kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দুই সেঞ্চুরিতে বিদায়

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দুই সেঞ্চুরিতে বিদায়

ডন ব্র্যাডম্যান, শচীন টেন্ডুলকার, ব্রায়ান লারাদের মতো কিংবদন্তিরাও পারেননি। ব্র্যাডম্যান তো শেষ ইনিংসে আউট হয়েছিলেন শূন্য রানে।

যতটা না এরিক হলিসের বলে, এর চেয়ে বেশি আবেগে চোখ ঝাপসা হয়ে যাওয়ায়। বিদায়ী ম্যাচে আসলে আবেগ ছুঁয়ে যায় সবাইকে, যার প্রভাবে সাদামাটা হয়ে যান কিংবদন্তিরাও। ব্যতিক্রম মাত্র তিনজন। ইংল্যান্ডের উইলিয়াম ল্যাম্বার্ট আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের লেন বাইচানের পাশে গতপরশু নাম লেখালেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিস রজার্স। প্রথম শ্রেণির বিদায়ী ম্যাচে কেবল এই তিনজনেরই আছে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি।

টেস্ট থেকে গত বছর বিদায় নেওয়া রজার্স গতপরশু সমারসেটের হয়ে খেললেন প্রথম শ্রেণির শেষ ম্যাচ। নটিংহ্যামশায়ারের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ১৩২-এর পর দ্বিতীয় ইনিংসে অপরাজিত ১০০ রানে। তাতেই হয়েছে অনন্য রেকর্ডটা। তাঁর জোড়া সেঞ্চুরিতে ম্যাচটা জিতে কাউন্টির শিরোপাস্বপ্নও দেখছে সমারসেট। মিডলসেক্স আর ইয়র্কশায়ারের ম্যাচের ওপর নির্ভর করছে ১২৫ বছর পর সমারসেটের কাউন্টি শিরোপা ফিরে পাওয়া না পাওয়াটা। এ জন্য শিহরিত ৩৯ বছর বয়সী রজার্স, ‘দুই সেঞ্চুরিতে শেষ করতে পারাটা বিশেষ কিছু। এর চেয়েও ভালো লাগবে দল শিরোপা জিতলে। ১২৫ বছর শিরোপা নেই সমারসেটের, ভাবতেই কেমন লাগে। ’ গতকাল নাটকীয় শেষ দিনে অবশ্য শিরোপা জিতেছে মিডলসেক্স। ২৫ টেস্টে ৫ সেঞ্চুরিসহ ২০১৫ রান করেছেন এই অস্ট্রেলিয়ান। তাঁর প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ার এতটা সাদামাটা নয়। ৩১৩ ম্যাচে ৭৬ সেঞ্চুরি, ১২২ ফিফটিসহ করেছেন ২৫ হাজারের বেশি রান।

দুই সেঞ্চুরিতে বিদায়ের প্রথম কৃতিত্বটা ইংল্যান্ডের উইলিয়াম ল্যাম্বার্টের। তখনো গড়ায়নি প্রথম টেস্ট। ১৮০১ সালে প্রথম শ্রেণির ম্যাচে অভিষিক্ত ল্যাম্বার্ট বিদায় নেন ১৮১৭ সালে লর্ডসে। সাসেক্সের হয়ে ইপসমের বিপক্ষে বিদায়ী ম্যাচে প্রথম ইনিংসে অপরাজিত ১০৭ আর শেষ ইনিংসে ১৫৭ করে জয় এনে দিয়েছিলেন দলকে। ১৫৭-ই আবার ৬৪ প্রথম শ্রেণির ম্যাচে সেরা স্কোর ল্যাম্বার্টের। ১৯৭৫ ও ১৯৭৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৩টি টেস্ট খেলেছেন লেন বাইচান। তবে প্রথম শ্রেণির শেষ ম্যাচ ১৯৮৩ সালে। সেই ম্যাচের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি ছিল গায়ানার এই ওপেনারের। ক্রিকইনফো


মন্তব্য