলাদেশ দলের নেটে। একের পর এক ডেলিভারি দিয়েই চলেছেন।

অফিসে ছেড়ে হুট করেই তাঁকে তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস ও মুশফিকুর রহিমদের বিপক্ষে বোলিং করতে ডেকে নেওয়ার কারণ ইংল্যান্ডের বাঁহাতি ফাস্ট বোলার ডেভিড উইলি। উচ্চতায় তিনি আর শাফাক কাছাকাছিই, ৬ ফুটেরও বেশি। তাই ইংল্যান্ড সিরিজ সামনে রেখে অনুশীলনের প্রথম দিনেই শাফাককে ডেকে নিয়ে টিম ম্যানেজমেন্ট উইলিকে খেলার মহড়াও সেরে নিল। অবশ্য আফগানিস্তান সিরিজের অভিজ্ঞতায় নেটে লেগ স্পিনারদের খেলার অভ্যাস করে নেওয়াটাও কম জরুরি হয়ে পড়েনি। কারণ আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান সদ্যসমাপ্ত সিরিজে বেশ ভুগিয়েছেন স্বাগতিক দলের ব্যাটসম্যানদের। কে বলতে পারে যে ইংলিশ লেগ স্পিনার আদিল রশিদও একই রকম ভোগান্তিতে তাঁদের ফেলবেন না?

সে সম্ভাবনা উন্মুক্ত থাকলেও বাস্তব কারণেই লেগ স্পিন খেলার প্রস্তুতি নিয়ে খুব মাথা ঘামাচ্ছেন না মিনহাজুল আবেদীন। প্রধান নির্বাচক যুক্তি দেখাচ্ছেন, ‘আমাদের কোনো লেগ স্পিনারের বর্তমান পারফরম্যান্সই ভালো নয়। জাতীয় লিগ চলছে, সেখানে প্রথম রাউন্ডের ম্যাচগুলোতে ঢাকা মেট্রোই শুধু একজন লেগ স্পিনার খেলিয়েছে। ’ মেট্রোর জুবায়ের হোসেনই শুধু নন, প্রথম রাউন্ডে রংপুরের হয়ে খেলেছেন আরেক লেগি তানভীর হায়দারও। এ জায়গায় কোনো ঘাটতি থেকে গিয়ে থাকলেও মিনহাজুল মনে করেন জস বাটলারের দলকে ভোগানোর মতো যথেষ্ট বৈচিত্র্যের মজুদও তাঁরা ঠিক রেখে দিয়েছেন প্রথম দুই ওয়ানডের দলে।

বিশেষ করে নিজেদের দলের পেস অ্যাটাকও বেশ বৈচিত্র্যময় বলে মনে করছেন তিনি, ‘এর আগে আফগানিস্তান সিরিজে রুবেল আর আল-আমিনের মধ্যে একজনকে রাখার কারণ দুজনেই এক রকম বোলার। ওদের ইনসুইংটা ভালো। শফিউল ভালো আউটসুইং করাতে পারে। আফগানদের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে ভালো করায় আছে এই সিরিজের দলেও। ওদিকে তাসকিন আরেক ধরনের পেসার, যার বোলিংয়ে কারিকুরির চেয়ে গতিটাই মুখ্য। এদের সঙ্গে অধিনায়ক মাশরাফিও থাকায় আমাদের পেস অ্যাটাক বেশ স্বয়ংসম্পূর্ণও। ’

সেই অ্যাটাকে রুবেলের জায়গায় আল-আমিন হোসেনের সুযোগ পাওয়ার কারণ, ‘জাতীয় লিগের প্রথম রাউন্ডে ওর ১৭ ওভার বোলিং আমাদের মনে ধরেছে। ’ বরিশালের বিপক্ষে খুলনার হয়ে প্রথম ইনিংসে ১৭ ওভার বোলিং করে ৫টি মেডেনসহ ৩৮ রান খরচায় ৩ উইকেটই যেন নিয়েছিলেন আল-আমিন, তা নয়। দ্বিতীয় ইনিংসেও (২০-৫-৬২-২) বজায় রেখেছিলেন ভালো বোলিংয়ের ধারাবাহিকতা।

যেটিকে সঠিক সময়ে জ্বলে ওঠাই যেন বলতে চাইলেন মিনহাজুল, ‘রুবেল আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে নিঃসন্দেহে ভালো করেছে। দ্বিতীয় ম্যাচটি অবশ্য ওর জন্য ভালো যায়নি। পরে তো আফগানদের দুর্বলতার কথা ভেবে শেষ ম্যাচে পেসার কমিয়ে বাঁহাতি স্পিনার মোশাররফকে আনা হলো। ইংল্যান্ড সিরিজে আল-আমিনকে এনেছি। কারণ সঠিক সময়ে যার কাছ থেকে পারফরম্যান্স পাওয়া যাবে, আমরা বিবেচনা করব তাকেই। ’

দলে থেকেও ম্যাচের পর ম্যাচ খেলার সুযোগ না পাওয়া নাসির হোসেনকে দিয়েও দলের স্পিন বৈচিত্র্যের গভীরতা বোঝাতে চাইলেন মিনহাজুল, ‘আমাদের দলে দুজন বাঁহাতি স্পিনার তো আছেই, সেই সঙ্গে আছে অফ স্পিনারও। এদের মধ্যে মোসাদ্দেকও ভালো করেছে। এমনকি একাদশের বাইরে থাকা নাসিরও তো পুরোদস্তুর অফ স্পিনার। কাজেই ইংল্যান্ডের জন্য বৈচিত্র্যময় বোলিং অ্যাটাক নিয়ে আমরাও তৈরি। ’ যদিও আফগানিস্তান সিরিজের সময় মানসিকভাবে ক্রিকেটারদের পুরোপুরি তৈরি না থাকার খবরও আছে।

দলসংশ্লিষ্ট একজনই সেই অপ্রস্তুত থাকার খবর জানিয়ে এবার স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছিলেন, ‘আফগানিস্তানের বিপক্ষে ফতুল্লার প্রস্তুতি ম্যাচে সিংহভাগ খেলোয়াড়ের মনোযোগ খেলায় ছিল না। ওদের সব ভাবনা ছিল বিপিএলের দল পাওয়া নিয়ে। শেষ ম্যাচের আগে প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠানে শীর্ষ ক্রিকেটারদের রাখাও মনোযোগে ব্যাঘাত ঘটাতে পারত। তাও ভালো যে ইংল্যান্ড সিরিজের আগে এই ব্যাপারগুলো শেষ হওয়ায় ক্রিকেটাররা পূর্ণ মনোযোগ দিতে পারছে। ’

মনোযোগী বাংলাদেশ থিংক ট্যাঙ্কও ইংলিশদের ভোগানোর ফন্দি বের করায় আটঘাট বেঁধেই নেমেছে। নিজেদের চেনা কন্ডিশনে ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে গতির সামনে ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের পরীক্ষাটাও নিয়ে ফেলতে চান তাঁরা। এ জন্যই পেসার হান্ট থেকে উঠে আসা এবাদত হোসেন আজকের প্রস্তুতি ম্যাচের দলে ঢুকে গেছেন, কোর্টনি ওয়ালশের পরামর্শে বাংলাদেশ দলের নেটে বল করা আলী আহমেদ মানিকেরও আজ সৌভাগ্য হচ্ছে ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের পরখ করার। তাঁরা যেমন কাল নেটে বল করলেন মুশফিকদের, তেমনি অফিস থেকে আগে বের হয়ে আসা শাফাকও!


মন্তব্য