kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

ওরা সামর্থ্যের চেয়েও ভালো খেলেছে

দিল্লির সুব্রত কাপ ফুটবলে এর আগে দুইবার ফাইনালে খেললেও শিরোপার স্বাদ পাওয়া হয়নি বিকেএসপির। এবার সেই কাঙ্ক্ষিত ট্রফি নিয়েই দেশে ফিরেছে ক্রীড়াশিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির অনূর্ধ্ব-১৪ দল। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি সেই দলের পারফরম্যান্স নিয়ে কথা বলেছেন দলটির কোচ হাসান আল মাসুদ

৩ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ওরা সামর্থ্যের চেয়েও ভালো খেলেছে

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : সুব্রত কাপে এর আগে বেশ কয়েকবার অংশ নিয়েও শিরোপা জিততে পারেনি বিকেএসপি, এবার সেটা কিভাবে সম্ভব হলো?

হাসান আল মাসুদ : সত্যি কথা বলতে, আগে এর চেয়েও ভালো দল গেছে ওখানে। সে তুলনায় এই দলটাতে তত ভালো খেলোয়াড় ছিল না; কিন্তু যেটা ছিল তা হলো ঐক্য।

তাদের সামর্থ্য মাঝারি মানের হলেও দলীয় ঐক্য ও মনের জোরে ওরা সেই ঘাটতি উতরে গেছে।

প্রশ্ন : সব মিলিয়ে কেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে ওখানে?

মাসুদ : ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল। কয়েকটা বিদেশি দল খেলেছে আমাদের বিপক্ষে। যেমন—আফগানিস্তান, ওরা বেশ ভালো দল। অনূর্ধ্ব-১৬ দলের সাতজন খেলোয়াড় ছিল এই দলে। ওদের বিপক্ষেই আমরা আমাদের সেরা ম্যাচটা খেলেছি। তারপর বাইচুং ভুটিয়ার সিকিম, তিনি নিজে একটা একাডেমিও করেছেন। ওদের খেলা ভালো ছিল। গোয়াও উন্নতি করেছে। জানেন তো, ভারতের ফুটবলটা এখন আর কলকাতাকেন্দ্রিক না। চণ্ডীগড়, দিল্লিও এখন ভালো দল। সব মিলিয়ে যথেষ্ট প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্যেই পড়তে হয়েছে আমাদের। প্রথম ম্যাচটা ড্র হয়েছিল। অভিজ্ঞতার ঘাটতির কারণে সেরাটা দিতে পারেনি আমাদের ছেলেরা।

প্রশ্ন : আপনাদের প্রস্তুতি কেমন ছিল?

মাসুদ : খুলনায় তো অনেক দিন ধরেই প্রশিক্ষণ চলছিল। তবে টুর্নামেন্টে যাওয়ার ব্যাপারটা নিশ্চিত হয় হঠাৎ করে, যে কারণে মাসখানেকের বেশি আলাদা করে প্রস্তুতি নিতে পারিনি। তার ওপর ১০ ছেলে নতুন, ছয় মাস আগে ওরা মাত্র ভর্তি হয়।

প্রশ্ন : তো, কী লক্ষ্য ছিল আপনাদের?

মাসুদ : সত্যি বলতে, আমরা শুধু ভালো খেলার কথাই ভেবেছি। আগের অভিজ্ঞতা থেকেই জানি, টুর্নামেন্টটা বেশ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। ২০১৪ আসরের সেমিফাইনালে চণ্ডীগড়ের কাছে হেরেছিলাম। তখন জাতীয় দলের খেলোয়াড় নিয়ে এর আগে মিয়ানমার সফর করে আসে। ওদের নিয়েই পারা যায়নি, যে কারণে এবারের দলটা নিয়ে আমি খুব উচ্চাশা করিনি। তবে খেলোয়াড়দের সামর্থ্যের কথা চিন্তা করে দলীয় ঐক্যের দিকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলাম। সেটাই আমাদের জন্য সুফল বয়ে এনেছে।

প্রশ্ন : খেলোয়াড়দের মধ্যে কারা নজর কেড়েছে বলে মনে করেন?

মাসুদ : অসম্ভব ভালো খেলেছে আমাদের অধিনায়ক রাকিব। তারপর স্ট্রাইকার হাবিবুর। ধারাভাষ্যকাররা অনেক বড় বড় কথা বলেছেন ওকে নিয়ে। টুর্নামেন্ট সেরাও হয়েছে সে। আমি হয়তো সেরা কোচ হয়েছি, কিন্তু সেটা ওদের পারফরম্যান্সের কারণেই।


মন্তব্য