kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

ইব্রাহিমোভিচকে ছোটবেলায় অনুশীলন করিয়েছি

সুইডিশ কোচ স্টেফান হ্যানসন মাত্রই দায়িত্ব নিয়েছেন শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের। কোচ হিসেবে অভিষেক ম্যাচেই ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে দেখেছেন ৫-৪ গোলের রোমাঞ্চকর জয়। সুইডিশ তারকা জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচকেও ছোটবেলায় অনুশীলন করানো এই কোচ কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে জানিয়েছেন আরো অনেক কিছুই

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ইব্রাহিমোভিচকে ছোটবেলায় অনুশীলন করিয়েছি

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : দারুণ একটা জয় দিয়েই তো অভিষেক হলো আপনার!

স্টেফান হ্যানসেন : হ্যাঁ, সত্যিই দারুণ। ৫-৪ গোলের ম্যাচে জয়, যেটা শেষ মুহূর্তে ৫-৫ গোলে ড্রও হতে পারত।

আমার কোচিং ক্যারিয়ারে কখনোই আমি এক ম্যাচে ৯ গোল দেখিনি। শুরুটা বেশ ভালো হলো।

প্রশ্ন : আপনি তো মালমোতে খেলেছেন, জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচকেও নাকি ছোটবেলায় অনুশীলন করিয়েছেন? ছোটবেলাতেই কি তাঁর মধ্যে বড় খেলোয়াড় হওয়ার রসদ দেখেছিলেন?

হ্যানসন : হ্যাঁ, ইব্রাহিমোভিচ যখন ছোট তখন তাকে অনুশীলন করিয়েছি আমি। তার বয়সীদের মধ্যে সে ছিল সবচেয়ে সেরা। এরপর তো সে পেশাদার পর্যায়ে চলে গেল, আমিও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলে যাই।   আর এখন তো সে বিশ্বসেরা ফুটবলারদেরই একজন।

প্রশ্ন : আপনার কোচিং প্রোফাইল ঘেঁটে দেখা যাচ্ছে, এখানে আসার আগে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতেই বেশি কাজ করেছেন। বাংলাদেশে এলেন কিভাবে?

হ্যানসন : কখনো আসিনি, তাই চলে এলাম! আমার হাতেও কাজ ছিল না আর এদিক থেকেও ডাক পেলাম। ভেবে দেখলাম কেন নয়! তাই চলে এলাম। তবে গরমটা খুব বেশি!

প্রশ্ন : আপনি ইউরোপের মানুষ, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে কাজ করেছেন যেখানটায় ফুটবলে পেশাদারি কাঠামো এখানকার চেয়ে অনেক ভালো। এসে মানিয়ে নিতে সমস্যা হচ্ছে না?

হ্যানসন : মাত্রই তো এলাম। আসার পর ঢাকা থেকে সিলেট, থিতু হওয়ার সময়টা পেলাম কোথায়? তবে শেখ জামাল অনেক পেশাদার ক্লাব। তারা তো এএফসি পর্যায়েও খেলেছে। আশা করি সমস্যা হবে না।

প্রশ্ন : শেখ জামালের আক্রমণভাগের তিন ফুটবলারই তো বিদেশি। স্থানীয়দের মধ্যে কে বেশি নজর কেড়েছে আপনার?

হ্যানসন : সত্যি করে বললে স্থানীয়ই বলুন আর বিদেশিই বলুন, কেউই আমার নজর কাড়তে পারেনি।

প্রশ্ন : কি বলছেন! আপনার দল গোল দিয়েছে তবুও কেউ নজর কাড়েনি?

হ্যানসন : ৫টা গোল করার পাশাপাশি ৪টা গোলও তো হজম করতে হয়েছে। এই ব্যাপারটাই ভালো লাগেনি। রক্ষণ খুবই দুর্বল।  

প্রশ্ন : আপনার দলের অধিনায়কই তো দুটি পেনাল্টি দিয়েছেন প্রতিপক্ষকে।

হ্যানসন : রক্ষণে দুর্বলতার কথা তো বললামই। একটা ম্যাচে কোনো দল তিনটি পেনাল্টি প্রতিপক্ষকে  দেবে, এটা মেনেই নেওয়া যায় না। মাত্র তো এলাম। অনেক কাজ করতে হবে।

প্রশ্ন : পরের ম্যাচগুলো নিয়ে কী ভাবনা?

হ্যানসন : এটা তো জিতলাম, পরেরগুলোও  জিততে চাই।


মন্তব্য