kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বার্সা-অ্যাতলেতিকো ড্র, আটকাল রিয়ালও

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বার্সা-অ্যাতলেতিকো ড্র, আটকাল রিয়ালও

এই অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের কাছে হেরেই গত মৌসুমে ট্রেবল স্বপ্ন এলোমেলো হয়ে গেছে বার্সেলোনার। নতুন মৌসুমের প্রথম দেখায়ও ডিয়েগো সিমিওনের দলটিকে হারাতে পারল না কাতালানরা।

ন্যু ক্যাম্প থেকে ১-১ ড্র নিয়ে ফিরেছে রোজিব্লাঙ্কোস। বার্সার আরো বড় ক্ষতি হয়ে গেছে এই ম্যাচে লিওনেল মেসিকে হারিয়ে, কুঁচকির ইনজুরিতে আগামী তিন সপ্তাহ তিনি মাঠে নামতে পারছেন না। ন্যু ক্যাম্পে খেলা শুরুর আগেই এদিন বার্নাব্যুতে পয়েন্ট হারিয়ে বসেছিল রিয়াল মাদ্রিদ ভিয়ারিয়ালের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে। অ্যাতলেতিকোর সঙ্গে নিজেরাও পয়েন্ট ভাগাভাগি করে টেবিলে ব্যবধান কমানোর সুযোগটাও তাই হারিয়েছে লুই এনরিকের দল।

ম্যাচ শেষে বার্সা কোচ বলেছেন ‘সেরা আক্রমণভাগের সঙ্গে সেরা রক্ষণভাগের খেলা হয়েছে। ’ স্বাগতিকরা জয়বঞ্চিত সে কারণেই। আগের ২ ম্যাচে ১০ গোল করা এমএসএনকে ভালোভাবেই সামলেছে অ্যাতলেতিকোর ডিফেন্স। বিরতির মিনিট কয়েক আগে ইভান রাকিটিচ প্রথম এগিয়ে দেন বার্সাকে। বাঁ দিক থেকে আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার জোরালো ক্রসে শুধু মাথা ছুঁইয়ে দিয়েছিলেন এই ক্রোয়াট মিডফিল্ডার। মেসির ইনজুরির ধাক্কা দ্বিতীয়ার্ধের মিনিট পনেরোর মধ্যে। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে তিনি মাঠ ছাড়ার কয়েক মুহূর্তের মধ্যে অ্যাতলেতিকো সমতায় ফেরে। বক্সের বেশ বাইরে বল ধরে হাভিয়ের মাসচেরানোকে বডিডজে ছিটকে ফেলে ঠাণ্ডা মাথায় বল জালে জড়ান আনহেল কুরেয়া। মেসির বদলি নেমে আরদা তুরান তখনো বলেই পা ছোঁয়াননি। ম্যাচের শেষ পর্যন্তও অবশ্য তেমন প্রভাব রাখতে পারেননি নেইমারের অনুপস্থিতিতে মৌসুমের শুরুতে দারুণ খেলতে থাকা এই তুর্কি মিডফিল্ডার। খেলা শেষের মিনিট দশেক আগে নেইমার বরং গোলবঞ্চিত হয়েছেন তাঁর বাঁ পায়ের শট ওব্লাক দারুণ  ফিরিয়ে দিলে। এর পরপরই আবার নেইমারের ফ্রিকিকে জেরার্দ পিকের হেড চলে যায় সাইড পোস্ট ঘেঁষে। শেষ মুহূর্তে খুব কাছ থেকে ইয়োর্দি আলবাও বল পোস্ট রাখতে পারেননি। এই ড্রয়ে সিমিওনে বেশ খুশি, বিশেষ করে দ্বিতীয়ার্ধের পারফরম্যান্সে শিষ্যদের প্রশংসাই করেছেন তিনি, ‘দ্বিতীয়ার্ধে আমরা স্বরূপে ফিরেছি। দ্রুত বল পাস করে দারুণভাবে আমরা আক্রমণেও উঠছিলাম। ’ রিয়ালের ড্রয়ের রাতে পয়েন্ট হারানোটাকেও খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন না আর্জেন্টাইন কোচ, ‘লিগ মাত্র শুরু, প্রত্যেকেই আমরা পাঁচটি করে ম্যাচ খেললাম, আরো বহুদূর যেতে হবে। ’

তবে বার্নাব্যুতে এদিন জিতলে পয়েন্ট টেবিলে ব্যবধানটা আরো বাড়িয়েই নিতে পারত রিয়াল। কিন্তু ইনজুরি থেকে ফেরা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো বা গ্যারেথ বেল যে স্বরূপে ছিলেন না। প্রথমার্ধে ভিয়ারিয়াল বারবারই আতঙ্ক ছড়িয়েছে রিয়াল ডিফেন্সে। বিরতির ঠিক আগে আগে সের্হিয়ো রামোস বক্সের ভেতর হাতে বল লাগিয়ে পেনাল্টি দিলে ব্রুনো সোরিয়ানো প্রথম এগিয়ে দেন সফরকারীদের। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সেই রামোসেই রক্ষা রিয়ালের। হামেস রোদ্রিগেসের কর্নারে ভিয়ারিয়াল ডিফেন্সের চোখ এড়িয়ে তিনি হেড নিয়েছেন জালে। পারফরম্যান্স অনুযায়ী এই ড্র মেনেও নিয়েছেন কোচ জিনেদিন জিদান, ‘সব সময়ই ৩ পয়েন্ট পাওয়া যাবে না। আজ (পরশু) আমরা দ্বিতীয়ার্ধে বেশ ভালো খেলেছি। কিন্তু প্রথমার্ধে সেই ছন্দটা ছিল না। আমরা জানি এর জন্য আরো পরিশ্রম করতে হবে আমাদের, ম্যাচের শুরুটা অবশ্যই আরো ভালো হতে হবে। ’ এই ড্রয়ে লা লিগায় বার্সেলোনার গড়া টানা ১৬ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড ছাড়িয়ে যেতে পারল না রিয়াল। এএফপি


মন্তব্য