kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বার্সার সামনে অ্যাতলেতিকো

মুখোমুখি রিয়াল-ভিয়ারিয়াল

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বার্সার সামনে অ্যাতলেতিকো

রাজধানী মাদ্রিদের ক্লাব হিসেবে অ্যাতলেতিকোর সঙ্গে স্বাধীনতাকামী কাতালানদের ক্লাব বার্সেলোনা সমর্থকদের সম্পর্কটা যুদ্ধংদেহিই হওয়ার কথা। কিন্তু তা হয়নি আদর্শগত মিল বা অমিল থেকেই! রিয়াল মাদ্রিদ যদি মাদ্রিদের অভিজাতদের প্রতিনিধি হয়ে থাকে, তাহলে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের শহরতলিতে বসবাস করা শ্রমিক শ্রেণির জোট।

মাদ্রিদ ডার্বি কিংবা এল ক্লাসিকো, একদিকে নামটা রিয়াল মাদ্রিদ থেকেই যায়; অন্যদিকে অ্যাতলেতিকো অথবা বার্সেলোনা। স্প্যানিশ ফুটবল-সূচির সবচেয়ে বিখ্যাত দুটো ম্যাচে অংশ নেওয়া এ দুই দলের নিজেদের ভেতর কোনো দ্বৈরথ সে অর্থে গড়ে ওঠেনি। তবে অ্যাতলেতিকোর লিগ জয়, চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বার্সেলোনাকে বিদায় করে দেওয়া এবং ডিয়েগো সিমিওনের দলের মাঠে প্রচণ্ড রাফ ট্যাকলিং ফুটবল খেলা থেকে জন্ম নিচ্ছে নতুন এক প্রতিদ্বন্দ্বিতার ফুলকি!

হিসাব বলছে, সব শেষ সাত দেখায় ছয়বারই জয়ী দলটার নাম বার্সেলোনা। হার তাদের মাত্র একবারই, সেটারই চড়া মূল্য। চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ন্যু ক্যাম্পে ২-১ গোলে হেরে আসার পর ভিসেন্তে কালদেরনে অ্যাতলেতিকোর ২-০ গোলের জয়ই ইউরোপসেরা হওয়ার লড়াই থেকে ছিটকে দিয়েছিল বার্সাকে। সেসব মনে রেখেই স্প্যানিয়ার্ড স্ট্রাইকার ফার্নান্দো তোরেস বলছেন, ‘বার্সেলোনার মুখোমুখি হওয়ার এটাই সেরা সময়। ’ টানা তিন ম্যাচ জিতেছে অ্যাতলেতিকো, সব শেষ ম্যাচে স্পোর্তিং গিজনের বিপক্ষে ৫-০ গোলের জয়ে জোড়া গোল করা তোরেস বলছেন, ‘তারা যেভাবে খেলে তাতে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি, যদিও তারা সবচেয়ে কঠিন প্রতিপক্ষ। কোনো সন্দেহ নেই, ম্যাচটা কঠিন হতে যাচ্ছে। তার পরও এটা বলা যায় যে দল যখন জিতছে এবং ভালো করছে, সেটা বার্সেলোনার বিপক্ষে খেলার আগে বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগায়। ’ সুখস্মৃতি আর টাটকা বর্তমান যেমন আশা জোগাচ্ছে, তেমনি তোরেস এটাও জানেন, অ্যাতলেতিকোর জার্সিতে ন্যু ক্যাম্পে জোড়া গোল করে ২০০৬ সালে দলকে জেতানোর পর গত এক দশকে বার্সেলোনার মাঠে আর জেতেনি ‘লস রোজা ব্লাঙ্কো’রা। পরের ১০ বছরে লিভারপুল, চেলসি, মিলান হয়ে আবারও অ্যাতলেতিকোয় ফিরেছেন তোরেস, এবার তাঁর মনে ফের গোলের দেখা পাওয়ার আশা, ‘আমাদের গোল পেতেই হবে। দলের সবাই খুব আত্মবিশ্বাসী, জানে যে সবচেয়ে কঠিন ম্যাচে নামতে যাচ্ছে তারা। ’

অন্যদিকে বার্সেলোনা কোচ লুই এনরিকে অ্যাতলেতিকোকে এগিয়ে রাখছেন কাউন্টার অ্যাটাক আর সেটপিসে, ‘তারা কাউন্টার অ্যাটাক আর সেটপিসের ওস্তাদ। তারা মৌসুমের প্রতিটা শিরোপার দাবিদার। তাদের বিপক্ষে আমাদের সব কিছু ঠিকঠাক হতে হবে, ভুলের সংখ্যা কমিয়ে রেখে খেলার পরিকল্পনায় স্থির থাকতে হবে। অ্যাতলেতিকোর বিপক্ষে কোনো ম্যাচই সহজ নয়। ’

অ্যাতলেতিকোর নগর প্রতিদ্বন্দ্বী ও বার্সেলোনার প্রবল প্রতিপক্ষ রিয়াল মাদ্রিদ কাল মাঠে নামছে টানা ১৭তম জয়ের খোঁজে। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে রিয়ালের প্রতিপক্ষ ভিয়ারিয়াল, যারা এ মৌসুমে এখনো কোনো ম্যাচ হারেনি। ব্যাপারটা মাথায় আছে জিনেদিন জিদানেরও, ‘জানি, আরো একটা কঠিন ম্যাচ আছে সামনে। প্রতিপক্ষ এ মৌসুমে এখনো কোনো ম্যাচ হারেনি, তাদের ভালো কিছু ফুটবলার আছে। আমরা অনুশীলনের খুব একটা সুযোগ পাইনি, কারণ তিন দিন পর পরই মাঠে নামতে হয়েছে। অমরা তৈরি, দেখি কী হয়!’ রেকর্ডসংখ্যক লিগম্যাচ জয়েও খুব একটা উচ্ছ্বসিত নন জিদান, ‘আমরা তো কিছু জিতিনি। তবে রেকর্ড হয়েছে শুনে ভালো লাগছে। অনুশীলন, খেলা এবং জয়—এটাই তো করার চেষ্টা করি আমরা। এখন সময়টা ভালো যাচ্ছে, এর বাইরে কিছু মাথায় নেই। ’ এস্পানিওলের বিপক্ষে ছিলেন না ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও গ্যারেথ বেল, তাঁদের ফেরার খবরটাও দিয়েছেন রিয়াল কোচ, ‘তারা ভালোই আছে, দুজনই স্বাভাবিক অনুশীলন করেছে, দুজনই ১০০ ভাগ ফিট। ’ শোনা যাচ্ছিল, হামেস রদ্রিগেসকে ঠিক পছন্দ করছেন না জিদান। রোনালদো ও গ্যারেথ বেল আগের ম্যাচে না খেলায় এ কলম্বিয়ান সুযোগ পান দলে এবং গোলও করেন। তাঁকে নিয়ে জিদানের মন্তব্য, ‘সে ভালো করছে, সেদিন তো সে খেলল। সবাইকেই সুযোগ দেওয়া দরকার। আমি সবাইকে একটা কথাই বলি, শতভাগ অনুশীলন করো ও দলকে সাহায্য করো। ’ সপ্তাহের মধ্যবর্তী সূচিতে ইংল্যান্ডে চলবে লিগ কাপ, জার্মানির বুন্দেসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখ মুখোমুখি হবে হার্থা বার্লিনের। এএফপি, ক্রাব ওয়েবসাইট


মন্তব্য