kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভারতের ঐতিহাসিক ৫০০

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ভারতের ঐতিহাসিক ৫০০

১৯৩২ সালের লর্ডসে শুরু টেস্ট আঙিনায় পা রাখা। ভারতের সেই টেস্ট গাড়িটা আজ কানপুরে পৌঁছাচ্ছে ৫০০তম ম্যাচের স্টেশনে।

ঐতিহাসিক টেস্টটি উৎসবের মেজাজে স্মরণীয় করতে চায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। তাই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে সাবেক সব অধিনায়ককে। ম্যাচ চলার সময় নানাভাবে স্মরণ করা হবে ৫০০ টেস্ট পর্যন্ত পৌঁছানোর একেকটা বাঁকের খণ্ডচিত্র। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ডের অবশ্য এসব নিয়ে মাথাব্যথা নেই। বল মাঠে পড়লে তাদের কাছে ৫০০ কিংবা ৪৯৯ শুধু সংখ্যা, ম্যাচটাই আসল। তাই ভারতের উৎসব মাটি করার পণ কিউই কোচ মাইক হ্যাসনের, ‘ভারতে আমাদের মাত্র দুটি টেস্ট জয়ের ইতিহাস বলছে সফরটা চ্যালেঞ্জের। আমাদের ছেলেরা অবশ্য চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করে। ওরা নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে যেকোনো কিছু সম্ভব। ’

মাত্র চতুর্থ দেশ হিসেবে ৫০০তম টেস্টের মাইলফলকে পা রাখছে ভারত। ১৮৭৭ সালে টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ম্যাচ খেলা ইংল্যান্ড ৫০০’র চূড়ায় পা রাখে ১৯৭৪ সালে লিডসে পাকিস্তানের বিপক্ষে। অর্থাৎ তাদের লেগেছিল ৯৭ বছর। অস্ট্রেলিয়া ১১৩ বছর পর খেলেছিল ৫০০তম টেস্ট, ১৯৯০ সালে মেলবোর্নে। প্রতিপক্ষ আবার সেই ইংল্যান্ড। তৃতীয় দল হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০১৪ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে সেন্ট লুসিয়ায় পা রাখে এই মাইলফলকে। ১৯২৮ সালে প্রথম টেস্ট খেলা ক্যারিবিয়ানদের এ পর্যন্ত পৌঁছতে কেটে যায় ৮৬ বছর। আর ভারত ১৯৩২ সালে শুরু করে ৫০০’র পৃথিবীতে পা রাখছে ৮৪ বছরে, অর্থাৎ সবচেয়ে দ্রুততম সময়ে। এমন ম্যাচটা হারতে চান না অধিনায়ক বিরাট কোহলি, ‘নিউজিল্যান্ড কখনো হাল ছেড়ে দেওয়ার দল নয়। তবে আমরাও গত কিছুদিন ভালো খেলে চলেছি। নিজেদের সামর্থ্যের ওপর বিশ্বাস আছে সবার। ’

নিউজিল্যান্ড উপমহাদেশে খেলা সর্বশেষ তিন সিরিজের তিনটিই ড্র করেছে। তবে ভারতের মাটিতে সর্বশেষ টেস্ট জিতেছিল ১৯৮৮ সালে। আর বিরাট কোহলির দল দেশের মাটিতে সর্বশেষ খেলা ১০ টেস্টের জিতেছে ৯টিতে। ঘূর্ণি উইকেট বানিয়ে নাস্তানাবুদ করে অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা আর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। কানপুরের উইকেট এতটাই খারাপ ছিল যে সতর্ক পর্যন্ত করে আইসিসি। তাই ৫০০তম টেস্টের উইকেটে প্রথম দিন থেকে বল ঘোরার সম্ভাবনা নেই। স্পিনাররা সুবিধা পাবেন তৃতীয় দিন থেকে। এ জন্য দুই বা তিন দিনে টেস্টের ফল নির্ধারিত হয়ে যাওয়ার শঙ্কা কম। পিচ নিয়ে প্রশ্ন শুনে বেশ বিরক্ত ভারতীয় কোচ অনিল কুম্বলে, ‘আমার মনে হয় পিচ নয় কথা হওয়া উচিত পিচের ওপর যে খেলাটা হয় তা নিয়ে। শুধু এটুকু বলতে পারি যথেষ্ট ভালো উইকেটে খেলা হবে কানপুরে। ’

আইসিসির সতর্কতায় ‘সেই ভালো’ উইকেটে ঐতিহাসিক টেস্টটা দেখতে আসছেন না আইসিসির প্রধান শশাঙ্ক মনোহর। ভারতকে শুধু শুভেচ্ছা জানিয়ে শেষ করেছেন নিজের দায়িত্ব। বিসিসিআইয়ের জমজমাট আয়োজনের খুঁত হয়তো মনোহরকে কানপুরে আনতে না পারা! পিটিআই


মন্তব্য