kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বললেন ডি কক

‘দিনটা মনে হচ্ছিল আমার’

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



‘দিনটা মনে হচ্ছিল আমার’

দলে এবি ডি ভিলিয়ার্স, হাশিম আমলার মতো সিনিয়র ক্রিকেটার নেই। অস্ট্রেলিয়ার ২৯৪ রান তাড়া করা সহজ হবে না বলেই মনে করা হচ্ছিল।

কে জানত দিনটা এদিন নিজের করে নেবেন ২৩ বছর বয়সী কুইন্টন ডি কক। ১১৩ বলে তাঁর ১৭৮ রানের ঝড় অস্ট্রেলিয়ার ৩০০ ছুঁই ছুঁই স্কোরটাকেও একেবারে মামুলি বানিয়ে ছেড়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ জিতে নিয়েছে মাত্র ৩৬.২ ওভারে। ডি ককের নিজেরও মনে হয়েছে দিনটা তাঁরই ছিল, ‘এদিনই সবচেয়ে বেশি হাত খুলে খেলতে পেরেছি আমি। মনে হচ্ছিল দিনটা আমার। ’

রাইলি রসোর সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে ডি ককের ১৪৫ রানের জুটিও দক্ষিণ আফ্রািকার হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ২০১৩-তে অভিষেকের পর মাত্র ৬৫ ম্যাচে এখন ১১ সেঞ্চুরির মালিক ডি কক। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এর চেয়ে কম ম্যাচে এতগুলো সেঞ্চুরি করতে পেরেছেন কেবল হাশিম আমলা। এই সিরিজেই তিনি মুখিয়ে আরো কিছু অসাধারণ ইনিংস খেলার জন্য, ‘সেঞ্চুরিয়ানের উইকেট ছিল দারুণ। আশা করি, এই সিরিজেই এমন আরো উইকেট পাব, যাতে মনের আনন্দে ব্যাট করা যাবে। ’ তবে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানের দেখানো পথে এখন হাঁটতে চাইবে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরাও। অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ অন্তত নিজেদের এভাবেই উদ্দীপ্ত করছেন, ‘ব্যাটিংয়ের জন্য এই উইকেটটা ছিল দারুণ। কিন্তু আমরা সুযোগ কাজে লাগাতে পারিনি। বেশ কয়েকজন ভালো শুরু পেয়েও ইনিংসটাকে টেনে নিতে পারেনি ডি কক যেটি করেছে। ’ সামনের ম্যাচগুলোতে টপ অর্ডারকেই দায়িত্বটা নিতে হবে বলে মনে করেন স্মিথ, ‘শীর্ষ চার ব্যাটসম্যান যদি বড় ইনিংস খেলতে পারে তাহলে দলীয় স্কোরও বড় হবে। ’ সিরিজের পরের দুই ম্যাচে অস্ট্রেলীয় বোলারদের দায়িত্বটাও অবশ্য কম নয়। মিচেল স্টার্ক বা জস হ্যাজেলউডের অভাবটা এ ম্যাচে মেটাতে পারেননি ডেনিয়েল ওররাল, জন হেস্টিংসরা। স্মিথ যেমন বলছিলেন, ‘বলে আমাদের শুরুটাই বাজে হয়েছে। অনেক বাই রান দিয়েছি আমরা। বল হয় শর্ট হচ্ছিল নয়তো বেশ বাইরে। ’ তবে ডি কক যে দারুণ ছন্দে ছিল এ নিয়ে সংশয় নেই তাঁরও, ‘একটা সময় তো মনে হচ্ছিল ও আমাদের সব বল নিয়ে বাউন্ডারিতে ফেলবে। ’ ক্রিকইনফো


মন্তব্য