kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এক এক করে এক শ জয়

সামীউর রহমান   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



এক এক করে এক শ জয়

বেনারসের লাল বাহাদুর শাস্ত্রী আর বরিশালের শেরেবাংলা একে ফজলুল হকের মধ্যে মিল-অমিল দুটিই আছে। দুজনেই ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে ভূমিকা রেখেছেন, দুজনেই ভারতীয় কংগ্রেস রাজনৈতিক দলের নেতৃস্থানীয় সদস্য এবং রাজনৈতিক জীবনে মন্ত্রিত্বও পেয়েছেন।

ভারত ও বাংলাদেশ, দুই দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেই লাল বাহাদুর শাস্ত্রী ও শেরেবাংলা ফজলুল হক নিজ নিজ দেশে পরম শ্রদ্ধেয়। রাজনৈতিক অঙ্গনের প্রয়াত এই দুই কীর্তিমানের নাম যে জড়িয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটের দুটি অবিস্মরণীয় মাইলফলকের সঙ্গেও। হায়দরাবাদে লাল বাহাদুর শাস্ত্রীর নামে নামকরণ করা স্টেডিয়ামেই ওয়ানডেতে প্রথম জয়ের মুখ দেখেছিল বাংলাদেশ। তারিখটা ছিল ১৯৯৮ সালের ১৭ মে। তার ১৮ বছরের বেশি সময়ের পর, মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ১০০তম জয়ের নিশান ওড়াল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। মাঝের সময়টা কখনো সাফল্যে মোড়ানো, কখনো বা হতাশার চাদরে ঢাকা।

জয়ের সংখ্যা এক থেকে দুই হতে বেশি দিন লাগেনি, এক বছর এক সপ্তাহ পর ১৯৯৯-এর বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে আসে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের দ্বিতীয় জয়। জয়ের সংখ্যা দুই থেকে তিন হয় মাত্র এক সপ্তাহে, একই আসরে পাকিস্তানকে হারিয়ে। তারপর দীর্ঘ প্রতীক্ষার পালা শেষে প্রায় পাঁচ বছর পর বাংলাদেশ পায় জয়ের দেখা। ২০০৪ সালে ৩টি জয়, ২০০৫ সালে ৪ ম্যাচে জয়ের পর ২০০৬ সালে দেশে-বিদেশে ১৮টি ওয়ানডে জিতেছিল বাংলাদেশ। এরপর ওয়ানডেতে নিয়মিতই জয়ের দেখা পেয়েছে বাংলাদেশ, জয়ের হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ হয় ২০০৯ সালের ১৬ আগস্ট বুলাওয়েতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় দিয়ে। এই শততম জয়ের মালায় হীরকখণ্ডের মতো জ্বলজ্বলে কার্ডিফে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয়, যা এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের একমাত্র জয়ের স্মৃতি। এ ছাড়া শততম জয়ের পথে বাংলাদেশ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ ম্যাচে, ভারতের বিপক্ষে ৫ ম্যাচে, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ ম্যাচে, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৩ ওয়ানডেতে, পাকিস্তানের সঙ্গে ৪ বার, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ৪ বার, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে ৭ ম্যাচে এবং জিম্বাবুয়ের সঙ্গে ৩৯টি ম্যাচে জয়ের দেখা পেয়েছ। টেস্ট পরিবারের বাইরের দলগুলো মধ্যে বারমুডার বিপক্ষে জয় ২ ম্যাচে, কানাডার বিপক্ষে জয় ১ ম্যাচে, আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে জয় ৫ ম্যাচে, কেনিয়ার বিপক্ষে জয় ৮ ম্যাচে, স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে জয় ৪ ম্যাচে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে ১ ম্যাচে, নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ১ ম্যাচে, হংকংয়ের বিপক্ষে ১ ম্যাচে ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৩টি ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। ৩১৫ ম্যাচ খেলে এসেছে বাংলাদেশের শততম জয়, যে অভিযাত্রায় সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জেতানো অধিনায়ক হাবিবুল বাশার। ৬৯ ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি জিতিয়েছেন ২৯টি ম্যাচে। সাকিব আল হাসানের অধিনায়কত্বে খেলা ৪৯ ওয়ানডের ২৩টিতে জয় বাংলাদেশের। মাশরাফি বিন মর্তুজার ৩২ ম্যাচে ২২ জয়। এ ছাড়া মুশফিকুর রহিম ৩৭ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে জিতিয়েছেন ১১ ম্যাচে আর খালেদ মাসুদের হাত ধরে বাংলাদেশ জিতেছে ৪টি ওয়ানডে। এভাবেই তাঁদের হাত ধরে এক এক করে জয়ের ফুলে গাঁথা হয়েছে শত জয়ের মালা।


মন্তব্য