kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অখ্যাত জোরিয়া কাঁপাল ম্যানইউকে

১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



অখ্যাত জোরিয়া কাঁপাল ম্যানইউকে

অখ্যাত জোরিয়া লুহান্সকে হারাতে ঘাম ঝরাতে হলো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ইউক্রেনিয়ান দলটি কাউন্টার অ্যাটাকে কাঁপিয়ে দিচ্ছিল ম্যানইউর ডিফেন্স।

দ্বিতীয়ার্ধে সৌভাগ্যক্রমে পাওয়া জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচের একমাত্র গোলে তাদের রক্ষা। ইন্টার মিলানের সেই সুযোগ হয়নি। ঘরের মাঠে হ্যাপোয়েল বিয়ার শিভার কাছে হারের পর ইউরোপা লিগে টানা দ্বিতীয় ম্যাচ হেরেছে তারা স্পার্তা প্রাহার মাঠে ৩-১ গোলে। ইউরোপের দ্বিতীয় স্তরের এই আসর থেকেও এখন ছিটকে যাওয়ার শঙ্কা ইতালিয়ান জায়ান্টদের।

জোরিয়ার বিপক্ষে নামার আগে হোসে মরিনহোও বলে দিয়েছিলেন, এই ম্যাচ জিততেই হবে। কিন্তু এই প্রথম ইউরোপা লিগের গ্রুপ পর্বে জায়গা করে নেওয়া জোরিয়া তাদের বড় পরীক্ষাই নিয়েছে। প্রথমার্ধে মার্কাস রাশফোর্ডের শট ক্রসবারে লাগা ছাড়া পরিষ্কার কোনো সুযোগই পায়নি ম্যানইউ। জোরিয়া বল দখলে এগিয়ে না থাকলেও ম্যানইউ যতবার বল হারিয়েছে ততবারই কাউন্টার অ্যাটাকে ভীতি ছড়িয়েছে তারা। দ্বিতীয়ার্ধে পাওলিনিয়োর শট ঝাঁপিয়ে ফিরিয়েছেন সের্হিয়ো রোমেরো। ওয়েইন রুনি বদলি নামলে ভাগ্য খোলে ম্যানইউর। ৬৯ মিনিটে তাঁর লক্ষ্যভ্রষ্ট ভলিতেই পোস্টের কাছে দাঁড়ানো ইব্রার হেড জালে। যে গোল ধরে রেখেই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা। মরিনহোও মানছেন এদিন বড় পরীক্ষা গেছে তাদের, ‘কঠিন এক ম্যাচ ছিল এটি। ওরা সব সময়ই বলের পেছনে ছিল এবং কাউন্টার অ্যাটাকের জন্য ছিল তৈরি। কিন্তু আমাদের জিততেই হতো যেকোনো মূল্যে। ’ ফেইনুর্দের মাঠে প্রথম ম্যাচ হেরে আসায় এদিন প্রথম পয়েন্টও পেয়েছে ম্যানইউ। ফেইনুর্দ আবার এই রাউন্ডে হেরেছে ফেনারবাচের কাছে। অন্য ম্যাচে রোমা ৪-০ গোলে আস্ত্রাকে, অ্যাথলেতিক বিলবাও ১-০ গোলে র‌্যাপিড ভিয়েনকে, আয়াক্স ১-০ গোলে স্ট্যান্ডার্ড লিগাকে ও ফিওরেন্তিনা ৫-১ গোলে হারিয়েছে কারাবাগকে। এএফপি


মন্তব্য