kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে

প্রথম ওয়ানডেতে মাত্র ৭ রানে জিতেছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অনভ্যস্ততার কারণেই অমন হয়েছে বলে মত খালেদ মাহমুদের। কাল গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জাতীয় দলের ম্যানেজার জানান, পরের ম্যাচগুলোয় দলের আরো ভালো পারফরম্যান্সের প্রত্যাশার কথা

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



 ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে

প্রশ্ন : প্রায় ১১ মাস পর ওয়ানডে ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ। তাতে শেষ পর্যন্ত জয় পেলেও ওই বিরতির প্রভাব ছিল কতটা?

খালেদ মাহমুদ : একটা প্রভাব তো ছিলই। কারণ আন্তর্জাতিক ম্যাচ আলাদা ব্যাপার। যতই ঘরোয়া ক্রিকেট কিংবা অনুশীলন ম্যাচ খেলেন, আন্তর্জাতিক ম্যাচের আবহ তৈরি করা যায় না। কাল (পরশু) বোলিং-ব্যাটিং-ফিল্ডিংয়ে নিজেদের একটু গুটিয়ে রেখেছিলাম; এটা হয়তো অনেক দিন পর ম্যাচ খেলার কারণে। তবে আমরা ভাগ্যবান যে ঘুরে দাঁড়িয়ে ম্যাচটি জিততে পেরেছি।

প্রশ্ন : দ্বিতীয় ওয়ানডের আগে ক্রিকেটারদের প্রতি টিম ম্যানেজমেন্টের বার্তা কী হবে?

মাহমুদ : ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে। দশ মাস আগে আমরা যেভাবে খেলেছি, সেভাবে খেলতে হবে। প্রথম ওয়ানডেতে সবই ঠিক ছিল, তবে সামান্য ভয় হয়তো কাজ করেছে। তা আমরা চাই না। চাই ভয় ছাড়া ক্রিকেট। চাই বাঘ বাঘের মতো খেলুক।

প্রশ্ন : সৌম্য সরকারের ফর্মহীনতা কতটা উদ্বেগের?

মাহমুদ : ওরকম হতেই পারে। কারণ ছোটবেলা থেকে একটা কথা শুনতাম, ‘ফর্ম ইজ টেম্পোরারি, ক্লাস ইজ পার্মানেন্ট। ’ আমার মনে হয় সৌম্য একটা ক্লাস ব্যাটসম্যান। ও যে দুর্দান্ত ক্রিকেটার, তা ইতোমধ্যেই প্রমাণ করেছে। পুরো কোচিং স্টাফদের হয়ে কথা বলছি না, কেবল নিজের ব্যক্তিগত মত জানাচ্ছি—আমার মনে হয় একটা ভালো ইনিংস খেললেই সৌম্য আবার ফিরে আসবে।

প্রশ্ন : প্রথম ওয়ানডেতে আরেকজন বোলারের অভাব বোধ করেছেন কি না?

মাহমুদ : এমন কিছু না। তাসকিন-রুবেলরা প্রথম দিকে ভালো করতে পারেনি বলে হয়তো তা মনে হয়েছে। তবে আশার কথা দলের প্রয়োজনের সময় তারা খুব ভালো বল করেছে। ওই যে বললাম রুবেল অনেক দিন পর ফিরে এসেছে, তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে একটা উত্কণ্ঠা ছিল। ওরা এসব কাটিয়ে কাল প্রথম ম্যাচে খেলেছে। আমার মনে হয় পরের ম্যাচে এমন কোনো সমস্যা থাকবে না।

প্রশ্ন : শেষ ১০ ওভারে খুব একটা রান করতে পারেনি বাংলাদেশ। এ নিয়ে আপনার ভাবনা জানতে চাই।

মাহমুদ : আমার মনে হয় আরো বেশি রান হতে পারত, কিন্তু উইকেট হারানোয় তা করতে পারেনি। তবে ক্রিকেটে এমন হতেই পারে।

প্রশ্ন : আপনার কি মনে হয় না, তিন শ রানের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাটিং করা উচিত?

মাহমুদ : আমরা তো সাড়ে তিন শ করতে চাই। যত বেশি রান করতে পারব, তত আমাদের বোলারদের জন্য ভালো। কিন্তু ওই যে বললাম, আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার অভাব ছিল। পরের ম্যাচে তা কাটিয়ে ফিরে আসতে পারি কিনা, দেখা যাক।


মন্তব্য