kalerkantho


রেকর্ডও গড়ল জিদানের রিয়াল

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



রেকর্ডও গড়ল জিদানের রিয়াল

তাঁকে নিয়ে অনেক সমালোচনা। কোচিংয়ের তেমন অভিজ্ঞতা ছাড়াই রিয়াল মাদ্রিদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে; কোনো ট্যাকটিক্যাল পরিকল্পনা নেই; খেলায় নিজস্বতার ছাপ নেই এবং কখনো কখনো তিনি ভাগ্যবান।

অথচ এই জিনেদিন জিদান গত জানুয়ারিতে স্প্যানিশ ক্লাবটির কোচ হয়ে পাঁচ মাসের মধ্যে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতান। আর গত পরশু এস্পানিওলকে ২-০ গোলে হারানোয় তাঁর দল গড়ে টানা ১৬ লা লিগা ম্যাচ জয়ের রেকর্ড।

শিরোপা আর ম্যাচ জয়ে সমালোচকদের জবাব কী দুর্দান্তভাবেই না দিচ্ছেন ফরাসি কিংবদন্তি!

মধ্য সপ্তাহে চ্যাম্পিয়নস লিগের নতুন মৌসুমের প্রথম ম্যাচ রিয়াল মাদ্রিদ জেতে ৯৪তম মিনিটের গোলে। এস্পানিওলের বিপক্ষে ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে জিদানের দিকে ধেয়ে যায় প্রশ্ন—নিজেকে কি ভাগ্যবান মনে করেন? বিষ মাখানো প্রশ্নে জিদানের শ্লেষজড়ানো উত্তর, ‘গোলাপের সৌরভ নিয়ে আমি জন্মেছি? হ্যাঁ। তবে তা কেবল কোচ হিসেবে নয়, জীবনেও। কারণ আমি ফুটবল খেলতে পেরেছি। এই জীবনের পাওয়ায় আমি ভাগ্যবান। আর রিয়াল মাদ্রিদে ওই গল্পটি টেনে আনার মতো যথেষ্ট ভাগ্যবানও আমি। ’

কিন্তু শুধু ভাগ্য দিয়ে তো লা লিগায় টানা ১৬ ম্যাচ জেতা যায় না।

রিয়াল মাদ্রিদের আলোকিত ইতিহাসে আর কোনো কোচ যা পারেননি, তা-ই করে দেখান জিদান। ১৯৬১ সালে মিগেল মুনেজের টানা ১৫ জয়ের রেকর্ড যান ছাড়িয়ে। গত মৌসুমের শেষ ১২ ম্যাচ জয়ের পর নতুন মৌসুমেরও শুরুর চার খেলায় জিতল তাঁর দল। পরশু এস্পানিওলের বিপক্ষে দলের সেরা দুই তারকা ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও গ্যারেথ বেল ছিলেন না। তবু থামেনি রিয়ালের জয়রথ। হামেস রোদ্রিগেস ও করিম বেনজিমার লক্ষ্যভেদে ঠিকই ২-০ গোলে জিতে যায় তারা। গড়ে নতুন ক্লাব-রেকর্ড। আর সব মিলিয়ে ২০১১ সালে পেপ গার্দিওলার বার্সেলোনার টানা ১৬ জয়ের রেকর্ডও ছুঁয়ে ফেলে জিদানের রিয়াল মাদ্রিদ। সামনের ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের ছাড়িয়ে সিংহাসনের একক অধিকার নেওয়ার উপলক্ষ ‘লস ব্লাঙ্কো’দের সামনে।

সাফল্য-শিরোপায় গার্দিওলাকে ছাড়িয়ে যেতে হলে এখনো অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে জিদানকে। কিন্তু রেসের শুরুতে এগিয়ে ফরাসি কোচই। পরশুর ম্যাচটি ছিল লা লিগায় কোচ জিদানের ২৪তম ম্যাচ। তাতে ২১ জয়, দুই ড্র এবং এক হার। বার্সেলোনা কোচের দায়িত্ব নিয়ে প্রথম ২৪ ম্যাচে গার্দিওলার দল জেতে ১৯ ম্যাচ। তিন ড্র-র সঙ্গে দুই হারও রয়েছে। জিজুর একমাত্র পরাজয় অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে। অন্যদিকে গার্দিওলার দল হারে নুমান্সিয়া ও এস্পানিওলের কাছে।

কোচ হয়ে পাঁচ মাসের মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়েছেন। এবার লিগে টানা জয়ের রেকর্ড। শুরুর পরিসংখ্যানে গার্দিওলাকে ছাড়িয়ে যাওয়া। সমালোচকরা যা-ই বলুক, খেলোয়াড় জিদানের মতো কোচ জিদানও কিন্তু প্রবল গতিতে ধেয়ে যাচ্ছেন অমরত্বের দিকে। মার্কা, গোল ডটকম


মন্তব্য