kalerkantho


জয়ের আকাঙ্ক্ষা নিয়ে নামছে শেখ রাসেল

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জয়ের আকাঙ্ক্ষা নিয়ে নামছে শেখ রাসেল

ক্রীড়া প্রতিবেদক : শেখ রাসেলের দুঃসময় প্রলম্বিত হবে নাকি নতুন শুরু? দীর্ঘ বিরতির পর আজ শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র-ব্রাদার্স

ইউনিয়নের ম্যাচকে ঘিরে এই প্রশ্নটাই সামনে চলে আসছে। নতুন কোচিং স্টাফের কাছে এই প্রশ্নের উত্তর অজানা, তবে দলের চরিত্র বদলের ইঙ্গিত পেয়েছেন নতুন কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক।  

এবার প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে শেখ রাসেল এক বিস্ময়ের নাম। ভালো দল গড়েও গতবারের রানার্স-আপরা ৬ ম্যাচে জয়ের মুখ দেখেনি। বিজেএমসির সঙ্গে একটি ড্র বাদে তারা হেরেছে বাকি ৫ ম্যাচে। ৬ ম্যাচে গোল করেছে মাত্র দুটি! এমন দুর্দশার কোনো যুক্তিযুক্ত কারণও খুঁজে পাওয়া যায়নি। সাবেক কোচ মারুফুল হক একটা সুযোগ পেয়েছিলেন ভুটানে এএফসি কাপ বাছাইয়ের প্লে-অফে। সেখানেও জয়হীন। দলটিকে খাদ থেকে টেনে তোলার জন্য মারুফুলকে বিদায় দিয়ে লিগের মাঝপথে শুরু হচ্ছে মানিকের মিশন। ‘লিগের বিরতির সময় আমাদের খুব সিরিয়াস প্র্যাকটিস হয়েছে। প্র্যাকটিস ম্যাচও খেলেছি একটি। সুবাদে ব্যক্তিগতভাবে আমি নব্বই ভাগ আত্মবিশ্বাসী এই দল নিয়ে। খেলোয়াড়দের শরীরী ভাষা দেখে মনে হচ্ছে, হারানো আত্মবিশ্বাস তারা ফিরে পেয়েছে’, আত্মবিশ্বাসী হয়ে শেখ রাসেলের নতুন মিশন শুরুর কথা বলেছেন নতুন কোচ। বিরতিতে দলের ভেতর কিছুটা যে পরিবর্তন এসেছে তা বোঝা গেছে মুক্তিযোদ্ধার বিপক্ষে প্র্যাকটিস ম্যাচ জয়ে।

আরেকটা ভালো ইঙ্গিত হচ্ছে, দলটা অনেকখানি ইনজুরিমুক্ত। ইনজুরির সংক্রমণ এত ভয়াবহ ছিল, একাদশ চূড়ান্ত করতেই হিমশিম খেতে হয়েছে কোচকে। আশার কথা, মূল স্ট্রাইকার পল এমিলকে আজ মাঠে দেখা যাবে।

প্রতিপক্ষ ব্রাদার্স ইউনিয়নের অবস্থাও খুব ভালো নয়। নেপালি কোচের অধীনে তারা জয়হীন, ৬ ম্যাচে ৫ পয়েন্ট নিয়ে তারা আছে নবম স্থানে। কোচ পাল্টে পুরনো ভারতীয় কোচ সৈয়দ নঈমুদ্দিনের অধীনে ব্রাদার্সও নামবে অনেকটা নতুন শুরুর লক্ষ্য নিয়ে। মানিক অবশ্য তাদের শক্তিশালী প্রতিপক্ষের চোখে দেখছেন, ‘ম্যাচ জেতেনি বলে তারা খারাপ দল নয়। অনেক ম্যাচে তারা ভালো খেলেও রেজাল্ট পায়নি। কয়েকবার দুর্ভাগ্যের কারণে তাদের জেতা ম্যাচ ড্র হয়েছে। সুতরাং পয়েন্টের জন্য কঠিন লড়াই হবে এই ম্যাচে। ’ ব্রাদার্সও যেমন ভালো খেলে জয়ের দেখা পায়নি তেমনি শেখ রাসেলও মিসের মহড়া দিয়েছে প্রতি ম্যাচে। ফেনী সকারের বিপক্ষে ৩২ মিনিটে চারটি গোলের সহজ সুযোগ নষ্ট করেও শেষ পর্যন্ত হেরে গেছে। দুই দলের অবস্থা প্রায় একই, এই ম্যাচ থেকে জয়ের স্বাদ নিতে চায়। শেখ রাসেল কোচ খেলোয়াড়দের মধ্যে জয়-ইচ্ছা দেখেছেন, ‘ম্যাচে কী হবে জানি না। তবে খেলোয়াড়দের মধ্যে জয়ের তীব্র আকাঙ্ক্ষা দেখেছি আমি। পাশাপাশি ভেতরে ভেতরে হয়তো হোঁচট খাওয়ার ভয়ও কাজ করে, এতগুলো ম্যাচ হারার পর এটা স্বাভাবিক। সেই ভয় ছাপিয়ে জয়ের আকাঙ্ক্ষা তীব্রতর হয়ে উঠুক এটাই আমার প্রত্যাশা। ’ এই আকাঙ্ক্ষা ও আত্মবিশ্বাস রাসেলের ভাগ্য বদলায় কিনা, সেটাই দেখার বিষয়।


মন্তব্য