kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে বাংলাদেশে বাটলাররা

১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে বাংলাদেশে বাটলাররা

আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডে। টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে চলে এসেছে ইংল্যান্ডও। গতকাল শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তোলা। ছবি : বিসিবির সৌজন্যে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নীল স্যুট, সাদা শার্ট, লাল টাইয়ে কেতাদুরস্ত ইংলিশ ক্রিকেটাররা। একেকটা প্রত্যয়ী মুখ।

এউইন মরগান সরে দাঁড়ানোয় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের নেতৃত্বে জস বাটলার। বরাবরের মৃদুভাষী সেই বাটলারও বিমানে চড়ার আগে দিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষে আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের হুঁশিয়ারি, ‘আমি মরগানের মতো নই। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে অধিনায়ক হিসেবেও নিজের মতো থাকতে চাই। নিজে যা নই তা হওয়ার চেষ্টা করব না। তবে মরগান যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে আমিও খেলতে চাই সেভাবে। চেষ্টা করব আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের। দলের বাকিদের বলব গত ১৮ মাসে যেভাবে খেলেছি সেভাবেই খেলতে। কেননা সাফল্য পেয়েছি তাতেই। ’ গতকাল রাত ৮.৪৫ মিনিটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছেন বাটলাররা। এক মাসের এই সফরে বাংলাদেশের সঙ্গে তিন ওয়ানডে ও দুই টেস্টের সিরিজ খেলবে তারা। তবে ভিসা জটিলতায় আসতে পারেননি কোচ ট্রেভর বেলিস। তিনি এখনো অস্ট্রেলিয়ায়। আসবেন আগামী সপ্তাহে।

 

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কাছে হারার পর থেকে ইংল্যান্ড বদলে যাওয়া এক দল। সর্বশেষ সিরিজে বিধ্বস্ত করেছে পাকিস্তানকে ৪-১ ব্যবধানে। গড়েছে ওয়ানডের সর্বোচ্চ রানের বিশ্ব রেকর্ডও। তবে বাংলাদেশও যে নিজেদের মাটিতে অসাধারণ খেলছে অজানা নেই বাটলারের। ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দল ওয়ানডে সিরিজ হেরেছে বাংলাদেশে। এমনকি ইংল্যান্ড অ্যাডিলেডে হেরেছে গত বিশ্বকাপে। সেই হারটা এখনো পোড়াচ্ছে বাটলারকে, ‘অ্যাডিলেডে সত্যিই কঠিন একটা দিন গেছে। খুব হতাশার সেটা। সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়েছি আমরা। বাংলাদেশ গত কিছুদিন নিজেদের মাটিতে ভালো খেলেছে। এ জন্য এবারের সফরটা চ্যালেঞ্জ আমাদের জন্য। মনে হচ্ছে রোমাঞ্চকর হবে সফরটা। ’

 

নিয়মিত অধিনায়ক এউইন মরগান আর অ্যালেক্স হেলস সরে দাঁড়িয়েছেন নিরাপত্তা শঙ্কায়। নেই জিমি অ্যান্ডারসন, মার্ক উডও। বিশ্রামে জো রুট। তাই খেলা মাঠে গড়ানোর আগেই শক্তিতে কিছুটা পিছিয়েছে ইংল্যান্ড। রুটের জায়গায় অভিষেক হতে যাচ্ছে বেন ডাকেটের। মরগান, হেলসের জায়গা দুটি নেবেন জনি বেয়ারস্টো, জেমস ভিন্স আর স্যাম বিলিংস। তাঁরা সবাই মিলে খেলেছেন মাত্র ২৬ ওয়ানডে। তবে তারুণ্যের শক্তির ওপর ভরসা আছে বাটলারের, ‘আমাদের দলটা তরুণ হলেও অনভিজ্ঞ নয়। ডাকেট অসাধারণ এক প্রতিভা। পিসিএ অ্যাওয়ার্ডের বর্ষসেরা ক্রিকেটার ও সেরা তরুণ ক্রিকেটারের পুরস্কার দুটি পেয়ে ইতিহাস গড়েছে। কেন্টের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরিও করেছে এই মাসে। তা ছাড়া বাংলাদেশের কন্ডিশনের সঙ্গে পরিচয় আছে অনেকের। আমি সেখানে গিয়েছি তিনবার। খেলেছি ২০১৪ বিশ্ব টি-টোয়েন্টিতেও। ’

বাংলাদেশে আসার অভিজ্ঞতা থেকেই বাটলারের জানা আছে এখানকার ক্রিকেটপাগল দর্শকদের। নিরাপত্তা নিয়ে ইংলিশ ক্রিকেটারদের শুরুতে টানাপড়েন থাকলেও এখন এ নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই বলেই জানালেন বাটলার, ‘সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলার পর নিরাপত্তা ইস্যুটা নিয়ে মাথাব্যথার কিছু নেই। এই সফর হওয়াটা বাংলাদেশের মানুষের জন্য দারুণ ব্যাপার। আমরা সেখানে যাওয়ার পর উষ্ণ অভ্যর্থনাই পাব। বাংলাদেশের দর্শকরা অসাধারণ। ওদের জন্য সেখানে ক্রিকেট খেলার পরিবেশটা খুব ভালো। নিরাপত্তা নিয়ে না ভেবে আমরা জয়ের ব্যাপারেই বেশি মনোযোগী হতে চাই। ’


মন্তব্য