kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুক্তিযোদ্ধাকেও হারাল রহমতগঞ্জ

১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



মুক্তিযোদ্ধাকেও হারাল রহমতগঞ্জ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রহমতগঞ্জ যেন লিস্টার সিটি। লিগের ৯ ম্যাচে তারা এখনো অপরাজিত।

ফেভারিট চট্টগ্রাম আবাহনীর পর কাল শিরোপাপ্রত্যাশী মুক্তিযোদ্ধাকেও হারিয়েছে তারা ২-১ গোলে। এই জয়ে শেখ জামালের সঙ্গে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষেও ফিরেছে কামাল বাবুর দল।

আগের ম্যাচে ফেনী সকারের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করাতেই শীর্ষে থাকার সুযোগটা হারিয়েছিল তারা। কাল মুক্তিযোদ্ধার কঠিন চ্যালেঞ্জ জিতে সেই অবস্থান পুনরুদ্ধার। ম্যাচের ১২ মিনিটে আত্মঘাতী এক গোল হজম করে মুক্তিযোদ্ধাই তাদের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেয়। ডিফেন্ডার সাইদুল আলম বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালে ঠেলেছেন। তবে ম্যাচের ২৪ মিনিটে পেনাল্টি পেয়ে তৌহিদুল আলমের গোলে আবার সমতায়ও ফিরেছিল মুক্তিযোদ্ধা। সেটি ধরে রাখা সম্ভব হয়নি ৩২ মিনিটে উল্টো রহমতগঞ্জ পেনাল্টি পেয়ে গেলে, যেখান থেকে জাত্তা মোস্তফা এগিয়ে দিয়েছেন পুরান ঢাকার দলটিকে। ম্যাচের তখনো অনেকটা সময়ই বাকি। মুক্তিও ফের সমতায় ফিরতে মরিয়া হয়। দ্বিতীয়ার্ধে সেই সুযোগ পেয়েও যায় তারা আরেক পেনাল্টিতে। স্পট কিকে যে সুযোগ পায়ে ঠেলেছেন লিগে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতা কোলো মুসা। বল সোজা ক্রসবারে লাগিয়েছেন তিনি। রহমতগঞ্জ লিড ধরে রাখার সুযোগটি এরপর আর হাতছাড়া করেনি। লিগে ৯ ম্যাচে এটি তাদের পঞ্চম জয়, সঙ্গে ৪ ড্রয়ে শীর্ষে থাকা জামালের সমান ১৯ পয়েন্ট তাদের।

কাল অন্য ম্যাচে টানা অষ্টম হারের স্বাদ পেয়েছে উত্তর বারিধারা। সিলেটে কাল ব্রাদার্স ২-১ গোলে হারিয়েছে তাদের। লিগের প্রথম ম্যাচে শেখ রাসেলকে হারানোর পর থেকেই তারা হারের বৃত্তে। ব্রাদার্সের এটি দ্বিতীয় জয়, তবে ৫টি ড্র আছে তাদের। সুবাদে ১১ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের ৬-এ তাদের অবস্থান। বারিধারা ৩ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি তলানিতে। কাল প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে কাওসার আলীর ক্রসে আব্বাস ইনুসা হেড করে প্রথম এগিয়ে দেন ব্রাদার্সকে। দ্বিতীয়ার্ধের মিনিট দশেকের মধ্যে ব্যবধান দ্বিগুণ করে তারা ওয়ালসনের গোলে। ৭৩ মিনিটে নিজেদের একমাত্র গোলটি করে বারিধারা। মুনির আলমের কর্নারে কলিন্সের হেড জালে জড়ায়।


মন্তব্য